বুড়িমারীতে পুড়িয়ে হত্যা: জামিন হয়নি চার আসামির

  • নিজস্ব প্রতিবেদক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-01-24 19:20:29 BdST

bdnews24
ফাইল ছবি

লালমনিরহাটের বুড়িমারীতে ‘ধর্ম অবমাননার গুজব’ ছড়িয়ে পিটিয়ে ও পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার চার আসামির জামিন হয়নি।

রোববার তাদের জামিন আবেদন খারিজ করে দিয়েছে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের ভার্চুয়াল হাই কোর্ট বেঞ্চ।

চার আবেদনকারী হলেন- মো. আশরাফুল ইসলাম, মো. বাইজিদ বোস্তামি, মো. আবদুর রহিম ও মো. হেলাল উদ্দিন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সারোয়ার হোসেন বাপ্পী। আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী গাজী মামুন।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সারোয়ার হোসেন বাপ্পী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “মামলাটি তদন্তাধীন। এই চার আবেদনকারীর মধ্যে তিনজনই এফআইআরভুক্ত আসামি। সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ নেই, এমন যুক্তিতে তারা জামিন চেয়েছিল।

যে ঘটনায় মামলা হয়েছে, সেটি সুনির্দিষ্ট অভিযোগের মামলা না। এ ধরনের মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে সাধারণত সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকে। এটি একটি নৃসংশ হত্যাকাণ্ড। সিসি ক্যামেরা ফুটেজ ও চাক্ষুস প্রত্যক্ষদর্শীদের তথ্যের ভিত্তিতে এফআইআর করা হয়েছে। ফলে আসামিরা জামিন পেতে পারেন না। আদালত আমাদের যুক্তি শুনে জামিন আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন।”

গত ২৯ অক্টোবর বুড়িমারীতে ‘ধর্ম অবমাননার গুজব’ ছড়িয়ে আবু ইউনুছ মো.সহিদুন্নবী জুয়েল নামের এক ব্যক্তি ও তার সঙ্গী সুলতান জোবায়ের সুমনকে দলবেঁধে পিটুনি দিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে আটকে রাখে স্থানীয়রা।

পরে সন্ধ্যায় ইউপি ভবন ভেঙে জুয়েলকে পিটিয়ে হত্যা করে মরদেহ আগুনে পুড়িয়ে ছাই করে তারা। এ সময় পাথরের আঘাতে পাটগ্রাম থানার ওসি সুমন কুমার মহন্তসহ ১০ পুলিশ সদস্য আহত হন।

পরে পুলিশ জুয়েলের সঙ্গী জোবায়ের সুমনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। চিকিৎসা শেষে তাকে বাড়িতে পাঠানো হয়।

এ হত্যার ঘটনায় পুলিশের করা তিনটি মামলায় ৩৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।