কুমিল্লা সিটিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী আফজল খানের ছেলে ইমরান

কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে ছয়জন প্রার্থী হয়েছেন; যাদের মধ্যে দুইজন এসেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ থেকে।

মনোনয়নপত্র জমার শেষ দিনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আরফানুল হক রিফাতের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নাম লিখিয়েছেন একই দলের নেতা মাসুদ পারভেজ খান ইমরান।

রিফাত কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদে রয়েছেন। তিনি কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি সদর আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের অনুগত বলে সবার কাছে পরিচিত।

রিটার্নিং কর্মকর্তা শাহেদুন্নবী চৌধুরীর কাছে মনিরুল হক সাক্কুর মনোনয়নপত্র জমা দেন তার ভাই কাইয়ুমুল হক

আর প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা আফজল খানের ছেলে ইমরান কুমিল্লা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি এবং কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা উপ-কমিটির সদস্য। বীর মুক্তিযোদ্ধা আফজল খান জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর ছিলেন।

আফজল খানের আরেক সন্তান আঞ্জুম সুলতানা সীমা সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য। তিনি গতবার আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী হয়ে বিএনপির মনিরুল হক সাক্কুর কাছে হেরেছিলেন।

কুমিল্লার রাজনীতিতে আফজল খানের সঙ্গে বাহারের বিরোধ ছিল ব্যাপক আলোচিত বিষয়।

মঙ্গলবার বিকাল ৩টায় রিটার্নিং কর্মকর্তা শাহেদুন্নবী চৌধুরীর কাছের কাছে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন আরফানুল হক রিফাত।

একই দিন বিকাল ৪টায় মনোনয়নপত্র জমা দেন ইমরান।

মাসুদ পারভেজ খান ইমরানের মনোনয়নপত্র জমা দেন তার কয়েকজন সহযোগী

রিফাত সাংবাদিকদের বলেন, “আমার পক্ষে তৃণমূলের সকল নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ। এছাড়া কুমিল্লার মানুষের মনে আমি জায়গা করে নিতে পেরেছি। আশা করছি কুমিল্লার মানুষ আমাকেই ১৫ জুনের নির্বাচনে বেছে নেবে। আমি মেয়র না, মানুষের সেবক হতে চাই।”

ইমরানও বিজয়ের ব্যাপারে আশাবাদী।

তিনি বলেন, “আমি দীর্ঘদিন ধরে নগরীর মানুষের সঙ্গে আছি। আমার নেতাকর্মী ও নগরীর মানুষের অনুরোধে আমি নির্বাচড়ে দাঁড়িয়েছি। আমি কারও বিরুদ্ধে বা কাউকে ঠেকাতে না, একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছি।”

২০১২ সালে সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিলেন আফজল খান। ২০১৭ সালের নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী ছিলেন তার মেয়ে সীমা। দুজনই বিএনপি নেতা মনিরুল হক সাক্কুর কাছে পরাজিত হন। এবারের নির্বাচনে খান পরিবার থেকে প্রার্থী দেয়নি আওয়ামী লীগ।

বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নেওয়ায় সাবেক মেয়র জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনিরুল হক সাক্কু স্বাতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তা শাহেদুন্নবী চৌধুরীর কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেন আওয়ামী লীগ মনোনীত আরফানুল হক রিফাত

মেয়র পদের অন্য তিন প্রার্থী হলেন মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি নিজাম উদ্দিন কায়সার, ইসলামী আন্দোলনের মহানগর কমিটির সহ-সভাপতি মো. রাশেদুল ইসলাম এবং আরেকজন স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল আহসান।

কামরুল আহসান কুমিল্লা নাগরিক ফোরামে সভাপতি। তার রয়েছে রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়।

আওয়ামী লীগের রিফাত ও ইসলামী আন্দোলনের রাশেদুল ছাড়া বাকি চারজন স্বতন্ত্র পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

 

আরও পড়ুন

রিফাতকে নিয়ে ‘অপপ্রচার’ হচ্ছে, অভিযোগ কুমিল্লা আওয়ামী লীগের  

স্বতন্ত্র লড়বেন সাক্কু  

কুমিল্লায় ভোটের এক মাস আগেই মাঠে বিজিবি  

কুমিল্লায় সোহেলের ওয়ার্ডে ভোটের মাঠে মুখোমুখি স্ত্রী ও ভাই  

কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে দুটি কেন্দ্র বেড়েছে  

কুমিল্লা সিটির মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আরফানুল  

কুমিল্লা সিটির প্রশাসকের দায়িত্বে সফিকুল ইসলাম  

কুসিক নির্বাচন: আওয়ামী লীগের মনোয়নপত্র নিলেন সাংসদ সীমা  

কুমিল্লা সিটি ভোট: মেয়র পদে আলোচনায় যারা  

কুমিল্লায় ভোট কেন্দ্রে-ভোট কক্ষে থাকবে সিসি ক্যামেরা  

কুমিল্লায় ভোরের কাগজ সম্পাদকের নামে মেয়র প্রার্থীর মামলা