আশুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা

  • আদালত প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-09-27 23:15:59 BdST

bdnews24
ছবি: নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল (ফাইল ছবি)

পাওনা টাকা উদ্ধারে সহায়তা চাইতে যাওয়া এক তরুণীকে আশুলিয়ার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দল বল নিয়ে ধর্ষণ করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

২০ বছর বয়সী ওই তরুণী রোববার ঢাকার ৯ নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে চেয়ারম্যানসহ তিন জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

বিচারক হেমায়েত উদ্দিন বাদীর জবানবন্দি নিয়ে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন বলে রাষ্ট্রপক্ষের বিশেষ কৌসুঁলি শহীদ হোসেন ঢালী জানান।

মামলার আসামিরা হলেন- আশুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শাহাবুদ্দিন মাদবর (৫০), তার শ্যালক মো. আলমগীর (৩৮) ও চেয়ারম্যানের পিএস সবুজ সিকদার (৩৫)।

মামলার আরজি থেকে জানা যায়, ধর্ষণের শিকার ওই তরুণী আশুলিয়া বাজারে সালাউদ্দিন আহম্মেদ শাওন নামে এক ব্যবসায়ীর কাছে ৫ লাখ টাকা পান। দীর্ঘ দিনেও ওই ব্যক্তি তাকে টাকা ফেরত দিচ্ছেন না। এ বিষয়ে ২২ সেপ্টেম্বর বিচার চাইতে এক আত্মীয়কে নিয়ে ওই তরুণী চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে যান। তাকে সেখানে না পেয়ে তারা চেয়ারম্যানের বাড়িতে যান। চেয়ারম্যান তাকে পাওনা টাকা ফেরত পেতে আদালতে মামলা করার পরামর্শ দেন।

পরে তারা চেয়ারম্যানের বাড়ি থেকে বের হয়ে বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেন। কিন্তু আলমগীর ও সবুজ সিকদার তাদের পথরোধ করেন। তারা তাদের মারধর করে ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে যান। সেখানে তাদের দুই জনকে দুই রুমে আটকে রাখেন। দুপুরে ইউপি চেয়ারম্যান শাহাবুদ্দিন মাদবর ওই তরুণীর রুমে ঢুকে তাকে মারধর করেন এবং পুলিশে দেওয়ার হুমকি দিয়ে তাকে ধর্ষণ করেন। পরে তাকে গলাটিপে হত্যার চেষ্টা চালান। শাহাবুদ্দিন মাদবর রুম থেকে বের হওয়ার পর আলমগীর ও সবুজ রুমে প্রবেশ করে তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। তারা ওই তরুণীর ওপর যৌন নির্যাতন চালান। বিষয়টি কাউকে জানালে হত্যার হুমকিও দেন আসামিরা।