১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৫ ফাল্গুন ১৪২৫

চট্টগ্রামে কেন্দ্র দখল, হামলার অভিযোগ বিএনপির

  • চট্টগ্রাম ব্যুরো, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2018-12-30 14:06:17 BdST

bdnews24
নগরীর কাজীরদেউড়ির একটি কেন্দ্রে ভোটারদের সারি

চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী-চান্দগাঁও) আসনের চান্দগাঁও এলাকায় কয়েকটি ভোট কেন্দ্র দখলের অভিযোগ করেছেন বিএনপির প্রার্থী। যদিও এর সত্যতা নেই বলে দাবি সহকারী রিটার্নিং অফিসারের।

রোববার সকাল ১০টার পর থেকে এই আসনের চান্দগাঁও অংশের এই কেন্দ্রগুলো দখল হয় বলে অভিযোগ বিএনপির। পাশাপাশি বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে তাদের এজেন্টকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ করা হয়।

এখানে বিএনপির প্রার্থী নগর কমিটির সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “চান্দগাঁও অংশের প্রায় সবগুলো কেন্দ্র দখল হয়ে গেছে।

“এখানে মোট ২৯টি কেন্দ্র আছে। চান্দগাঁও এলাকার কেন্দ্রগুলোতে এজেন্ট নেই। কোনো কোনো কেন্দ্র থেকে এজেন্টকে বের করে দেওয়া হয়েছে। তবে বোয়ালখালী সদরের কেন্দ্রগুলোতে ভোটগ্রহণ শান্তিপূর্ণভাবে হচ্ছে।”

নগর বিএনপির দপ্তর সম্পাদক ইদ্রিস আলী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, চট্টগ্রাম-৮ আসনের ওয়াজিদিয়া মাদ্রাসা, শাহ হাবিবুল্লাহ, ইয়ার আলী মিয়া হাট এবং শহীদ নগর কেন্দ্রগুলো দখল হয়ে গেছে।

“সেখানে নৌকার লোকজন ইচ্ছেমত সিল মারছে।”

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা চট্টগ্রাম জেলার প্রশাসনের ‍উপ-পরিচালক (স্থানীয় সরকার) ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি বলেন, একটি কেন্দ্রে সহিংসতার অভিযোগ পাওয়ার পর সাথে সাথে সেখানে ম্যাজিস্ট্রেট পাঠানো হয়।

“ম্যাজিস্ট্রেট সেখানে গিয়ে অভিযোগের কোনো সত্যতা পায়নি। সবগুলো কেন্দ্রে পুলিশ-বিজিবি এবং ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছে।”

চান্দগাঁও এলাকায় একাধিক কেন্দ্র দখলের অভিযোগ বিষয়ে ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি বলেন, তাদের অভিযোগের পর যাচাই করে কোনোটিরই সত্যতা মেলেনি।

“পরে জানতে চেয়েছি- আপনারা কোথায়? উনারা জানিয়েছেন, উনারা বাসায়। এখন কেউ যদি বাসায় বসে মনগড়া অভিযোগ করতে থাকেন তাহলে আমরা কী করতে পারি।”

এই আসনে নৌকা প্রতীক নিয়ে লড়ছেন মহাজোটের প্রার্থী বাংলাদেশ জাসদের মঈনুদ্দিন খান বাদল।

এখানে চার লাখ ৭৫ হাজার ৯৯৬ জন ভোটারের মধ্যে দুই লাখ ৪১ হাজার ৯২২ জন পুরুষ এবং দুই লাখ ৩৪ হাজার ৭৪ জন নারী ভোটার রয়েছেন।

সীতাকুণ্ডে বিএনপিপ্রার্থীর ভাইয়ের ওপর হামলার অভিযোগ

সীতাকুণ্ডে কারাবন্দি বিএনপিপ্রার্থী আসলাম চৌধুরীর ভাই ইসহাক কাদের চৌধুরীর ওপর বোমা হামলার অভিযোগ করেছে তার পরিবার।

আহত ইসহাক কাদের চৌধুরী চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তবে তার আঘাত গুরুতর নয়।

রোববার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুণ্ড) আসনের ফৌজদারহাট স্টেশন রোড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ইসহাক কাদেরের ছেলে শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “১২ বাজার সুন্নিয়া মাদ্রাসা কেন্দ্রে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে হেঁটে ভোট দিতে যাচ্ছিলেন বাবা।

“তাদের সামনে পুলিশের গাড়িও ছিল। পুলিশের গাড়ির সামনে থেকেই আমার বাবাকে লক্ষ্য করে ককটেল ছুড়ে মারা হয়। এতে বাবা আহত হন। পরিবারের অন্য সদস্যরা মাটিতে পড়ে গিয়ে সামান্য ব্যথা পেয়েছেন।”

শাহরিয়ার বলেন, “কিছুদিন আগে পর্যন্ত বাবাই ছিলেন ধানের শীষের প্রার্থী। এখন প্রার্থী আসলাম চৌধুরী, তিনি কারাগারে। আমার বাবাই নির্বাচন পরিচালনা করছেন।

“এভাবে যদি উনার ওপরই হামলা হয় তাহলে ভোটারদের অবস্থা কী সেটা আপনারাই বলেন। আবদুল্লাহ ঘাট এলাকায় কেন্দ্রে যাওয়া এজেন্টকে মারধর করা হয়েছে এমনকি এক ভোটারকেও মারা হয়েছে।”

এছাড়া সীতাকুণ্ডের বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে ধানের শীষের এজেন্টদের বের করে দেওয়ার অভিযোগও করেন তিনি।

হামলার বিষয়ে সীতাকুণ্ড থানার ওসি দেলোয়ার হোসেন বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বলেন, “এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেছে বলে আমি জানি না। খোঁজ নিয়ে দেখছি।”

চট্টগ্রাম মেডিকেল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই শীলব্রত বড়ুয়া জানান, ইসহাক কাদের চৌধুরী মাটিতে পড়ে গিয়ে ব্যাথা পেয়েছেন বলে ভর্তি স্লিপে লেখা আছে। উনাকে ক্যাজুয়ালটিতে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুণ্ড) আসনটি পরিচিত শিল্পাঞ্চল হিসেবে। এখানে মূল লড়াই হবে নৌকার প্রার্থী দিদারুল আলমের সাথে ধানের শীষের প্রার্থী আসলাম চৌধুরীর।

এ আসনে তিন লাখ ৯৩ হাজার ২২৮ জন ভোটারের মধ্যে দুই লাখ সাত হাজার ৪৫০ জন পুরুষ এবং এক লাখ ৮৫ হাজার ৭৭৮ জন নারী ভোটার।

কোন নির্বাচনে
কোন আসনে কার অবস্থান কী