ওমিক্রন নিয়ে শঙ্কার মাঝেও স্থল সীমান্ত খুলল সিঙ্গাপুর-মালয়েশিয়া

ছবি: রয়টার্স
করোনাভাইরাসের মহামারীর কারণে প্রায় দুই বছর বন্ধ রাখার পর নিজেদের মধ্যকার ব্যস্ততম একটি স্থল সীমান্ত খুলে দিয়েছে সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়া।

সোমবার টিকা নেওয়া ভ্রমণকারীদের জন্য এই সীমান্ত খুলে দেওয়া হয়।

এতে ভ্রমণকারীরা পরিবার ও বন্ধু-বান্ধবদের সঙ্গে আবার মিলিত হওয়ার সুযোগ পেয়েছে। তবে নতুন ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের কারণে আবার সীমান্তটি বন্ধ করে দেওয়া হতে পারে বলে আশঙ্কা আছে।

মহামারী শুরুর আগে প্রতিদিন প্রায় তিন লাখ মালয়েশীয় নাগরিক এই স্থল সীমান্ত পাড়ি দিয়ে সিঙ্গাপুরে যেত। ২০২০ সালের মার্চে হঠাৎ করে সীমান্তটি বন্ধ হয়ে গেলে উভয় দেশেই আটকে পড়েন লাখো মানুষ। পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন তারা, চাকরি নিয়েও দেখা দেয় শঙ্কা।

এতদিন পর আবার সীমান্ত খুলে যাওয়ায় সিঙ্গাপুরের কুইন স্ট্রিট বাস টার্মিনালে মালয়েশিয়াগামী প্রথম বাসের অপেক্ষায় বসে ছিলেন বেশ কয়েকজন যাত্রী।

তাদের মধ্যে ৩১ বছর বয়সী এক ব্যাংকার দুই বছরের মধ্যে প্রথম সিঙ্গাপুর ছাড়তে চলেছেন। করোনাভাইরাসের নতুন ধরন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন, “নতুন ভ্যারিয়েন্টের কারণে সীমান্ত ফের বন্ধ হয়ে যেতে পারে। আটকে পড়া নিয়ে আমি সত্যিই খুব উদ্বিগ্ন।”

ভ্রমণকারীদেরকে দেশ ছেড়ে যাওয়ার আগে কোভিড পরীক্ষা করিয়ে নেগেটিভ ফল পেতে হচ্ছে এবং অপর দেশে পদার্পনের সঙ্গে সঙ্গে কোভিড পরীক্ষা করাতে হচ্ছে।