পাঁচ বছর পর উৎপাদনে এমারেল্ড অয়েল

পাঁচ বছর বন্ধ থাকার পর বাণিজ্যিক উৎপাদনে ফিরেছে এমারেল্ড অয়েল।

ঋণ কেলেংকারির কারণে বন্ধ হয়ে যাওয়া ধানের কুঁড়া থেকে ভোজ্যতেল উৎপাদনকারী কোম্পানিটি নতুন মালিকানায় এসে আবার কার্যক্রম শুরু করেছে।

রোববার পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত এ কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আফজাল হোসেন উৎপাদন শুরুর বিষয়টি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছেন।

এর আগে সকালে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ওয়েবসাইটে জানানো হয়, পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরুর পর এমারেল্ড অয়েলের পরিচালনা পর্ষদ রোববার থেকে বাণিজ্যিক উৎপাদনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।   

জামালপুরে অবস্থিত কোম্পানিটি ২০১৪ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। তালিকাভুক্তির দুই বছর পরই কোম্পানিটির তৎকালীন ব্যবস্থাপনা পরিচালক বেসিক ব্যাংক ঋণ কেলেঙ্কারি জড়িয়ে জেলে যান। পরে জামিন নিয়ে দেশের বাইরে চলে গেলে কোম্পানির কার্যক্রম ২০১৬ সাল থেকে বন্ধ হয়ে যায়।

পরে কোম্পানিটিকে চালু করতে গত বছরের প্রথম দিকে এমারেল্ড অয়েলের পর্ষদ ভেঙে দিয়ে নতুন পর্ষদ গঠনের সিদ্ধান্ত নেয় পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি।

২০২১ সালের মাঝামাঝি সময়ে মিনোরি বাংলাদেশ নামে জাপানি একটি কোম্পানি এমারেল্ড অয়েলের শেয়ার কিনে মালিকানায় আসে।

এরপর বিভিন্ন সময় উত্পাদন শুরুর কথা থাকলেও তা করতে পারেনি।

এতদিন স্পন্দন ব্র্যান্ডের রাইস ব্র্যান ভোজ্যতেল এবং ডিওআরবি তৈরি করত কোম্পানিটি।

চালের কুঁড়া থেকে তেল বের করে ফেলার পর উপজাত হিসেবে ডিওআরবি থাকে, যা মাছের বা মুরগির খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করা যায়।

আরও পড়ুন:

ঋণের দায় নিয়ে সমঝোতার খবর অস্বীকার এমারেল্ড অয়েলের  

উৎপাদনে যাচ্ছে এমারেল্ড অয়েল, ৬ মাসে শেয়ারদর বেড়েছে ৩ গুণ  

৪ কোম্পানির পর্ষদ ভেঙে দেওয়ার সিদ্ধান্ত