ইউক্রেইনে পশ্চিমা অস্ত্রের চালান ধ্বংসের দাবি রাশিয়ার

রাশিয়ার একটি যুদ্ধজাহাজ থেকে ক্যালিবার ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হচ্ছে। ছবি: রয়টার্স
যুদ্ধ জাহাজ থেকে ছোড়া ক্যালিবার ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের সাহায্যে কিইভের পশ্চিমে ইউক্রেইনের জেতোমের অঞ্চলে পশ্চিমা অস্ত্রের বড় একটি চালান ধ্বংসের দাবি করেছে রাশিয়া।

শনিবার রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে কৃষ্ণসাগর তীরবর্তী ওদেসার কাছে একটি জ্বালানি সরবরাহ কেন্দ্রে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা এবং ইউক্রেইনের দুটি এসইউ-২৫ বিমান ও ১৪টি ড্রোন ধ্বংসের কথাও জানানো হয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

“ক্ষেপণাস্ত্র যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় দেশগুলোর পাঠানো বিপুল পরিমাণ সামরিক সরঞ্জাম ও অস্ত্রশস্ত্রে আঘাত হেনেছে; এসব অস্ত্রশস্ত্র তীব্র যুদ্ধ চলা পূর্বাঞ্চলীয় দনবাস অঞ্চলে ইউক্রেইনীয় বাহিনীর কাছে পাঠানোর উদ্দেশ্য ছিল তাদের,” বলা হয়েছে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে।

পশ্চিমা অস্ত্রের চালান এবং বিমান ও ড্রোন ধ্বংসের বিষয়ে তাদের এ দাবি সত্য কিনা, তা যাচাই করে দেখতে পারেনি রয়টার্স।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় তাদের ভাষায় ইউক্রেইনে চালানো ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ নিয়ে দেওয়া সর্বশেষ তথ্যে ইউক্রেইনের অসংখ্য কমান্ড পোস্টেও হামলা চালানোর কথা জানিয়েছে।

রাশিয়া ইউক্রেইনে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে তাদের এ বিশেষ অভিযানে নামে; এর পাল্টায় শুরু থেকেই ইউক্রেইনকে নানা ধরনের অস্ত্র সহায়তা দিয়ে আসছে পশ্চিমা দেশগুলো। রাশিয়ার সেনাবাহিনী সেসব অস্ত্রের চালান শনাক্ত ও তা ধ্বংসে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

মস্কো বলছে, কিইভকে পশ্চিমাদের অস্ত্র সরবরাহ এবং রাশিয়ার অর্থনীতির ওপর আরোপ করা প্রবল নিষেধাজ্ঞার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা রাশিয়ার ওপর ‘ছায়া যুদ্ধ’ চাপিয়ে দিয়েছে।

আরও খবর:

ফিনল্যান্ডেও গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করল রাশিয়া  

একমাত্র কূটনীতিই পারে যুদ্ধ থামাতে: জেলেনস্কি  

অবশিষ্ট যোদ্ধাদের আত্মসমর্পণ, শেষ হল ইস্পাত কারখানার অবরোধ