তালেবান অগ্রযাত্রা রুখতে আফগানিস্তানে কারফিউ

কাবুলের উপকণ্ঠে তল্লাশী চৌকিতে সতর্ক প্রহরায় আফগান পুলিশ। ছবি: রয়টার্স
তালেবান বাহিনীর হাতে বিভিন্ন শহরের পতন ঠেকাতে আফগানিস্তানজুড়ে কারফিউ জারি করেছে দেশটির সরকার।

বিবিসি জানিয়েছে, শনিবার থেকে এই কারফিউ জারি করা হয়েছে এবং রাত ১০টা থেকে ভোর ৪টা পর্যন্ত সব ধরনের চলাফেরায় নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। শুধু রাজধানী কাবুল এবং দুটি প্রদেশিক শহর নানগরহর ও পাঞ্জশির এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকছে।

আফগান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে জানানো হয়, “সহিংসতা রোধে এবং তালেবানের চলাচল সীমিত করতে ৩১টি প্রদেশে কারফিউ জারি করা হয়েছে। কাবুল, পাঞ্জশির ও নানগরহর এর বাইরে থাকবে।”

বিদেশি সেনা প্রত্যাহারের পর গত দুই মাসে আফগান সরকারি বাহিনীর সঙ্গে তালেবানের লড়াই তীব্র হয়েছে। দেশের প্রায় অর্ধেক এলাকাই তালেবানের নিয়ন্ত্রণে বলে বিবিসি জানিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র তাদের সব সেনা প্রত্যাহারের কার্যক্রম শুরুর পর তালেবান যোদ্ধারা আক্রমণ বেগবান করে, কয়েকটি সীমান্ত ক্রসিংয়ের নিয়ন্ত্রণ নেয় এবং প্রত্যন্ত এলাকার অনেকটুকুই দখলে নিয়ে নেয়।

স্থলভাগ বেষ্টিত আফগানিস্তানের গুরুত্বপূর্ণ সড়কের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার মাধ্যমে তারা দেশের সরবরাহ ব্যবস্থাও বিঘ্নিত করতে তৎপরতা চালাচ্ছে। তালেবান যোদ্ধারা বেশ কয়েকটি বড় শহরের খুব কাছে পৌঁছে গেছে, কিন্তু এখন পর্যন্ত একটিরও নিয়ন্ত্রণ নিতে পারেনি।

তালেবান বাহিনীর অব্যাহত অগ্রযাত্রার মুখে কান্দাহার শহরের উপকণ্ঠে তীব্র লড়াই চলছে। আফগানিস্তানের সরকারি বাহিনীকে সহায়তা করতে বৃহস্পতিবার সেখানে তালেবান লক্ষ্যবস্তুতে বিমান হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্র। তবে ৩১ অগাস্ট যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তান থেকে সব সেনা সরিয়ে নেওয়ার পর আগামী মাসগুলোতে সেখানকার পরিস্থিতি কী দাঁড়াবে তা নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা বিশ্লেষকদের শঙ্কা, তালেবান যোদ্ধারা আগামী ছয় মাসের মধ্যেই হয়তো গোটা দেশের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নিতে পারে।