গোয়াডালুপের স্বায়ত্তশাসন নিয়ে আলোচনায় আগ্রহী ফ্রান্স

গোয়াডালুপে সহিংসতায় একাধিক গাড়ি পোড়ানো হয়। ছবি রয়টার্স থেকে নেওয়া
গোয়াডালুপের বাসিন্দারা আগ্রহী হলে ফ্রান্স তাদের ক্যারিবীয় অঞ্চলভুক্ত এলাকাটির স্বায়ত্তশাসন নিয়ে আলোচনায় আগ্রহী বলে জানিয়েছেন দেশটির এক মন্ত্রী।

কোভিড-১৯ সংক্রান্ত নির্দেশনাকে কেন্দ্র করে সম্প্রতি গোয়াডালুপ ও কাছাকাছি ফরাসী দ্বীপ মার্টিনিকে কয়েকদিন ধরেই ব্যাপক বিক্ষোভ ও সহিংসতা দেখা গেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

বিক্ষোভ সরকারি খাতের কর্মীদের বাধ্যতামূলক কোভিড-১৯ এর টিকা নেওয়ার নির্দেশনার প্রতিবাদে শুরু হলেও পরবর্তীতে তা জীবনমান এবং ফ্রান্সের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক কেমন থাকবে সে প্রসঙ্গে মোড় নেয়।

বিক্ষোভকারীদের অনেকেই কয়েক হাজার কিলোমিটার দূরে অবস্থিত প্যারিসের সরকার তাদের ওপর যেভাবে সবকিছু চাপিয়ে দেয় এবং তাদেরকে ‘দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক’ হিসেবে দেখে তার প্রতিবাদ জানান বলে জানিয়েছে আল জাজিরা। 

পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্যারিসের সরকার গোয়াডালুপ ও মার্টিনিকের সরকারি খাতের কর্মীদের টিকা নেওয়ার বাধ্যবাধাকতা থেকে পিছু হটার ঘোষণা দেয়।

শুক্রবার ফ্রান্সের বিদেশি অঞ্চল বিষয়ক মন্ত্রী সিবাস্তিয়া লোকনু ইউটিউবে দেওয়া এক ভিডিও বার্তায় বলেছেন, গোয়াডালুপের কিছু নির্বাচিত কর্মকর্তা স্বায়ত্তশাসনের প্রশ্নটি তুলেছেন এবং তারা ফ্রান্সের বিদেশি অঞ্চলভুক্ত এলাকাটির মর্যাদা বদলাতে চাইছেন।

“সরকার এটা নিয়ে কথা বলতে প্রস্তুত,” বলেছেন তিনি।

প্যারিস গোয়াডালুপের বাসিন্দাদের জীবনমান উন্নয়নে একাধিক পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে বলেও তিনি জানান। এসব পদক্ষেপের মধ্যে আছে স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়ন, অবকাঠামো নির্মাণ প্রকল্প ও তরুণদের জন্য চাকরি সৃষ্টির ব্যবস্থা।