২৫ মার্চ ২০১৯, ১১ চৈত্র ১৪২৫

তৃতীয় দিনে তুরাগ তীরে ভাঙা পড়লো ১৭ স্থাপনা

  • জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-02-20 16:43:11 BdST

bdnews24

ঢাকার মোহাম্মদপুরের বসিলা এলাকায় তুরাগ তীর দখল করে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে তৃতীয় দিনের মত অভিযান চালিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ।

বুধবার সাড়ে ৯টার দিকে বসিলা ব্রিজের উত্তর অংশে আমিন-মোমিন হাউজিং এলাকায় অভিযান শুরু হয় বলে বিআইডব্লিউটিএর যুগ্ম-পরিচালক একেএম আরিফ উদ্দিন জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, বুধবারের অভিযানে তুরাগ নদীর এলাকায় তিনটি দোতলা, নয়টি একতলা ও পাঁচটি আধাপাকা ভবন ভাঙা হয়। এছাড়া তিন হাজার ফুট দেয়ালও ভাঙার পাশাপাশি ১৩টি ইটের স্তুপ অপসারণ করা হয়।

বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে অভিযান শেষ হয় জানিয়ে তিনি বলেন, মঙ্গল ও বুধবারের অভিযানে প্রায় ১১ একর ভরাটকৃত জায়গা মুক্ত করা হয়েছে, যা ড্রেজিং করে পুনরায় পানির প্রবাহ ফিরিয়ে আনার পরিকল্পনা রয়েছে।

পরবর্তী অভিযানের দিনক্ষণ ও স্থান নির্ধারণ করে পরে জানানো হবে বলে জানান আরিফ উদ্দিন।

সোমবার বসিলায় উচ্ছেদ অভিযানের প্রথম দিন ১২০টি অবৈধ স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়, যার মধ্যে একটি চারতলা ভবন, আটটি তিনতলা ভবন, ১১টি দোতলা ভবন এবং ৪২টি একতলা ভবন রয়েছে। এছাড়া ৩৩টি আধা পাকা এবং ২৫টি টং ঘর উচ্ছেদ করা হয়।

এর আগে তিন দফায় নয় দিন অভিযান চালিয়ে বুড়িগঙ্গা তীরের প্রায় দেড় হাজার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে বিআইডব্লিউটিএ।

২০১৬ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একনেক বৈঠকে ঢাকার চারপাশের নদী ও চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীর দূষণ বন্ধ ও নাব্যতা ফিরিয়ে এনে নদী রক্ষায় টাস্কফোর্স গঠন করে দেন। তারই ধারাবাহিকতায় এ উচ্ছেদ কার্যক্রম চলছে।

নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী গত সপ্তাহে সংসদে বলেন, নদী তীরে অবৈধ দখল উচ্ছেদ ঠেকাতে কারও প্রভাবই খাটবে না। বিআইডব্লিউটিএ যে অভিযান শুরু করেছে, তা অব্যাহত থাকবে।