কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে হামলা, ঘটনাস্থলে ঢাবি শিক্ষক সমিতি

কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে ধর্মীয় অবমাননার কথিত অভিযোগ তুলে হামলার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির একদল প্রতিনিধি।

সমিতির নেতৃবৃন্দসহ ২২ জন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের একটি প্রতিনিধি দল সোমবার কুমিল্লায় আসেন। এ সময় তারা স্থানীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি রহমত উল্লাহ বলেন, “কেউ যদি আইনশৃংখলা লংঘন করে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের চেতনায় আঘাত করতে চায় তাহলে আমরা কখনও তা সহ্য করব না। আমরা সবাই এ রাষ্ট্রে স্বাধীন। আমরা আমাদের ধর্মীয় স্বাধীনতা ও মানবাধিকার নিয়েই বাস করতে চাই।”

সমিতির সাধারণ সম্পাদক নিজামুল হক ভুইয়া বলেন, “দুষ্কৃতিকারীরা সন্ত্রাসী। তাদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানাই।”

প্রতিনিধি দলের সদস্যরা নানুয়ার দিঘিরপাড় দুর্গাপূজা মণ্ডপের স্থান পরিদর্শন করেন।

এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক শফিউল আলম ভূইয়া, অধ্যাপক একেএম গোলাম রব্বানী, অধ্যাপক সৌরভ সিকদার, অধ্যাপক চন্দ্রনাথ পোদ্দার প্রমুখ।

পরে তারা কুমিল্লা থেকে নোয়াখালীর উদ্দেশ্যে রওনা হন।

কুমিল্লায় পুলিশ সময়মতো আসেনি, অভিযোগ মন্দির কমিটির  

কুমিল্লা: মন্দিরে সংঘবদ্ধ হামলাকারীরা অচেনা, বলছেন স্থানীয়রা  

কুমিল্লা নগরের নানুয়া দিঘির পাড়ে অস্থায়ী পূজামণ্ডপে কথিত ধর্মীয় অবমাননার অভিযোগ তুলে জেলার বিভিন্ন স্থানে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটে।

এসব ঘটনায় সদরের কোতোয়ালি, সদর দক্ষিণ, দাউদকান্দি থানায় আটটি মামলা মামলায় ৭৯২ জনকে আসামি করা হয়।

এসব মামলায় আটক ৪৩ জন আসামি কুমিল্লা কারাগারে আছেন।