সেলিম প্রধানের সহযোগী ইয়াংসিক লির জামিন হয়নি

  • নিজস্ব প্রতিবেদক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-05-19 17:52:54 BdST

bdnews24

অনলাইন জুয়ার কারবারে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেপ্তার সেলিম প্রধানের সহযোগী দক্ষিণ কোরিয়ার নাগরিকক ইয়াংসিক লির জামিন মেলেনি হাই কোর্টে।

চলতি বছরের ২২ জানুয়ারি আটক হওয়ার পর থেকে কারাগারে থাকা ইয়াংসিক অর্থ পাচারের মামলায় জামিন চেয়েছিলেন। 

বিচারপতি জে বি এম হাসানের ভার্চুয়াল হাই কোর্ট বেঞ্চে তার জামিন আবেদনের শুনানির পর মঙ্গলবার কোনো আদেশ না দিয়ে আবেদনটি নিয়মিত বেঞ্চে পাঠিয়ে দিয়েছেন। 

আদালতে জামিন আবেদনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী শরীফ আহমেদ। দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বশির আহমেদ।

খুরশীদ আলম খান পরে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “তিনি অর্থপাচারের একটি আলোচিত মামলায় গ্রেপ্তার। অপরাধের গুরুত্ব বিবেচনায় আমরা তার জামিনে আপত্তি জানিয়েছি। কোর্ট তাকে জামিন না দিয়ে আবেদনটিতে নো অর্ডার দিয়েছেন।”  

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বশির আহমেদ বলেন, ইয়াংসিক লি দক্ষিণ কোরিয়ার নাগরিক হলেও বাংলাদেশে থাকতেন উত্তর কোরিয়ার নাগরিক পরিচয়ে। অর্থ পাচারের এই মামলায় সে ৬ নম্বর আসামি। মামলাটির তদন্ত চলছে।

“অর্থ পাচারের সাথে দেশি-বিদেশি চক্র জড়িত থাকতে পারে। ফলে তাকে জামিন দিলে মামলাটির তদন্তে বিঘ্ন ঘটবে এমন আশঙ্কা থেকে আমরা জামিনের বিরোধিতা করেছি। আদালত নো অর্ডার দিয়েছেন।”

আইনজীবী শরীফ আহমেদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, অবকাশ শেষ হলে নিয়মিত বেঞ্চে আবার জামিন আবেদনটি  তুলবেন তারা।

অনলাইন জুয়ার কারবারে জড়িত থাকায় সেলিম প্রধানকে গত বছর ৩০ সেপ্টেম্বর ঢাকার শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। সেদিন থাই এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে ব্যাংককে যাওয়ার কথা ছিল তার।

সেলিম প্রধান ‘প্রধান গ্রুপ’ নামে একটি ব্যবসায়ী গ্রুপের চেয়ারম্যান। এই গ্রুপের অধীনে পি২৪ গেইমিং নামের একটি কোম্পানি আছে, যাদের ওয়েবসাইটেই ক্যাসিনো ও অনলাইন ক্যাসিনো ব্যবসার তথ্য রয়েছে।

গ্রেপ্তারের পর গত বছর ২ অক্টোবর গুলশান থানায় অর্থপাচারের মামলা হয় তার বিরুদ্ধে। ওই মামলায় তার সহযোগী ইয়াংসিক লিকেও আসামি করা হয় এবং ২২ জানুয়ারি তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।