২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০ ফাল্গুন ১৪২৫

চট্টগ্রামের সব আসনে আ. লীগ ও জোটসঙ্গীদের জয়

  • চট্টগ্রাম ব্যুরো বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2018-12-30 22:28:24 BdST

bdnews24

চট্টগ্রাম জেলার ১৬ আসনের ১৩টিতে আওয়ামী লীগ ও বাকি তিনটিতে মহাজোটের শরিক দলের প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন। 

রোববার রাতে নগরীর সিজেকেএস জিমনেসিয়ামে ছয়টি আসনের রিটার্নিং কর্মকর্তা আবদুল মান্নান এবং জেলা প্রশাসন সম্মেলন কক্ষে জেলার বাকি ১০ আসনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন ফলাফল ঘোষণা করেন। 

রোববার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত চট্টগ্রাম জেলার ১৬ আসনে ভোটগ্রহণ হয়।   

চট্টগ্রাম-১ (মিরসরাই) আসনে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। তিনি দুই লাখ ৬৬ হাজার ৬৬৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। 

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির নুরুল আমিন পেয়েছেন তিন হাজার ৯৯১ ভোট। এখানে মোট ভোটার ছিল তিন লাখ ১৫ হাজার ১৬ জন। 

চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি) আসনে বিজয়ী হয়েছেন মহাজোটের শরিক ত্বরিকত ফেডারেশনের নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী। নৌকা প্রতীকে তিনি পেয়েছেন দুই লাখ ৩৮ হাজার ৪৩০ ভোট। 

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির আজিমুল্লাহ বাহার পেয়েছেন ৪৯ হাজার ৭৫৩ ভোট। এখানে তৃতীয় হয়েছেন ইসলামী ফ্রন্টের মোমবাতি প্রতীকে সৈয়দ সাইফুদ্দিন আহমদ মাইজভাণ্ডারী পেয়েছেন ১০ হাজার ১৭৪ ভোট। এখানে মোট ভোটার ছিলেন তিন লাখ ৭৬ হাজার ৪৮৫ জন। 

চট্টগ্রাম-৩ (সন্দ্বীপ) আসনে আওয়ামী লীগের মাহফুজুর রহমান মিতা এক লাখ ৬২ হাজার ৩৫৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। 

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির মোস্তফা কামাল পাশা ধানের শীষে পেয়েছেন তিন হাজার ১২২ ভোট। এখানে মোট ভোটার ছিল দুই লাখ দুই হাজার ৬৩৫ জন।

চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুণ্ড) আসনে নৌকার দিদারুল আলম দুই লাখ ৬৬ হাজার ১১৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির আসলাম ছৌধুরী পেয়েছেন ৩০ হাজার ১৪ ভোট। এখানে মোট ভোটার ছিল তিন লাখ ৯৩ হাজার ২২৮ জন।

চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আসনে মহাজোটের প্রার্থী জাতীয় পার্টির (এরশাদ) ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ লাঙল প্রতীকে দুই লাখ ৭৭ হাজার ৯০৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। 

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মনোনীত কল্যাণ পার্টির অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল সৈয়দ মাহম্মদ ইবরাহীম ধানের শীষে পেয়েছেন ৪৪ হাজার ৩৮১ ভোট। এখানে মোট ভোটার ছিল চার লাখ ৩০ হাজার ১২৪ জন। 

চট্টগ্রাম-৬ (রাউজান) আসনে বিজয়ী হয়েছেন নৌকার এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী। তিনি পেয়েছেন দুই লাখ ৩০ হাজার ৪৭১ ভোট। 

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির জসিম উদ্দিন সিকদার পেয়েছেন দুই হাজার ২৪৪ ভোট। এ আসনে মোট ভোটার দুই লাখ ৭০ হাজার ৭৬০ জন ।

চট্টগ্রাম-৭ (রাঙ্গুনিয়া) আসনে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের ড. হাছান মাহমুদ। দুই লাখ ১৭ হাজার ১৫৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হওয়া নৌকার প্রার্থীর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন বিএনপি জোটের এলডিপির নুরুল আলম।  তিনি পেয়েছেন ছয় হাজার ৬৫ ভোট। এখানে মোট ভোটার দুই লাখ ৬৯ হাজার ৩৩২ জন। 

চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী-চান্দগাঁও) আসনে বিজয়ী হয়েছেন মহাজোটের শরিক জাসদের মঈনুদ্দিন খান বাদল। নৌকা প্রতীকে তিনি ভোট পেয়েছেন দুই লাখ ৭২ হাজার ৮৩৮ ভোট। 

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির আবু সুফিয়ান পেয়েছেন ৫৯ হাজার ১৩৫ ভোট। এ আসনে মোট ভোটার চার লাখ ৭৫ হাজার ৯৯৬ জন। 

চট্টগ্রাম-৯ (কোতোয়ালী-বাকলিয়া) আসনে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের প্রয়াত সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর পুত্র নওফেল দুই লাখ ২৩ হাজার ৬১৪ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। 

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির ডা. শাহাদাত হোসেন পেয়েছেন ১৭ হাজার ৬৪২ ভোট। এ আসনে এবার ইভিএম এ ভোটগ্রহণ হয়। এখানে মোট ভোটার তিন লাখ ৯০ হাজার ৪৩১ জন। 

চট্টগ্রাম-১০ (ডবলমুরিং-হালিশহর) আসনে বিজয়ী হয়েছেন নৌকার প্রার্থী ডা. মো. আফসারুল আমীন। তিনি পেয়েছেন দুই লাখ ৮৭ হাজার ৪৭ ভোট। 

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যওান আবদুল্লাহ আল নোমান পেয়েছেন ৪১ হাজার ৩৯০ ভোট। এখানে মোট ভোটার চার লাখ ৬৯ হাজার ৩১৪ জন। 

চট্টগ্রাম-১১ (বন্দর-পতেঙ্গা) আসনে বিজয়ী হয়েছেন নৌকার এম আবদুল লতিফ। তিনি পেয়েছেন দুই লাখ ৮৩ হাজার ১৬৯ ভোট। 

আর তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষের প্রার্থী বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী পেয়েছেন ৫২ হাজার ৮৯৮ ভোট। এখানে ভোটার পাঁচ লাখ সাত হাজার ৪০৫ জন। 

চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া) আসনে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের সামশুল হক চৌধুরী। তিনি নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন এক লাখ ৮৩ হাজার ১৭৯ ভোট। 

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির এনামুল হক এনাম পেয়েছেন ৪৪ হাজার ৫৯৮ ভোট। এখানে মোট ভোটার দুই লাখ ৮৫ হাজার ৯৬৬ জন।

চট্টগ্রাম-১৩ (আনোয়ারা-কর্ণফুলী) আসনে বিজয়ী হয়েছেন নৌকার প্রার্থী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ। তিনি পেয়েছেন দুই লাখ ৪৩ হাজার ৪১৫ ভোট। 

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ইসলামী ফ্রন্টের মোমবাতি প্রতীকের এম এ মতিন পেয়েছেন তিন হাজার ৭৯৪ ভোট। এখানে বিএনপির প্রার্থী সরওয়ার জামাল নিজাম পেয়েছেন তিন হাজার ১৫৩ ভোট।  

এখানে মোট ভোটার ছিল তিন লাখ ১০ হাজার ৪৬৬ জন।

চট্টগ্রাম-১৪ (চন্দনাইশ) আসনে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী নজরুল ইসলাম চৌধুরী। তিনি পেয়েছেন এক লাখ ৮৯ হাজার ১৮৬ ভোট। 

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী এলডিপির নেতা অলি আহমেদ ছাতা প্রতীকে ২২ হাজার ২২৫ ভোট পেয়েছেন। এখানে মোট ভোটার ছিল দুই লাখ ৪৯ হাজার ৪৩ জন।

চট্টগ্রাম-১৫ (সাতকানিয়া-লোহাগাড়া)  আসনে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী। তিনি পেয়েছেন দুই লাখ ৫৯ হাজার ৩৭৫ ভোট।

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষ প্রতীকে জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থী আ ন ম শামসুল ইসলাম পেয়েছেন ৫৩ হাজার ৯৮৬ ভোট। এখানে মোট ভোটার ছিল তিন লাখ ৮৮ হাজার ১৩৭ জন।

চট্টগ্রাম-১৬ (বাঁশখালী) আসনে এক লাখ ৭৫ হাজার ৩৪১ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির জাফরুল ইসলাম চৌধুরী পেয়েছেন ২৬ হাজার ৩৭০ ভোট।

কোন নির্বাচনে
কোন আসনে কার অবস্থান কী