পেরুতে ভূমিকম্পে ৭৫ বাড়ি ধ্বংস, আহত ৪

হালকা গ্রান্দে শহরে ভূমিকম্পে ধ্বংস হওয়া একটি বাড়িতে পেরুর প্রেসিডেন্ট পেদ্রো কাস্তিও। ছবি: রয়টার্স
পেরুর উত্তরাঞ্চলীয় আমাজন এলাকায় ৭ দশমিক ৫ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্পে ৭৫টি বাড়ি ধ্বংস হলেও মৃত্যুর কোনো খবর হয়নি।

রোববারের এ ভূমিকম্পটি দেশটির মাধ্যাঞ্চলে রাজধানী লিমাতেও অনুভূত হয়েছে বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে।

পেরুর সিসমোলজিক্যাল সেন্টার অব দ্য জিওফিজিক্যাল ইনস্টিটিউট জানিয়েছে, ভূমিকম্পটির উৎপত্তি কোনদোরকাংকি প্রদেশের সান্তা মারিয়া দ্য নিয়েভা শহর থেকে ৯৮ কিলোমিটার দূরে ভূপৃষ্ঠের ১৩১ কিলোমিটার গভীরে।

ভূমিকম্পটি পেরুর পুরো মাধ্যাঞ্চল ও উত্তরাঞ্চলজুড়ে অনুভূত হয়েছে। ভূমিকম্পের সময় বহু মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে বাইরে বেরিয়ে আসে বলে স্থানীয় রেডিও ও টেলিভিশনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

দেশটির ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব সিভিল ডিফেন্স এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ২২০টি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, ৮১টি বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়েছে এবং ৭৫টি ধ্বংস হয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্ত স্থাপনাগুলোর মধ্যে সাতটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ও দুটি শপিং সেন্টার আছে। মোট চার জন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে তারা।  

চাচাপোইয়াস প্রদেশের হালকা গ্রান্দে শহরের মেয়র ওয়াল্টার কুলকি জানান, শহরটির বেশ কয়েকটি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, এতে তিন জন আহত হয়েছেন। শহরটির একটি গির্জার টাওয়ার আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

আমাজন বন এলাকার বেশ কয়েকটি অংশে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে বলে স্থানীয় বাসিন্দারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানিয়েছেন।

স্থানীয় টেলিভিশনের ফুটেজে বড় বড় পাথর ও অন্যান্য আবর্জনা পড়ে রাস্তা বন্ধ হয়ে থাকতে দেখা গেছে।   

ভূমিকম্পে পেরুভিয়ান আমাজন অঞ্চল পার হয়ে উত্তরে প্রশান্ত মহাসাগরের উপকূলে যাওয়া রাষ্ট্রায়ত্ত তেল কোম্পানি পেট্রোপেরুর ১১০০ কিলোমিটার দীর্ঘ তেল পাইপলাইনের কোনো ক্ষতি হয়নি।  

টুইটারে দেশটির প্রেসিডেন্ট পেদ্রো কাস্তিও জানিয়েছেন, তাৎক্ষণিকভাবে ত্রাণ ও উদ্ধার কর্মীদের মোতায়েন করার আদেশ দিয়েছেন তিনি এবং সামরিক বিমানে করে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

“ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা দেবো আমরা,” বলেছেন তিনি।     

ইউরো-ভূমধ্যসাগরীয় সিসমোলজিক্যাল সেন্টার এক টুইটে জানিয়েছে, আমাজন চিরহরিৎ বনের যে অঞ্চলে ভূমিকম্প হয়েছে সেখানে জনবসতি খুবই কম।

যুক্তরাষ্ট্রের সুনামি সতর্কতা বিভাগ জানিয়েছে, পেরুর এই ভূমিকম্প থেকে সুনামি হওয়ার কোনও আশঙ্কা নেই।