লিবিয়ায় নিহতদের ১১ জন মাদারীপুরের

  • নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-05-29 23:26:51 BdST

লিবিয়ায় হত্যাকাণ্ডের শিকার ২৬ বাংলাদেশির মধ্যে ২৩ জনের পরিচয় পেয়েছে সেখানকার বাংলাদেশ দূতাবাস, যাদের ১১ জনই মাদারীপুরের।

শুক্রবার রাতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, হাসপাতালে ভর্তি আহতদের সঙ্গে কথা বলে পাওয়া গেছে তাদের পরিচয়। বাকীদের পরিচয় নিশ্চিতের চেষ্টা চলছে।

একইসঙ্গে ওই ঘটনায় আহত ১১ জন এবং আত্মগোপনে থাকা একজনের পরিচয়ও জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

নিহতদের মধ্যে মাদারীপুরের ১১ জন হলেন- রাজৈর উপজেলার বিদ্যানন্দীর জুয়েল ও মানিক, টেকেরহাটের আসাদুল, আয়নাল মোল্লা ও মনির, ইশবপুরের সজীব ও শাহীন, দুধখালী ইউনিয়নের শামীম এবং মাদারীপুর সদরের জাকির হোসেন, জুয়েল ও ফিরোজ।

নিহতদের মধ্যে সাতজনের বাড়ি কিশোরগঞ্জে। ওই জেলার ভৈরব উপজেলার রাজন, শাকিল, সাকিব মিয়া, সোহাগ, আকাশ ও মোহাম্মদ আলীর সঙ্গে প্রাণ গেছে হোসেনপুর উপজেলার রহিমের।

এছাড়া গোপালগঞ্জের সুজন ও কামরুল, মাগুরার মোহাম্মদপুর উপজেলার নারায়ণপুরের লাল চান্দ, ঢাকার আরফান এবং যশোরের রাকিবুল রয়েছেন নিহতদের মধ্যে।

আহত ১১ জনের মধ্যে গুলিবিদ্ধ ছয়জন হলেন- মাদারীপুর সদরের তীর বাগদি গ্রামের ফিরোজ বেপারী (হাঁটুতে গুলিবিদ্ধ), ফরিদপুরের ভাঙ্গার দুলকান্দি গ্রামের মো. সাজিদ (পেটে গুলিবিদ্ধ), কিশোরগঞ্জের ভৈরবের শম্ভপুর গ্রামের মো. জানু মিয়া (পেটে গুলিবিদ্ধ), গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরের বামনডাঙ্গা বাড়ির ওমর শেখ (হাতে ও পায়ে গুলিবিদ্ধ), চুয়াডাঙ্গার বাপ্পী (মাথায় গুলিবিদ্ধ) এবং ভৈরবের জগন্নাথপুর গ্রামের মো. সজল মিয়া (হাতে গুলিবিদ্ধ ও মানসিকভাবে ভারসাম্যহীন)।

আহতদের মধ্যে মাগুরার মোহাম্মদপুর উপজেলার নারায়ণপুরের মো. তরিকুল ইসলাম (২২), চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গার বেলগাছির খেজুরতলার মো. বকুল হোসাইন (৩০), মাদারীপুরের রাজৈরের নারায়ণপুরের মো. আলী (২২), কিশোরগঞ্জের ভৈরবের সখিপুরের মওটুলীর সোহাগ আহমেদ (২০) এবং মাদারীপুরের রাজৈরের ইশবপুরের মো. সম্রাট খালাসী (২৯) স্থিতিশীল অবস্থায় সাধারণ ওয়ার্ডে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

আত্মগোপনে থেকে হামলার বিষয়ে দূতাবাসকে তথ্যদাতা সায়েদুল ইসলামের বাড়িও মাদারীপুরে।

প্রবাস পাতায় আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাস জীবনে আপনার ভ্রমণ,আড্ডা,আনন্দ বেদনার গল্প,ছোট ছোট অনুভূতি,দেশের স্মৃতিচারণ,রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক খবর আমাদের দিতে পারেন। লেখা পাঠানোর ঠিকানা probash@bdnews24.com। সাথে ছবি দিতে ভুলবেন না যেন!