আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার শুনানি পিছিয়েছে

  • আদালত প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-02-17 13:10:04 BdST

bdnews24
ফাইল ছবি

বুয়েটছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় অভিযোগ গঠনের শুনানি পিছিয়ে গেছে; আগামী ১৮ মার্চ নতুন তারিখ দিয়েছেন বিচারক। 

সোমবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ এই দিন ঠিক করে দেন বলে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী তাপস পাল জানিয়েছেন। 

এদিকে এদিন আবরারের বাবা বরকতউল্লাহ মামলাটি বিচারের জন্য দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করবেন বলে বিচারককে জানিয়েছেন।

দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে মামলা স্থানান্তরের বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান আইনজীবী আবদুল্লাহ আবু বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “নিয়ম অনুযায়ী আবেদনটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আইন শাখায় পাঠানো হবে। সেখান থেকে অনুমোদনের পর সরকার গেজেট জারি করলে মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর হবে। আমি আবেদনটি তৈরিতে বাদীকে সাহায্য করছি।”

এ প্রসঙ্গে আবরারের বাবা বরকতউল্লাহ বলেন, “বাদীর হাজিরা দিতে আমরা আজ আদালতে এসেছিলাম। আমরা চাই মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর হোক ও দ্রুত বিচার শেষ হোক। সেজন্য একটি আবেদন লিখছি। আশা করছি দ্রুততার ভিত্তিতে ট্রাইব্যুনালে এই মামলার বিচার হবে এবং আসামিদের সর্বোচ্চ সাজা হবে।”

গত ১২ জানুয়া‌রি ঢাকার অতি‌রিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম মো. কায়সারুল ইসলাম মামলা‌টি বিচা‌রের জন্য মহানগর দায়রা জজ আদাল‌তে বদ‌লির আদেশ দেন। ওইদিনই মামলা‌টি স্থানান্তর হয়। এরপর দুই দফায় অভিযোগ গঠন ‍শুনানি পেছানো হয়।

গতবছরের ৬ অক্টোবর রাতে বুয়েটের শেরেবাংলা হলে ছাত্রলীগের কর্মীদের হাতে পিটুনিতে মারা যান বুয়েটের আবরার ফাহাদ। পরদিন বরকতউল্লাহ ১৯ জনকে আসামি করে চকবাজার থানায় একটি মামলা করেন।

এই হত্যা মামলায় গতবছরের ১৩ ন‌ভেম্বর ২৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেন গো‌য়েন্দা পু‌লিশের (ডি‌বি) লালবাগ জোনের প‌রিদর্শক মো. ওয়া‌হিদুজ্জামান।

১৮ নভেম্বর অভিযোগপত্র গ্রহণ করে পলাতক চার আসামির বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে আদালত।

কিন্তু তাদেরকে গ্রেপ্তার করা না যাওয়ায় ৩ ডি‌সেম্বর তা‌দের সম্পদ জব্দের নি‌র্দেশ দেওয়া হয়। ৫ জানুয়া‌রির ম‌ধ্যে ক্রোকী প‌রোয়ানা তা‌মি‌লের নি‌র্দেশ দেওয়া হ‌য়ে‌ছিল।

‌এরপর গত ৫ জানুয়া‌রি পলাতক আসা‌মি‌দের হা‌জি‌রে বিজ্ঞ‌প্তি প্রকাশের আদেশ দেওয়া হয়। বিজ্ঞ‌প্তি প্রকা‌শের বিষ‌য়ে প্রতিবেদন দা‌খি‌লের এক‌দিন আগের দিন মোর্শেদ অমর্ত্য ইসলাম না‌মের এক আসা‌মি আদাল‌তে আত্মসমর্পণ ক‌রেন।

এখন পলাতক আছেন মোর্শেদুজ্জামান জিসান, এহতেশামুল রাব্বি তানিম ও মোস্তবা রাফিদ। এর ম‌ধ্যে মোস্তবা রা‌ফিদের নাম এজাহা‌রে ছিল না।

মামলায় অভিযুক্ত ২৫ জনের মধ্যে এজাহারভুক্ত ১৯ জন এবং এজাহার বহির্ভূত ছয়জন।

তদন্ত চলাকালে মামলায় অভিযুক্ত ২৫ জনের মধ্যে ২১ জনকে গ্রেপ্তার করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, এদের মধ্যে আটজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।