টেক্সাসের স্কুলে হত্যাকাণ্ড: সাড়া নিয়ে প্রশ্নের মুখে পুলিশ

রব এলিমেন্টারি স্কুলের অস্থায়ী স্মৃতিস্তম্ভে নিহত ১৯ শিশু ও দুই শিক্ষকের নাম লেখা ক্রস দেখা যাচ্ছে। ছবি: রয়টার্স
টেক্সাসের স্কুলে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বন্দুকধারী খোলা একটি দরজা দিয়ে ঢুকে ১৯ শিশু ও দুই শিক্ষককে হত্যা করে, একটি শ্রেণিকক্ষে এক ঘণ্টা ধরে আটকে রেখে এ হত্যাযজ্ঞ চালানোর সময় পুলিশের একটি বিশেষ টিম সেখানে অভিযান চালিয়ে তাকে মেরে ফেলে বলে ভাষ্য পুলিশের।

কিন্তু মঙ্গলবারের নির্বিচার গুলিবর্ষণের ঘটনার বিষয়ে টেক্সাস ডিপার্টমেন্ট অব পাবলিক সেইফটি (ডিপিএস) থেকে আসা সর্বশেষ বিস্তারিত দাপ্তরিক বিবরণের সঙ্গে বৃহস্পতিবার দেওয়া পুলিশের ভাষ্যের মিল পাওয়া যাচ্ছে না, এতে ওই প্রাথমিক স্কুলের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও আইন প্রয়োগকারীদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।    

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, টেক্সাসের সান আন্তোনিও শহর থেকে প্রায় ১৩০ কিলোমিটার পশ্চিমে ইউভালডের ওই স্কুল এলাকাটিতে প্রচলিত রীতি অনুযায়ী নিরাপত্তার পূর্বসতর্কতা হিসেবে সবগুলো প্রবেশপথ ও শ্রেণিকক্ষের দরজা তালাবদ্ধ করে রাখতে হয়।

কিন্তু এক শিক্ষার্থী রয়টার্সকে বলেছে, গুলিবর্ষণের ঘটনার দিন পুরস্কার প্রদানের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার জন্য অভিভাবকদের প্রবেশ করতে দিতে কিছু দরজা খোলা রাখা হয়েছিল। 

বিভিন্ন ভিডিও ফুটেজে রব এলিমেন্টারি স্কুলে হামলা চলাকালে বাইরে ধৈর্যহারা অভিভাবকদের দেখা গেছে, তারা পুলিশ কর্মকর্তাদের ভবনটিতে অভিযান চালানোর জন্য অনুরোধ করছিলেন। এসব ভিডিও প্রকাশের কয়েক ঘণ্টা পর ঘটনার নতুন বিস্তারিত ক্রমপঞ্জি আসে।

প্রায় এক দশকে যুক্তরাষ্ট্রে স্কুলে হওয়া সবচেয়ে প্রাণঘাতী নির্বিচার গুলিবর্ষণগুলোর মধ্যে এ তাণ্ডব স্থান করে নিয়েছে। এখানে নিহত এক শিক্ষকের স্বামী বৃহস্পতিবার তার স্ত্রীর শেষকৃত্যের প্রস্তুতি নেওয়ার সময় ‘হার্ট অ্যাটাকে’ মৃত্যুবরণ করেন; যা ওই ঘটনারই জের।

টেক্সাস হামলায় নিহত শিক্ষকের স্বামী মারা গেলেন ‘শোকে’  

এনআরএ: যুক্তরাষ্ট্রে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা ঠেকিয়ে রেখেছে যে সংগঠন  

যুক্তরাষ্ট্রে স্কুলে গোলাগুলি বেড়েছে রেকর্ড সংখ্যায়  

এক ব্রিফিংয়ে ডিপিএসের মুখপাত্র ভিক্টর এসক্যালন জানান, বন্দুকধারী সালভাদ রামোসের (১৮) পিকআপ ট্রাক কাছেই কোনো কিছুর সঙ্গে ধাক্কা খাওয়ার পর সে বিনাবাধায় স্কুল প্রাঙ্গণে প্রবেশ করে, এর ১২ মিনিটের মাথায় হত্যাকাণ্ড শুরু হয়।

পুলিশের প্রাথমিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, বাড়িতে নিজের দাদিকে গুলিতে আহত করে ফেলে রেখে গাড়ি চালিয়ে রামোস স্কুলের কাছে আসে, যখন সে দৌঁড়ে স্কুলটির দিকে যাচ্ছিল তখন স্কুলভিত্তিক এক পুলিশ কর্মকর্তার মুখোমুখি হয়েছিল।

কিন্তু এসক্যালন জানিয়েছেন, রামোস যখন স্কুলটিতে হাজির হয় তখন সেখানে কোনো সশস্ত্র পুলিশ কর্মকর্তা ছিল না।

স্থানীয় সময় সকাল ১১টা ১৮ মিনিটে রামোসের পিকআপ কোনো কিছুর সঙ্গে ধাক্কা খায়, এখানে রাস্তার অপর পাশে একটি ফিউনেরাল হোমে থাকা দুই ব্যক্তির দিকে গুলি ছুড়ে সে তারপর স্কুলের বেড়া টপকে ভেতরে ঢুকে হেঁটে ১১টা ৪০ মিনিটে একটি ভবনের পেছনদিকের খোলা একটি দরজা দিয়ে ঢুকে ভেতরে যায় বলে জানান এসক্যালন।

চার মিনিট পর দুই পুলিশ কর্মকর্তা স্কুলটিতে প্রবেশ করেন, রামোস তাদের দিকে কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়লে তারা আড়ালে অবস্থান নেন, জানান তিনি।

তখন হামলাকারী ফোর্থ গ্রেডের একটি শ্রেণিকক্ষে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেয়। ওই শ্রেণিকক্ষে মূলত ৯ থেকে ১০ বছর বয়সী শিশুরা ছিল। এক ঘণ্টা পর ইউএস বর্ডার পেট্রলের একটি ট্যাকটিক্যাল টিম ওই শ্রেণিকক্ষে ঢুকে রামোসকে গুলি করে হত্যা করে। 

অবরোধের প্রথমদিকে কর্মকর্তারা ওই শ্রেণিকক্ষ থেকে আসা ২৫টি গুলির শব্দ শোনার কথা জানিয়েছেন বলে এসক্যালন জানিয়েছেন।