সাবেক মন্ত্রী লতিফ সিদ্দিকীর দখল থেকে ৬৬ শতাংশ জমি উদ্ধার

সাবেক বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর দখল থেকে ৬৬ শতাংশ জমি উদ্ধারসহ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসন।

টাঙ্গাইল পৌরসভার আকুরটাকুর পাড়া এলাকায় রোববার সকালে অভিযান চালিয়ে এই জমি উদ্ধার করা হয়।

জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রোজলিন শহীদ চৌধুরী বলেন, “আকুর টাকুর পাড়া মৌজায় ২৪২ খতিয়ানের ৭৮৮ দাগে প্রায় ৫০ কোটি টাকা মূল্যের ৬৬ শতাংশ জমিটি দীর্ঘদিন ধরে সাবেক মন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী ভুয়া কাগজ তৈরি করে ভোগ-দখল করে আসছিলেন।

“মামলা হলে উচ্চ আদালত লতিফ সিদ্দিকীর জাল দলিল বাতিল করে সরকারের পক্ষে রায় দেয়। ডিসি মো. আতাউল গনির নির্দেশে অভিযান চালিয়ে স্থাপনা উচ্ছেদ করার পর জমিটি জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে নেওয়া হয়।”

উচ্ছেদের সময় লতিফ সিদ্দিকীর তত্ত্বাবধায়ক আয়নাল মিয়া উপস্থিত থেকে মালপত্র সরিয়ে নেন বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে লতিফ সিদ্দিকীর সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা হলেও তিনি সাড়া দেননি।

টাঙ্গাইল-৪ আসনে চারবারের সংসদ সদস্য লতিফ সিদ্দিকী ২০০৯ সালে শেখ হাসিনার সরকারে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রীর দায়িত্ব নিয়ে পাঁচ বছর তা পালন করেন।

২০১৪ সালে আওয়ামী লীগ ফের সরকার গঠন করলে তিনি দুই মন্ত্রণালয় ডাক ও টেলিযোগাযোগ এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির দায়িত্ব পান। কিন্তু বছর না পেরোতেই হজ নিয়ে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর পদ হারান তিনি। পরে মন্ত্রিত্ব হারান এবং সবশেষে দল থেকে বহিষ্কৃত হন।