চলন্ত জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেল ৫ বগি

চলন্ত জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস থেকে পাঁচটি বগি ছুটে বড় ধরনের দুর্ঘটনার উপক্রম হয়েছিল হবিগঞ্জে, তবে চালক থামিয়ে দেওয়ায় প্রাণ বেঁচেছে কয়েকশ যাত্রীর।

সিলেট থেকে ঢাকাগামী এই ট্রেনটি সোমবার বিকাল সাড়ে ৩টায় হবিগঞ্জের মনতলা স্টেশন ছেড়ে যাওয়ার পরপরই এই দুর্ঘটনা ঘটে বলে রেলকর্মী ও যাত্রীরা জানায়।

সিলেট রেল স্টেশন থেকে বেলা সোয়া ১১টার দিকে ১৫টি বগি নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা করে আন্তঃনগর জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস।

বেলা সাড়ে ৩টার দিকে ট্রেনটি হবিগঞ্জের মনতলা স্টেশনে পৌঁছে। এখানে দু মিনিট বিরতির পর আবারো চলতে শুরু করে।

কিছু দূর যাওয়ার পর হঠাৎই ট্রেনটি দু’ভাগ হয়ে যায় বলে ট্রেনের যাত্রী হবিগঞ্জ শহরের বাসিন্দা আনিসুল ইসলাম জানান।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, প্রথমে তিনি কিছুই বোঝেননি। আশপাশের লোকজনের চিৎকারে ট্রেন থামান চালক। পরে জানতে পারেন বগির সংযোগ হুক খুলে ট্রেনটি দু’ভাগ হয়ে গেছে।

এরপর ট্রেনটি প্রায় ৩ ঘণ্টা পর যাত্রা শুরু করে বলে জানান তিনি।

শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. সাইফুল্লা বলেন, মনতলা স্টেশন থেকে ছাড়ার পর ট্রেনের ১১ নম্বর বগির সংযোগ হুকটি ভেঙে যায়। এতে ট্রেনের মূল অংশ থেকে পাঁচটি বগি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে আখাউড়া থেকে হুক এনে পুনরায় ট্রেনটি চালু করা হয়।