পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

লকডাউনের বিরতিতে ঢাকা থেকে গ্রামে গেছে কোটির বেশি মোবাইল সিম

  • জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-07-23 20:58:36 BdST

bdnews24
কোরবানির ঈদ উপলক্ষে সোমবার রাজধানীর সদরঘাটে ঝুঁকি নিয়ে লঞ্চে উঠতে দেখা যায় মানুষকে। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

কোরবানির ঈদের সময় লকডাউনের বিরতিতে ৮ দিনে যারা ফেরি কিংবা অন্য কোনো বাহনে গাদাগাদি করে ঢাকা ছেড়েছিলেন, তাদের হাতে ছিল বিভিন্ন মোবাইল ফোন অপারেটরের এক কোটির বেশি সিম।

গত ১৫ থেকে ২২ জুলাইয়ের মধ্যে সংক্রমণের চোখ রাঙানি উপেক্ষা করে গ্রামমুখী এই ঢলে কত মানুষ ঢাকা ছেড়ছেন, তার একটি ধারণা পাওয়া যায় ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের দেওয়া এই পরিসংখ্যান থেকে।

শুক্রবার বিকেলে এক ফেইসবুক পোস্টে তিনি লিখেছেন, “একটু আগে ঢাকা থেকে যাওয়া ও আসা সিমের হিসাব পেলাম। অবিশ্বাস্য নয় যে ২২ জুলাই অবধি ১ কোটি ৪ লাখ ৯৪ হাজার ৬৮৩টি সিম ঢাকার বাইরে গেছে। অন্যদিকে ঈদের পরদিন ঢাকা ফিরেছে মাত্র ৮ লাখ ২০ হাজার ৫১৬টি সিম।

ঈদের বিরতি শেষে ‘কঠোরতম লকডাউনে’ দেশ  

ঈদ কাটিয়ে দুর্ভাবনা আবার লকডাউন নিয়ে  

“আজকে থেকে শুরু হওয়া লকডাউন ও তার পরে কি হবে সেটি দেখার বিষয়। করোনায় এর কি প্রভাব পড়বে সেটাও দেখার বিষয়।“

এর আগে গত রোজার ঈদের আগে লকডাউনের বিধিনিষেধের মধ্যেই ১২ দিনে এক কোটি ছয় লাখ ৪৫ হাজার ৬৯৭টি সিম নিয়ে মানুষ ঢাকা ছেড়েছিল বলে তথ্য দিয়েছিলেন মোস্তাফা জব্বার।

 

ঢাকার জনসংখ্যা এখন দুই কোটির কাছাকাছি। তবে কত সিম ঢাকার বাইরে গেল, সেই সংখ্যাকে ব্যক্তির সংখ্যা হিসেবে ধরা ঠিক হবে না। একজন ব্যবহারকারী যেমন একাধিক সিম ব্যবহার করতে পারেন, তেমনি একটি সংযোগের সাথে পুরো পরিবার ৪ থেকে ৫ জনও যেতে পারেন।

টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির তথ্য অনুযায়ী গত মে মাস পর্যন্ত দেশে ৪ অপারেটরের সক্রিয় সিমের সংখ্যা ছিল ১৭ কোটি ৫২ লাখের বেশি।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা হু হু করে বাড়তে থাকায় বিশেষজ্ঞদের সুপারিশে গত ১ জুলাই থেকে দুই সপ্তাহ লকডাউনে ছিল দেশ। তখনও বহু মানুষ বিধিনিষেধ না মেনে ফেরিতে গাদাগাদি করে, কিংবা পণ্যের গাড়িতে লুকিয়ে ঢাকা ছাড়ে।

লকডাউন শুক্রবার থেকেই, এবার কঠোরতম: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী  

ঈদের পরদিনই শিমুলিয়ায় ঢাকামুখী স্রোত  

লকডাউন তুলে নেওয়ায় ‘ঝুঁকি বাড়ল’  

বিধিনিষেধ মানাতে ওই ১৪ দিনে ঢাকায় ৯ হাজারের বেশি মানুষকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ, কিন্তু সংক্রমণ পরিস্থিতির দৃশ্যমান কোনো পরিবর্তন আসেনি, বরং নিত্যনতুন রেকর্ড হয়েছে শনাক্ত ও মৃত্যুর সংখ্যায়।

তার মধ্যেই বাংলাদেশের মানুষ ঈদ করবে বলে লকডাউনে নয় দিনের বিরতি দেয় সরকার। সেই ছুটি শেষে শুক্রবার আবার বিধিনিষেধ জারি হয়েছে সারা দেশে, যা ৫ অগাস্ট পর্যন্ত চলার কথা।

ঈদের পর বিধি-নিষেধ আরোপ পিছিয়ে যেতে পারে বলে গুঞ্জন থাকলেও বৃহস্পতিবার তা নাকচ করে দিয়ে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছিলেন, সরকার এবার ‘কঠোরতম অবস্থানে’ থাকবে।

ঈদ শেষে যারা ঢাকায় ফিরবেন, তাদের ক্ষেত্রে কোনো ছাড় দেওয়া হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেছিলেন, “যারা গেছে তারা থেকে আসুক ৫ অগাস্ট পর্যন্ত, কারণ সবকিছুই তো বন্ধ।”