ক্রিপ্টোকারেন্সি প্রশ্নে ইনফ্লুয়েন্সারদের লাগাম টানছে স্পেন

সামাজিক মাধ্যমে ইনফ্লুয়েন্সারদের লাগামহীন ক্রিপ্টোকারেন্সি প্রচারণা নিয়ন্ত্রণে আনতে তৎপর হচ্ছে স্পেন কর্তৃপক্ষ; আগ্রহী ক্রিপ্টো বিনিয়োগকারীদের এই খাতের ঝুঁকি সম্পর্কে অবহিত করতে বড় পরিসরে প্রচারণা চালানোর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে স্থানীয় শেয়ারবাজারে পর্যবেক্ষক সংস্থাকে।

মূলধারার অর্থনীতির সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের নজর কেড়েছে ক্রমবর্ধমান ক্রিপ্টোকারেন্সি বাজার। এই প্রযুক্তি কেন্দ্রিক আর্থিক ব্যবস্থার উপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে না পারলে মূলধারার লেনদেনে ব্যবস্থা হুমকির মুখে পড়বে বলে শঙ্কিত তারা।  

এমন পরিস্থিতিতে আনুষ্ঠানিক নির্দেশনা দিয়েছে স্পেন সরকার– ডিজিটাল সম্পদ দিয়ে প্রচারণা চালানোর লক্ষ্য এক লাখ মানুষের বেশি হলেই অন্তত ১০ দিন আগে স্থানীয় বাজার পর্যবেক্ষক সংস্থা ‘সিএনএমভি’-কে জানান দিতে হবে বিজ্ঞাপনদাতা ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে।

নতুন নীতিমালা ফেব্রুয়ারি মাসের মাঝামাঝি সময়ে কার্যকর হবে বলে জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স। সব ধরনের ক্রিপ্টো সম্পদের প্রচারণার উপর কাছ থেকে নজর রাখবে স্থানীয় বাজার পর্যবেক্ষক সংস্থা; এই ধরনের বিনিয়োগ প্রশ্নে প্রয়োজনে সাধারণ ব্যবহারকারীদের সতর্ক করে দেবে সংস্থাটি। 

সামাজিক মাধ্যমে ফলোয়ার সংখ্যা এক লাখের বেশি এমন ইনফ্লুয়েন্সারদের উপর কার্যকর হবে নতুন নীতিমালা। অর্থের বিনিময়ে কোনো ক্রিপ্টোকারেন্সি প্রকল্পের বিজ্ঞাপন প্রচারণায় অংশ নিলে বাজার পর্যবেক্ষক সংস্থাকে আগেভাগেই জানান দিতে বাধ্য থাকবেন তারাও।

গেল বছরের নভেম্বর মাসে ফুটবল তারকা আন্দ্রেস ইনিয়েস্তাকে কড়া ভাষায় শাষিয়েছিল সিএনএমভি। নিজস্ব টুইটার ও ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে ক্রিপ্টোকারেন্সি লেনদেনের প্ল্যাটফর্ম বাইন্যান্স নিয়ে প্রচারণা চালিয়েছিলেন তিনি। ক্রিপ্টোকারেন্সি বাজারে বিনিয়োগ করার আগে এবং অন্যদের বিনিয়োগের পরামর্শ দেওয়ার আগে তার নিজের এই বিষয়ে আরো বিস্তারিত জানা প্রয়োজন– ইনিয়েস্তার প্রতি এমনি ছিল সিএনএমভি’র বক্তব্য।

সাম্প্রতিক সময়ে নতুন বিনিয়োগকারী টানতে আগ্রাসী প্রচারণা চালাচ্ছে  ক্রিপ্টোকারেন্সি প্ল্যাটফর্মগুলো। এর মধ্যে প্রতিষ্ঠিত প্ল্যাটফর্মের উপস্থিতি থাকলেও সাধারণ ব্যবহারকারীদের আগ্রহের সুযোগ নিতে তৎপর হয়েছে সাইবার প্রতারকরাও। সবমিলিয়ে বিভিন্ন কারণে ঘোলাটে হয়ে দাঁড়িয়েছে ক্রিপ্টোকারেন্সির বাজার। সম্প্রতি এমনি এক প্রশ্নবিদ্ধ প্রচারণায় অংশ নিয়ে মামলার ঝুঁকিতে পড়েছেন রিয়ালিটি টিভি শো তারকা কিম কারদাশিয়ান ও সাবেক বক্সিং চ্যাম্পিয়ন ফ্লয়েড মেওয়েদার।