রাজশাহী মেডিকেলের কোভিড ইউনিটে একদিনে আরও ১৩ মৃত্যু

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সাতজন মারা গেছেন। একই সময়ে উপসর্গ নিয়ে পাঁচজন ও পরবর্তী স্বাস্থ্য জটিলতায় একজনের মৃত্যু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে শুক্রবার সকাল ৬টার মধ্যে এই ১৩ জনের মৃত্যু হয় বলে হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান।

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে রাজশাহীর ছয়জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের একজন, নাটোরের তিনজন, ও নওগাঁর তিনজন। এদের মধ্যে আটজন পুরুষ এবং পাঁচজন নারী।

মৃতদের মধ্যে চারজনের বয়স ৬১ বছরের ওপরে। চারজন ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে এবং চারজন ৪১ থেকে ৫০ বছর বয়সের মধ্যে। এছাড়া একজনের বয়স ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ছিল।

এ নিয়ে চলতি মাসে (১ জুলাই থেকে ৩০ জুলাই পর্যন্ত) এ রাজশাহী মেডিকেলের কোভিড ইউনিটে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৫৫৩ জনে দাঁড়াল জানিয়ে পরিচালক বলেন, এর মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর মারা গেছেন ১৭৯ জন।

আর শ্বাসকষ্টসহ করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হওয়ার পর নমুনা পরীক্ষার আগেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন ৩৩৬ জন। বাকি ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে কোভিড পরবর্তী স্বাস্থ্য জটিলতায়।

এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় এ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে নতুন রোগি ভর্তি হয়েছে ৬৫ জন। এর মধ্যে রাজশাহীর ৩০ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের চারজন, নাটোরের নয়জন, নওগাঁর ছয়জন, পাবনার ১১ জন ও কুষ্টিয়ার পাঁচজন।

একই সময়ে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন ৫০ জন। শুক্রবার সকাল ৬টা পর্যন্ত কোভিড ইউনিটের ৫১৩ বেডের বিপরীতে ভর্তি আছে ৪২৫ জন। এদের মধ্যে আইসিইউতে রয়েছে ২০ জন।

কোভিড ইউনিটে চিকিৎসাধীনদের মধ্যে ১৮৯ জনের কোভিড পজেটিভ। আর উপসর্গ নিয়ে ভর্তি রয়েছে ১৭৪ জন; যাদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া করোনাভাইরাস থেকে মুক্ত হয়ে পরবর্তী স্বাস্থ্য জটিলাতা নিয়ে ৬২ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এদিকে বৃহস্পতিবার দুইটি ল্যাবে রাজশাহী জেলার ৫৪২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১২৪ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মিলেছে। যার শনাক্তের হার ২২ দশমিক ৮৮ শতাংশ বলে শামীম জানান।

এর আগের দিন বুধবার শনাক্তের হার ছিল ২৮ দশমিক ৯০ শতাংশ। গত মঙ্গলবার শনাক্তের হার ছিল ২২ দশমিক ৭৬ শতাংশ, গত সোমবার যা ছিল ২২ দশমিক ৫১ শতাংশ।

গত রোববার ৩০ দশমিক ৭৮ শতাংশ এবং গত শনিবার ছিল ৪৫ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ।