এআর ফিচার ‘ভাইবার লেন্স’ বাংলাদেশে চালু করলো ভাইবার

বাংলাদেশের বাজারের জন্য ‘ভাইবার লেন্স’ ফিচার চালু করেছে ক্রস প্ল্যাটফর্ম ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং সেবা রাকুতেন ভাইবার। নতুন ফিচারকে প্রতিষ্ঠানটি বলছে ‘অগমেন্টেড রিয়েলিটি (এআর) সমন্বিত ইন-অ্যাপ ক্যামেরা’। স্ন্যাপচ্যাট ও বিটমোজির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্ন্যাপ ইনকর্পোরেটেডের সঙ্গে জোট বেঁধে ফিচারটি বানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

প্রাথমিক ঘোষণার তিন মাস পর বাংলাদেশের বাজারে চালু হল ‘ভাইবার লেন্স’ ফিচারটি। জুমে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বাংলাদেশের ব্যবহারকারীদের জন্য রাকুতেন ভাইবার নতুন ফিচারটি চালু করার ঘোষণা দিয়েছে ১৪ অক্টোবর।

‘ভাইবার লেন্স’ নিয়ে স্ন্যাপ ইনকর্পোরেটেডের সঙ্গে জোট বাঁধার খবর রাকুতেন জানিয়েছিলো চলতি বছরের ৩০ জুন। ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানটি বলছে, “সহকর্মী, বন্ধু বা কাছের মানুষের সঙ্গে দৈনন্দিনকার আলাপচারিতায় নতুন মাত্রা যোগ করবে ফিচারটি”।

নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, ‘ভাইবার লেন্স’ ফিচারটি নির্মাণে ব্যবহার করা হয়েছে স্ন্যাপ ইনকর্পোরেটেডের ক্যামেরা কিট, ক্রিয়েটিভ কিট ও বিটমোজিসহ বেশ কয়েকটি ডেভেলপার টুর। ফিচারটির অংশ হিসেবে ৩০টির বেশি ফিল্টার ব্যবহারের সুযোগ পাবেন গ্রাহক, যার মধ্যে আছে প্রাণীদের মুখোশ, ফ্যান্টাসি ইফেক্ট এবং ব্যবহারকারীর পছন্দের ভাইবার চরিত্র।

নতুন ফিচার প্রসঙ্গে রাকুতেন ভাইবারের ‘চিফ গ্রোথ অফিসার’ অ্যানা নামেন্সকায়া বলেন, “নতুন ভাইবার লেন্স উন্মুক্ত করার মাধ্যমে এআর প্রযুক্তির শেষ সীমারেখা পাল্টে দিচ্ছি আমরা। চলতি মহামারীর কারণে আমাদের যে ব্যবহারকারীরা পরিবারের থেকে আলাদা হয়ে আছেন, আরও অর্থবহ যোগাযোগের উপায় খুঁজছিলেন তারা। ভাইবার লেন্স কল্পনাকে উত্তজনাপূর্ণ বাস্তবতায় রূপ দেবে।”

“আমাদের বিশ্বাস, এতে আমাদের ভবিষ্যত পণ্যে আরও উদ্ভাবনী ও উত্তেজনাপূর্ণ আনুসাঙ্গিক যোগ হবে।”

ছবি: রাকুতেন ভাইবার

ভাইবার ক্যামেরা চালু করে যে কোনো ফিল্টার বেছে নিয়ে দ্রুত একটি ছবি তুলে সঙ্গে সঙ্গেই প্রাপকের কাছে পাঠিয়ে দিতে পারবেন ব্যবহারকারী। এছাড়াও ‘কাস্টোমাইজেশন’ সুবিধা দেবে ভাইবার লেন্স; ব্যবহারকারী চাইলে রঙ পাল্টে দিতে পারবেন বা স্টিকার জুড়ে দিতে পারবেন যা সরাসরি স্ক্রিনেই দেখা যাবে।

নতুন ফিচারের কার্যক্ষমতা নিয়ে রাকুতেন ভাইবারের জেষ্ঠ্য পরিচালক ডেভিড সে বলেন, “অ্যাপ্লিকেশনের ভেতরে মেসেজ, ভিডিও এবং ছবির লেনদেনে উচ্চ-নিরাপত্তা মানের প্রতিশ্রুতির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ভাইবার লেন্সে সর্বাধুনিক এআর প্রযুক্তি যোগ করেছি আমরা। এর পাশাপাশি বাংলাদেশের জন্য বাড়তি স্থানীয় লেন্স উন্মোচন নিয়েও অপেক্ষা করছি আমরা।”

“বাংলাদেশের ব্যবহারকারীদের জন্য ফিচারগুলো আনতে পেরে এবং তাদের চিন্তা ও অনুভূতিগুলো প্রকাশের আরও শৈল্পিক উপায় দিতে পেরে আমরা আনন্দিত।”

এ ছাড়াও ভাইবার লেন্সের মাধ্যমে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রসঙ্গ বা পছন্দের ফুটবল দলকে সমর্থন দিতে পারবেন ব্যবহারকারীরা। ওই ‘ব্র্যান্ড লেন্স’গুলোর জন্য ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন (ডব্লিউএইচও), ওয়ার্ল্ড ওয়াইল্ড লাইফ ফান্ড এবং এফসি বার্সেলোনার সঙ্গেও জোট বেঁধেছে রাকুতেন ভাইবার।

রাকুতেন ভাইবার জানিয়েছে, প্রতি মাসে অন্তত ২০টি নতুন লেন্স যোগ করার লক্ষ্য রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির।