সঙ্কটকালে ‘খাদ্য উপহার’ দিচ্ছেন তারা

  • নিজস্ব প্রতিবেদক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-05-20 19:02:49 BdST

করোনাভাইরাস সঙ্কটে ঢাকার প্রায় সাড়ে বারশ মধ্যবিত্ত পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছেন কয়েকজন তরুণ। 

গত ১ এপ্রিল থেকে ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় বাসায় গিয়ে তারা পৌঁছে দিচ্ছেন এক সপ্তাহের পরিমাণ প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী।

সজীব হক নামে তাদের একজন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “এখন পর্যন্ত আমরা ৭৫৩টি পরিবারের পাশে দাঁড়াতে পেরেছি। ঈদ পর্যন্ত আরও ৪৭৭টি পরিবার যুক্ত হবে। সব মিলিয়ে ১ হাজার ২৩০টি পরিবারের পাশে আমরা থাকতে পারব বলে আশা করি।”

তিনি বলেন, “আমরা এটাকে খাদ্য সহায়তা বা ত্রাণ বলছি না। বলছি মহামারি পরিস্থিতিতে সাময়িক দুর্দশায় পতিত মানুষদের জন্য খাদ্য উপহার।”

বুধবার পর্যন্ত ১৩ লাখ টাকার ‘খাদ্য উপহার’ দেওয়া হয়েছে বলে জানান সজীব।

চার বন্ধু শাহিন আহমেদ, আব্দুল মুকিত জোয়ারদার, মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জুয়েল ও সজীব হক মূলত এই চারজন ফেইসবুকে আলোচনার মধ্য দিয়ে এই পরিকল্পনা সাজান।

চার বন্ধুর মধ্যে শাহিন থাকেন ফ্লোরিডায়, মুকিত বার্লিনে, জুয়েল ও সজীব ঢাকায়।

এই চারজনই ১৯৯৮ সালে এসএসসি ও ২০০০ সালে এইচএসসি পাস করেছেন।

মার্চের শুরুর দিকে পরিকল্পনাটি করেছিলেন বলে জানান সজীব।

তিনি বলেন, “প্যান্ডেমিক সিচ্যুয়েশনটা মাথায় রেখে আমাদের দেশের মানুষের স্বাস্থ্য সচেতনতা এবং এই পরিস্থিতিতে তাদের পাশে কীভাবে দাঁড়ানো যায়, সেই ভাবনা থেকেই চার বন্ধু মিলে কিছু একটা করার পরিকল্পনা করি।

“প্রথমে নিজেদের ও কিছু ঘনিষ্ঠজনদের সহায়তায় একটা ফান্ড গঠন করি এবং যারা দুর্দশাগ্রস্ত কিন্তু কারও কাছে কোনো সহায়তা চাইতে পারছেন না, এমন পরিবারগুলোকে জন্য খাদ্য উপহারদেওয়ার প্রস্তুতি নিই।”

গত ১ এপ্রিল প্রথম ধাপে চার থেকে ছয়জন মিলে মোট ১১২টি পরিবারকে জন্য এক সপ্তাহের পরিমাণ মৌলিক খাদ্য সামগ্রী পাঠান তারা।

তার মধ্যে ছিল ৫ কেজি চাল, ১ কেজি ডাল, ১ লিটার সয়াবিন তেল, ১ কেজি লবণ, ১ কেজি পেঁয়াজ, ২ কেজি আলু ও লাইফবয় সাবান।

এই পরিবারগুলোকে কীভাবে বাছাই করলেন- জানতে চাইলে সজীব বলেন, “ফিড দ্য পিপল ডিউরিং কোভিড-১৯ ক্রাইসিস ইন বাংলাদেশ নামে একটি ফেইসবুক পেইজ খুলি। যেখানে ফান্ড রাইজিংয়ের পাশাপাশি এই পেইজের অনুসারী এবং বন্ধুদের আহ্বান জানানো হয় এমন পরিবারের খোঁজ দিতে। সেখানে যারাই রেসপন্স করেছেন তাদের কাছেই আমরা ছুটে গিয়েছি। এছাড়া পরিচিতজনদের মাধ্যমেও আমরা জানতে পেরেছি। এভাবেই মূলত বাছাইয়ের কাজটা করছি।” 

প্রথম ধাপের খাদ্য উপহার দেওয়ার পর তাদের আরও ৬ বন্ধু সুরাইয়া সিফাত বন্ধু লগ্ন (মিশিগান), মেহেরুন ঝর্ণা, সনিয়া রাশেদ (টরন্টো), সলীল খান (নিউ ইয়র্ক), শামিনুল সাকিব (ঢাকা) ও নিাজিয়া আফরিন হক মিষ্টিকে (সিডনি) এতে যুক্ত হন।

সজীব বলেন, “আমরা আমাদের উপহারের ব্যাগগুলা আমাদের ওইসব বন্ধুদের কাছে পৌঁছে দিই, যারা গোপনীয়তা রক্ষা করে দুর্দশাগ্রস্ত মানুষদের ঘরে তা পৌঁছে দেয়। মাঝে মাঝে আমরা নিজেরাও বন্ধুদের সাথে ওই মানুষগুলোর ঘরে গিয়ে হাজির হই। মুখের ভাষায় বলে প্রকাশ করা সম্ভব না তখন ওই মানুষগুলোর চোখের ভাষা, কৃতজ্ঞতা ও আনন্দ!”

যাদের অনুদানে তহবিল গড়ে উঠেছে, যারা স্বেচ্ছা শ্রম দিচ্ছেন, যারা অনুপ্রেরণা দিয়েছেন, দিচ্ছেন তাদের সবার প্রতি বন্ধুদের পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন সজীব। পাশাপাশি আহ্বান জানিয়েছেন সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার।