স্মার্টফোনের ব্যাটারি দীর্ঘক্ষণ টেকানোর ৭টি দৈনন্দিন উপায়

ছবি: রয়টার্স
সত্যি কথাটি স্বীকার করে নেওয়াই ভালো, স্মার্টফোনের ব্যাটারিলাইফ নিয়ে সমস্যায় কখনো পড়েননি এমন কাউকে খুঁজে পাওয়ার খুবই কঠিন। আর এদের জন্যই সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে লাইফহ্যাক সলিউশন নামে একটি সাইট। আসুন, তাদের সমাধান অনুসারে দেখে নেই ফোনের ব্যাটারি দীর্ঘক্ষণ টেকানোর উপায়-

০১. ফোনের নিজস্ব চার্জার ব্যবহার করুন
ফোনের চার্জার নষ্ট হয়ে গেলে আমরা নতুন চার্জার কিনি। আর এই কেনার সময়েই আমরা আপোস করে ফেলি - দাম কম বলে হাতের কাছে যা পাই তাই কিনে ফেলি। দয়া করে আপনার ফোনের নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের সঠিক চার্জারটি কিনুন। কারণ, ফোনের ব্যাটারি চার্জ করার জন্য যে মান ও বিদ্যুৎ সরবরাহ প্রয়োজন সেটি মাথায় রেখেই তৈরি করা হয় এসব চার্জার। অন্য চার্জারে এই মান না-ও মিলতে পারে। যার ফলে চাপ পড়তে পারে ব্যাটারিতে।

০২. অটো ব্রাইটনেস অপশন অন করে রাখুন
ফোন ডিসপ্লের অটো ব্রাইটনেস ফিচার তৈরি করা হয়েছে বাইরের আলোর সঙ্গে মিলিয়ে ডিসপ্লের ব্রাইটনেস সমন্ময় করার জন্য। আর এর ফলে সার্বিকভাবে ফোনের ব্যাটারি খরচ কমিয়ে আনা সম্ভব হয়।

০৩. ওয়াইফাই, ব্লুটুথ, জিপিএস
এই সংযোগ তিনটি প্রয়োজন না থাকলে বন্ধ করে রাখুন। এর ফলে ব্যাটারি সাশ্রয় করা সম্ভব হবে অনেকটাই।

০৪. ক্যামেরার অতি ব্যবহার কমিয়ে আনুন
সব স্মার্টফোনেই ক্যামেরা থাকে আর দিনদিন ক্যামেরার ক্ষমতা বাড়ছে মেগাপিক্সেলে, ফ্রেম পার সেকেন্ড হিসেবে। এর ফলে আধুনিক মোবাইল ফোনের ক্যামেরা আগের ক্যামেরাগুলোর চেয়ে বেশি শক্তি খরচ করে। কাজেই, ক্যামেরার ব্যবহার কমিয়ে আনুন, ব্যাটারি টিকবে অনেকক্ষণ।

০৫. ব্যবহার শেষে অ্যাপ বন্ধ করে দিন
আমরা স্মার্টফোনে একসঙ্গে একাধিক কাজ করি। হয়তো ফেইসবুকে বিভিন্ন পোস্ট দেখছি, পাশাপাশি গানও শুনছি। এমন করতে গিয়েই দেখা যায় ফোনে একসঙ্গে অনেকগুলো অ্যাপ চলছে। এটি হতে পারে ব্যাটারি খরচের অন্যতম কারণ। অনেক অ্যাপই প্রতিনিয়ত আপনার অজান্তেই সার্ভার বা সেবার সঙ্গে যোগাযোগ বজায় রাখে। এতে ব্যাটারি খরচও বাড়ে।

০৬. দুর্বল সিগনালে মোবাইল ডেটা
ফোনে মোবাইল সিগনাল দুর্বল দেখালে মোবাইল ডেটা ব্যবহার বন্ধ করে দিন। কারণ এই অবস্থায় ডেটা ট্রান্সফার বজায় রাখার জন্য ফোনের শক্তি খরচ অনেক বেড়ে যায়।

০৭. আর যদি এসব কিছুর পরও ব্যাটারি স্বল্পায়ু হয়
কী আর করা! ফোনের ওএস থেকে দেখে নিন ব্যাটারির স্বাস্থ্য কতটা বজায় আছে। প্রয়োজনে বদলে নিন ফোনের ব্যাটারি। তবে, এজন্য অবশ্যই উপযুক্ত সনদধারী সারাই কর্মীর কাছে যাওয়া উচিৎ।