দুই মোটরসাইকেলকে চাপা দিয়ে পালালো ট্রাক, প্রাণ গেল প্রকৌশলীর

বাগেরহাটে সেতুর টোলে দাঁড়িয়ে থাকা দুটি মোটরসাইকেলকে দ্রুত গতির একটি ট্রাক চাপা দিয়ে পালিয়েছে; এ ঘটনায় প্রাণ গেছে এক প্রকৌশলীর।

রোববার সকাল ৯টায় সদর উপজেলার বাগেরহাট-চিতলমারী সড়কের মুণিগঞ্জ সেতুর টোলের সামনে এ ঘটনায় সাংবাদিকসহ আরও চারজন আহত হয়েছেন বলে বাগেরহাট সদর মডেল থানার ওসি কে এম আজিজুল ইসলাম জানান।

মৃত শেখ মশিয়ার রহমান (৪২) বাগেরহাট সদর উপজেলার গোটাপাড়া ইউনিয়নের গোটাপাড়া গ্রামের প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আব্দুল মজিদের ছেলে। তিনি ইউএনডিপি’র বাগেরহাটের একটি প্রকল্পে প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

এ ঘটনায় আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে তাদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

দৈনিক সংবাদের বাগেরহাটের জেলা প্রতিনিধি আজাদুল হক বলেন, মশিয়ার বাড়ি থেকে বেরিয়ে মোটরসাইকেলে করে তার কর্মস্থল জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে রওনা হন। পথে মুণিগঞ্জ সেতুর টোলের কাছে বাঁশের ব্যারিকেড দেখে তিনি সেখানে দাঁড়িন। এ সময় আমিও ওই পথ দিয়ে যাওয়ার সময় ব্যারিকেডের কারণে মোটরসাইকেল নিয়ে মশিয়ারেরর পাশে অপেক্ষা করছিলাম।

টোলের টাকা আদায়কারীদের কাছে আমরা রাস্তায় ব্যারিকেডের কারণ জানতে চাইলে তারা জানায় যে- পেছনে একটি ট্রাক আসছে, ওই ট্রাকটিকে গোটাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ শমসের আলী আটকাতে বলেছেন। তাই ব্যারিকেড দিয়ে রাখা হয়েছে। আপনারা একটু অপেক্ষা করেন। এই কথা বলার কিছুক্ষণ পরেই ওই ট্রাকটি টোলে না দাঁড়িয়ে দুটি মোটরসাইকেলকে চাপা দিয়ে বাঁশের ব্যারিকেড ভেঙে দ্রুত গতিতে বাগেরহাট-খুলনা মহাসড়কের দিকে পালিয়ে যায়।

এ সময় মশিয়ার মোটরসাইকেল থেকে রাস্তায় ছিটকে পড়লে ট্রাকটি তার শরীরের উপর দিয়ে চলে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয় বলে আজাদুল জানান। 

তিনি বলেন, “এ সময় আমিসহ পাশের অন্তত ৪/৫ জন রাস্তার পাশে পড়ে গিয়ে আহত হই। বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ অবহিত করা হয়।”

এ বিষয়ে জানতে চাইলে গোটাপাড়া ইউপির চেয়ারম্যান শেখ শমসের আলী বলেন, “রোববার সকাল ৮টার দিকে বাগেরহাট-চিতলমারী সড়কের বাংলাবাজার এলাকায় ট্রাকটিকে দাঁড় করিয়ে বস্তা তুলতে দেখেন আমার পরিষদের উদ্যোক্তা মাসুদুর রহমান। এ সময় তার সন্দেহ হলে ট্রাকটিকে দাঁড়াতে বলে। কিন্তু চালক কোন কথা না শুনেই দ্রুত চালিয়ে বাগেরহাটের দিকে চলে আসে।

পরে মাসুদের আমাকে ফোনে বিষয়টি জানালে আমি মুণিগঞ্জ ব্রিজের টোলে ফোন করে ওই ট্রাকটিকে আটকাতে বলি। টোলের লোকজন ট্রাকটি আটকাতে গেলে ওই ট্রাক চালক ট্রাক না থামিয়ে মোটরসাইকেল আরোহীদের চাপা দিয়ে পালিয়ে গেছে।”

ওসি বলেন, মুণিগঞ্জ টোলের সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করেছি। ভিডিও দেখে ট্রাকটিকে শনাক্ত করতে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

আর রোববার দুপুরে নিহতের লাশের ময়নাতদন্ত বাগেরহাট সদর হাসপাতাল মর্গে হয়েছে বলে জানান তিনি।