খুলনায় অস্ত্রের মুখে দুই বোনকে ‘দলবেঁধে ধর্ষণ’

খুলনায় অস্ত্রের মুখে হাত-পা বেঁধে এক মাদ্রাসাছাত্রী ও তার খালাতো বোনকে  দলবেঁধে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বটিয়াঘাটা উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা ইউনিয়নের ফুলবাড়ি গ্রামে শনিবার গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটে বলে বটিয়াঘাটা থানার ওসি মোহাম্মদ শাহ জালাল জানান।

ষষ্ঠ শ্রেণী পড়ুয়া ১৩ বছর বয়সী মাদ্রাসা ছাত্রী ও ২২ বছর বয়সী তার খালাত বোনকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মাদ্রাসাছাত্রীর মা সাংবাদিকদের বলেন, শনিবার বিকালে তিনি বোনের বাড়ি ডুমুরিয়া যান। তার স্বামী চিকিৎসার জন্য বাগেরহাটে ছিলেন। এ সময় তার মেয়ে, বোনের মেয়ে ও তার ২৪ মাস বয়সী শিশু বাড়িতে ছিল।

গভীররাতে কয়েকজন যুবক তাদের বাড়িতে ঢুকে অস্ত্রের মুখে দুই বোনের হাত ও মুখ বেঁধে ধর্ষণ করে। এ সময় আরও কয়েকজন ঘরের বাইরে পাহাড়ায় ছিল।

ঘটনার সময় শিশুটির গলায় ছুরি ধরা হয় এবং পানিতে চোবানো হয়। পরে ভোরের দিকে মেয়ে তাকে ফোন করে ঘটনাটি জানায়।

শিশুটির শারীরিক অবস্থা ‘আশঙ্কাজনক’ তাকে খুলনা শিশু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ওসি বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও হাসপাতালে দুই বোনের সঙ্গে কথা বলে। তারা দুজনের নাম-পরিচয় বলতে পারলেও বাকিদের চিনতে পারেননি বলে জানিয়েছে।

এ ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানান শাহ জালাল ।