২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬

প্রিয়া সাহার গ্রামের বাড়িতে হামলা হয় গত মার্চে

  • পিরোজপুর প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-07-22 00:42:57 BdST

bdnews24
গত মার্চে হামলার রাতে আগুনে পোড়া প্রিয়া সাহার পৈত্রিক বাড়ি

পিরোজপুরের নাজিরপুরে প্রিয়া সাহার পৈত্রিক বাড়িতে গত মার্চে হামলা হয়েছিল, যার পেছনে জমি দখলের চেষ্টা ছিল বলে তার স্বজনদের অভিযোগ।

নাজিরপুর উপজেলার মাটিভাংগা ইউনিয়নের পশ্চিম চরবানিয়ারী গ্রামের মৃত নগেন্দ্র নাথ বিশ্বাসের মেয়ে প্রিয় বালা বিশ্বাস (৫৪), যিনি প্রিয় সাহা নামেই ঢাকায় পরিচিত। স্বামী দুদক কর্মকর্তা মলয় কুমার সাহার সঙ্গে ঢাকায়ই তার বসবাস।

তার ভাই জগদীশ চন্দ্র বিশ্বাসের ভোগ-দখলে থাকা সম্পত্তি দখলে নিতে গত ৩ মার্চ রাতে তাদের বাড়িতে হামলায় বলে অভিযোগ করেছেন ওই বাড়ির বাসিন্দা গৌরাঙ্গ মন্ডল।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “রাত ১১টার দিকে জগদীশ চন্দ্র বিশ্বাসের ভোগ দখলীয় জমি দখল করতে স্থানীয় ইউপি সদস্য নজরুল সরদারের নেতৃত্বে শতাধিক সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ওই জমিতে প্রবেশ করে তাদের মাছের ঘের থেকে মাছ লুট-পাট শুরু করে।

“বিষয়টি স্থানীয়রা মাটিভাঙ্গা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে জানালে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে তাদের প্রতিরোধ করার চেষ্টা করলে সন্ত্রাসীরা পুলিশদের ওপরও চড়াও হয়। পরে অতিরিক্ত পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনে।”

এ বিষয়ে প্রিয়া সাহার আত্মীয় অনন্ত বিশ্বাস বলেন, “ওই রাতে চিতলমারি উপজেলার লোকজন বাড়িতে হামলা চালিয়ে আমাদের মারধর করে এবং বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয়।”

খবর পেয়ে পুলিশ এসে না পড়লে তারা থাকতে পারতেন না এবং পুলিশ এখানে আছে বলে তারা বর্তমানে অবস্থান করতে পারছেন বলে ভাষ্য তার।

ওই বাড়িতে গিয়ে তিনজন পুলিশ সদস্যকেও দেখতে পাওয়া যায়।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নির্যাতন নিয়ে অভিযোগ করে সমালোচনার মুখে পড়েছেন প্রিয়া সাহা

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নির্যাতন নিয়ে অভিযোগ করে সমালোচনার মুখে পড়েছেন প্রিয়া সাহা

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পিরোজপুরের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মোল্লা আজাদ হোসেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, গত ৩ মার্চ রাতের হামলার পর থেকে স্থানীয়দের নিরাপত্তা ও সংঘর্ষ ঠেকাতে চরবানিয়ারী গ্রামে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সেখানে তারা নিয়মিত অবস্থান করছে।

প্রিয়া সাহা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নির্যাতন নিয়ে অভিযোগ করায় দেশজুড়ে তার সমালোচনা চলছে। এরমধ্যে রোববার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে প্রিয়া সাহার পৈত্রিক বাড়িতে হামলা নিয়ে কথা বলেন ওই এলাকার অধিবাসী গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

তিনি জানান, প্রিয় বালা বিশ্বাসের ভাই জগদীশ বিশ্বাস অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা; তিনি বাড়িতে থাকেন না। এক রাতে তার বাড়ির পরিত্যক্ত একটি ঘরে আগুন লাগে এবং সেই ঘটনায় বাড়ির কেয়ারটেকার কমলেশ বিশ্বাস বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন। মামলায় কারও নাম উল্লেখ করা করা হয়নি এবং কাউকে সন্দেহও করা হয়নি।

এসময় মন্ত্রী ওই মামলার এজাহার সাংবাদিকদের হাতে তুলে দেন, যাতে অজ্ঞাতনামা ৫০/৬০ জনকে আসামি করা হয়।

এজাহারে বলা হয়, ২ মার্চ রাত ৩টার দিকে জগদীশ বিশ্বাসের ঘরে আগুন লাগে এবং আশেপাশের মানুষ পুকুর থেকে পানি এনে আগুন নেভানোর চেষ্টা করলেও পুরো ঘর ভস্মীভূত হয়ে যায়। ঘরে থাকা ৫০ মণ ধান ও আসবাবপত্র পুড়ে যায়।ফৌজদারি কার্যবিধির ৪৩৬ ও ৪২৭ ধারায় অর্থাৎ আগুনে পোড়ানো ও ঘরের ক্ষতিসাধনের অভিযোগ করা হয়েছে।

তবে এই মামলায় পরে কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়, যাদের মধ্যে স্থানীয় দুজন হিন্দুও ছিলেন।

ওই গ্রামের বাসিন্দা শিখা রানী রায় বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমার ভাই কেষ্ট, বেমল তারাও আসামি। তার ১৫ দিন জেল হাজত খাইটে বাইরইছে।”

হামলার অভিযোগের বিষয়ে বক্তব্যের জন্য স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য নজরুল সরদারের মোবাইলে ফোন করে বন্ধ পাওয়া যায়।

প্রিয়া সাহা ডনাল্ড ট্রাম্পের কাছে যে অভিযোগ করেছেন তা নাকচ করে নাজিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অমূল্য রঞ্জন হালদার বলেন, “নাজিরপুরে কোনো সংখ্যালঘু নির্যাতন বা গুমের ঘটনা নেই। প্রিয়া সাহার বক্তব্য নিজ স্বার্থ হাসিলের জন্য ও উসকানিমূলক।”

স্থানীয় সংসদ সদস্য ও মন্ত্রী রেজাউল করিমও তার এলাকায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির কথা বলেছেন।

শনিবার তিনি বলেন, “বাংলাদেশ সম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। এখানে কেউ ধর্মীয় বিবেচনায় নির্যাতনের শিকার হন না। নাজিরপুরে মুসলিম-হিন্দুদের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

“নাজিরপুরের একটি হিন্দু বা অন্য কোনো ধর্ম-সম্প্রদায়েরর লোক গুম বা নিখোঁজ হয়নি। প্রিয়া বালার বক্তব্য অসৎ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত এবং সাম্প্রদায়িক সম্পর্ক নষ্টের উসকানিমূলক অপচেষ্টা ছাড়া আর কিছুই নয়।”