আরও দুই দেশ ইসরায়েল ও সুইজারল্যান্ডে মাঙ্কিপক্স শনাক্ত

ছবি: সায়েন্স ফটো লাইব্রেরি/বিবিসি
একের পর এক দেশে ছড়িয়ে পড়ছে মাঙ্কিপক্স। এই রোগ শনাক্তের তালিকায় এবার যোগ হয়েছে ইসরায়েল ও সুইজারল্যান্ডের নাম। দু’দেশই মাঙ্কিপক্স শনাক্তের খবর নিশ্চিত করে জানিয়েছে।

এ নিয়ে এখন পর্যন্ত বিশ্বের ১৪টি দেশে মাঙ্কিপক্স শনাক্ত হল বলে রোববার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বিবিসি।

খবরে বলা হয়, ইসরায়েল ও সুইজারল্যান্ডে একজন করে মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত ব্যক্তিকে শনাক্ত করা হয়েছে। দুটি দেশই জানিয়েছে, এই ব্যক্তিরা সম্প্রতি বিদেশ ভ্রমণ করেছিলেন। 

ইসরায়েল বলেছে, তারা মাঙ্কিপক্স সংক্রমণের সন্দেহে আরও কয়েকজনকে পরীক্ষা করে দেখছে।

এর আগে পর্যন্ত ইউরোপ, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা এবং অস্ট্রেলিয়ায় কমপক্ষে ৮০ জনের শরীরে এই রোগ শনাক্ত হয়েছে। মধ্য ও পশ্চিম আফ্রিকার প্রত্যন্ত অঞ্চলে মাঙ্কিপক্স খুব সাধারণ একটি রোগ।

মাঙ্কিপক্সের এই প্রাদুর্ভাবে বিজ্ঞানীরা বিস্মিত হয়েছে। তবে এ রোগটি মানুষের মাঝে সহজে বিস্তারের প্রবণতা নেই। তাই ব্যাপক সংখ্যক মানুষ আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কম।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলেছে, আরও ৫০ জন ব্যক্তি মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত সন্দেহে তা খতিয়ে দেখছে তারা। তবে এই ব্যক্তিরা কোন দেশের তা জানায়নি সংস্থাটি।

তারা সতর্ক করেছে এই বলে যে, আরও সংক্রমণের বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যাবে বলেই মনে করা হচ্ছে।

দক্ষিণ কোরিয়া সফর শেষের পর সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেন, যদি এই ভাইরাস আরও ব্যাপকভাবে বিস্তার লাভ করে তা হবে গুরুতর। সবাইকে এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।

এর প্রেক্ষিতে ব্যবস্থা নেওয়া সম্পর্কে যুক্তরাষ্ট্র কঠোর পরিশ্রম করছে। প্রথমে এ রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয় যুক্তরাজ্যে। তারপর থেকে মাঙ্কিপক্স ইউরোপজুড়ে শনাক্ত হয়েছে।

এ ভাইরাসে মানুষ আক্রান্ত হওয়ার খবর জানিয়েছে স্পেন, পর্তুগাল, জার্মানি, বেলজিয়াম, ফ্রান্স, নেদারল্যান্ডস, ইতালি ও সুইডেন।

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য বিষয়ক সংস্থা এ পর্যন্ত আক্রান্ত ২০ জনকে শনাক্ত করেছে। এর প্রধান চিকিৎসা উপদেষ্টা ড. সুসান হপকিন্স বিবিসি-কে বলেছেন, প্রতিদিনই আমরা বেশি পরিমাণ রোগী শনাক্ত করছি। এ ভাইরাস এখন কমিউনিটি পর্যায়ে ছড়িয়ে পড়ছে।