আট দিন পর মাথা তুলেছে পুঁজিবাজারের সূচক

টানা আট দিন দরপতনের পর মার্জিন ঋণের সীমা বাড়ানোর সিদ্ধান্তে ঊর্ধ্বমুখী হয়েছে পুঁজিবাজারের সূচক।

সোমবার প্রথম দেড় ঘণ্টার লেনদেনে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ১ দশমিক ৭৩ শতাংশ এবং চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সূচক ১ দশমিক ৪৬ শতাংশ বেড়েছে।

বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত সময়ে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের চেয়ে ১০৫ দশমিক ৯৯ পয়েন্ট বেড়ে হয়েছে ৬ হাজার ২৪৮ দশমিক ৬৮ পয়েন্ট।

আর সিএসইর প্রধান সূচক সিএএসপিআই ২৬৩ দশমিক ২১ পয়েন্ট বেড়ে ১৮ হাজার ৩৪০ দশমিক ৯৩ পয়েন্টে পৌঁছায়।

বিশ্ব বাজারের অস্থিরতা আর ডলারের দাম চড়ে যাওয়ার খবরে আতঙ্কের মধ্যে চলতি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে পুঁজিবাজারে দরপতন শুরু হয়।

শেয়ার বিক্রির হিড়িকে সর্বশেষ আট লেনদেন দিবসে টানা পতন ঘটে সূচকে। এই আট দিনে ডিএসই সূচক হারায় ৫৫৫ দশমিক ৪০ পয়েন্ট বা ৮ দশমিক ২৯ শতাংশ।

দরপতন থামাতে মার্জিন ঋণের সীমা বাড়ল  

এ পরিস্থিতিতে রোববার মার্জিন ঋণ নেওয়ার সীমা বাড়ানোর ঘোষণা দেয় বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

সেখানে মার্জিন ঋণের হার ১: ১ (এক টাকা বিনিয়োগের বিপরীতে এক টাকা ঋণ) করার নির্দেশনা দেয় বিএসইসি, যা আগে ১: দশমিক ৮০ (এক টাকার বিপরীতে ৮০ পয়সা) ছিল।

বিএসইসির ওই সিদ্ধান্তের পর সোমবার দিনের শুরুতেই ঊর্ধ্বমুখী হয় শেয়ার বাজারের সূচক। বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ডিএসইতে ২৬৩ কোটি ২৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

ওই সময়ে ঢাকায় মোট ৩৬৯টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট হাতবদল হয়, যার মধ্যে ৩৪০টির দর বাড়ে, ১৮টির কমে এবং ১১টির দর অপরিবর্তিত থাকে।

আর চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে ১৭৯টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ড কেনাবেচা হয় ওই সময়ে। তার মধ্যে ১৩৯টির দর বাড়ে, ২৭টির কমে এবং ১৩টির দর অপরিবর্তিত থাকে।

সিএসইতে ওই সময়ে ৬ কোটি ৯১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।