ডিএসতে বাড়লেও কমেছে সিএসইতে

দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচক বাড়লেও কমেছে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই)।

সোমবার দিনভর ওঠানামার পর সূচক সামান্য বাড়লেও লেনদেনে উন্নতি নেই; আগের দিনের মতো শেয়ার কেনাবেচা ছিল হাজার কোটি টাকার নিচে।

দিন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ১২ পয়েন্টের সামান্য বেশি। এ নিয়ে চার দিনে এ সূচক বাড়ল ২৭৫ দশমিক ২৮ পয়েন্ট। এর আগে আট কার্যদিবসের মধ্যে সাত দিনে সূচক কমেছিল ৩৮৮ দশমিক ৫৬ পয়েন্ট।

অপরদিকে দেশের দ্বিতীয় পুঁজিবাজার সিএসইর প্রধান সূচক সিএএসপিআই ১৩ দশমিক ১৯ পয়েন্ট বা দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ কমে অবস্থান করছে ২০ হাজার ৪০২ দশমিক ৭৪ পয়েন্টে।

এদিন প্রথম ৩০ মিনিটে ডিএসই সূচক আগের দিন থেকে ৪ পয়েন্ট বেড়ে যায়।এর পর সূচক এক ঘণ্টার মাথায় আগের দিন থেকে ২২ পয়েন্ট কমে যায়। পরে শেয়ার কেনার চাহিদা বাড়লে দরও বাড়ে, এতে ঊর্ধ্বমুখী ধারায় ফেরে সূচকও।

দিন শেষে প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিন থেকে ১২ দশমিক ৯১ পয়েন্ট বা দশমিক ১৯ শতাংশ বেড়ে ৬ হাজার ৯৭৮ দশমিক ৫৪ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

মঙ্গলবার পুঁজিবাজার নিয়ে দু্ই নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি ও বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈঠকের আগে গত রোববারের মতো এদিনও শেয়ার কেনাবেচায় বিনিয়োগকারীরা ছিলেন সতর্ক অবস্থানে।

এর প্রভাবেই ডিএসইতে লেনদেনে ধীরগতি ছিল সোমবারও। আগের দিনের তুলনায় দশমিক ৮৮ শতাংশ বা ৭ কোটি ৮৫ লাখ টাকা কমে ৮৮৭ কোটি ১৪ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়, যা আগের কর্মদিবসে ছিল ৮৯৪ কোটি ৯৮ লাখ টাকা।

এদিন এ বাজারে লেনদেন হওয়া ৩৭১টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিটের মধ্যে দর বেড়েছে ২১৮টির ও কমেছে ১১৮টির। অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৫টির দর।

ঢাকার অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ৩ দশমিক ৬১ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১ হাজার ৪৬৪ পয়েন্টে দশমিক ৬৮ পয়েন্ট।

ডিএস৩০ সূচক ৩ দশমিক ৬৩ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ২ হাজার ৬৩৪ দশমিক ৬৩ পয়েন্টে।

লেনদেনের শীর্ষ ১০টি কোম্পানি

বেক্সিমকো লিঃ, জেনেক্স ইনফোসেস, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামি ব্যাংক, সেনা কল্যাণ ইন্স্যুরেন্স, ওয়ান ব্যাংক, ম্যাকসন স্পিনিং, সোনালী পেপার, ফরচুন সুজ, ওরিয়ন ফার্মা ও আইএফআইসি ব্যাংক।

দাম বাড়ার তালিকায় শীর্ষ ১০টি

সেনা কল্যাণ ইন্স্যুরেন্স, সিভিও পেট্রোকেমিক্যাল, হাক্কানি পাল্প, আমরা নেটওয়ার্ক, ইনফর্মেশন সার্ভিসেস নেটওয়ার্ক, মেট্রো স্পিনিং, ম্যাকসন স্পিনিং, সমতা লেদার, ডোমিনেজ স্টিল বিল্ডিং ও সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ।

বেশি দর হারানো ১০টি কোম্পানি

নর্দান ইন্স্যুরেন্স, মেঘনা সিমেন্ট, ফারইস্ট ফাইন্যান্স, মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্স, আইসিবি থার্ড এনআরবি, এশিয়া প্যাসেফিক ইন্স্যুরেন্স, বিচ হ্যাচারি, ইউনাইটেড ফাইন্যান্স, ফেডারেল ইন্স্যুরেন্স ও ওরিয়ন ইনফিউশন।

এদিন চট্টগ্রামের পুঁজিবাজারে সূচকের সঙ্গে লেনদেন কমেছে।

সিএসইতে ২৭০টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ড কেনাবেচা হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৪৮টির, কমেছে ৯৩টির ও অপরিবর্তিত রয়েছে ২৯টির দর।

সোমবার এ বাজারে লেনদেন আগের দিনের তুলনায় ৪৪ দশমিক ৪১ শতাংশ বা ২৮ কোটি ১২ লাখ টাকা কমেছে।

এদিন মোট ৩৫ কোটি ২০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যা আগের দিন ছিল ৬৩ কোটি ৩৩ লাখ টাকা।