‘বিল গেটসের সঙ্গে মাইক্রোসফট কর্মীর সম্পর্ক নিয়ে তদন্ত হয়েছিল’

মাইক্রোসফটের এক কর্মীর সঙ্গে প্রেম সম্পর্ক গড়ে ওঠার অভিযোগ নিয়ে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ বিল গেটসের বিরুদ্ধে তদন্ত করেছিল। যার জেরেই ২০২০ সালে ‘তিনি পদত্যাগ করেছিলেন’ বলে জানানো হয়েছে ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের নতুন এক প্রতিবেদনে।

‘ওই ঘটনা সম্পর্কে জানেন’ এমন ব্যক্তিদের বরাত দিয়ে রোববার ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল এ খবর প্রকাশ করেছে।

খবরে বলা হয়, “মাইক্রোসফটের এক নারী প্রকৌশলী একটি চিঠিতে অভিযোগ করে বলেছিলেন, কয়েক বছর ধরে বিল গেটসের সঙ্গে তার শারীরিক সম্পর্ক ছিল।”

“এ অভিযোগ নিয়ে তদন্ত চলাকালে মাইক্রোসফট পরিচালনা পর্ষদের কয়েকজন সদস্য সিদ্ধান্ত নেন যে, বিল গেটস তার প্রতিষ্ঠিত সফটওয়্যার তৈরির কোম্পানির পরিচালক পদে আর থাকার উপযুক্ত নন। এরপর পরিচালনা পর্ষদের তদন্ত শেষ হওয়ার আগেই বিল গেটস পদত্যাগ করেন।”

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে ‍অভিযোগ তোলা ওই নারী কর্মীর নাম প্রকাশ করা হয়নি। সিএনএন-ও ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের প্রতিবেদনটির সত্যতা যাচাই করতে পারেনি।

তবে রোববার রাতে মাইক্রোসফটের একজন মুখপাত্র সিএনএন বিজনেসকে নিশ্চিত করে বলেন, ‘‘২০১৯ সালের শেষভাগে মাইক্রোসফট একটি চিঠি পেয়েছিল যেখানে বলা হয়, ২০০০ সালের দিকে বিল গেটস কোম্পানির একজন কর্মীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে তোলার চেষ্টা করেছিলেন।”

“পর্ষদের একটি কমিটি এ বিষয়ে নিরপেক্ষ এবং পূর্ণাঙ্গ তদন্তের জন্য বাইরের একটি ল ফার্মের সহায়তা নেয়। যে নারী কর্মী ওই অভিযোগ তুলেছিলেন মাইক্রোসফট থেকে তাকেও সর্বাত্মক সমর্থন দেওয়া হয়েছিল।”

এ বিষয়ে বিল গেটসের একজন মুখপাত্র বলেন, ‘‘এ সম্পর্ক প্রায় ২০ বছর আগের, যা আপোসেই শেষ হয়েছিল। বিল গেটস মাইক্রোসফটের পরিচালনা পর্ষদ থেকে সরে দাঁড়ানোর যে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তার সঙ্গে ওই সম্পর্কের বিষয়টি কোনোভাবেই সংশ্লিষ্ট নয়।”

“এবং সত্যি বলতে, ওই সময় তিনি কয়েক বছর আগে শুরু করা জনকল্যাণমূলক কাজে আরও বেশি সময় ব্যয় করার আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন।”

মাইক্রোসফটের পরিচালনা পর্ষদ থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত ঘোষণার সময় ২০২০ সালের মার্চে বিল গেটস একটি বিবৃতি দিয়েছিলেন। সেখানে তিনি জনকল্যাণমূলক কাজে আরো বেশি সময় দেওয়ার জন্য পদত্যাগ করার কথা বলেছিলেন।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের আগে দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস- এ বিল গেটসকে নিয়ে একই ধরনের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ পেয়েছিল।

যা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বিল গেটসের মুখপাত্র বলেন, ‘‘বিল গেটস ও মেলিন্ডার বিচ্ছেদ কারণ, পরিস্থিতি এবং সময় নিয়ে অনেকেই অনেক অসত্য খবর প্রকাশ করছেন, যা অত্যন্ত হতাশাজনক।”

তিনি আরও বলেন, ‘‘বিলের বিরুদ্ধে ‘কর্মীদের সঙ্গে অসদারণের যে অভিযোগ তোলা হচ্ছে তাও সম্পূর্ণ মিথ্যা।”

“বিল গেটস ও মেলিন্ডার বিচ্ছেদ ঘিরে যে গুজব ও জল্পনা ছড়ানো হচ্ছে সেটা দিন দিন অযৌক্তিক ও বিরক্তিকর হয়ে উঠছে। এটা খুবই দুর্ভাগ্যজনক, যে মানুষগুলো তাদের সম্পর্কে খুব সামান্যই জানেন তাদের বরাত দিয়ে খবর প্রকাশ করে দেওয়া হচ্ছে।”

এ মাসের শুরুর দিকে বিল গেটস ও মেলিন্ডা তাদের ২৭ বছরের বিবাহিত জীবনের ইতি টানার সিদ্ধান্ত নেন।