পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

ব্যাংকে নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস: গ্রেপ্তার আরও ৩

  • জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-11-19 01:32:14 BdST

bdnews24

ব্যাংকে নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনার সঙ্গে জড়িত অভিযোগে আরও তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ।

বুধবার গ্রেপ্তার হওয়া তিনজনকে বৃহস্পতিবার আদালতে পাঠানোর পর তারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে বলে জানান ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার ওয়াহিদুল ইসলাম।

গ্রেপ্তার তিনজন হলেন- আহছানউল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের টেকনিশিয়ান ল্যাব সহকারী পারভেজ মিয়া, অফিস সহকারী দেলোয়ার হোসেন ও রবিউল আওয়াল।

প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় এনিয়ে মোট ১২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে জানিয়ে ওয়াহিদুল বলেন, সর্বশেষ তিনজনসহ মোটি পাঁচজন আহছানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট।

প্রশ্নপত্র প্রণয়নসহ পরীক্ষা আয়োজনের দায়িত্বপ্রাপ্ত আহছানউল্লাহ ইউনিভার্সিটির আইসিটি বিভাগ থেকে প্রশ্ন ফাঁস হয় বলে পুলিশের দাবি।

এর আগে গত ১০ নভেম্বর এক সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের প্রধান হাফিজ আক্তার জানান, বাংলাদেশ ব্যাংকের অধীনে নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ব্যাংকারসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বেসরকারি আহছানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম আসার কথা প্রকাশ পায়।

ওয়াহিদুল জানান, আগে গ্রেপ্তার পাঁচজনের মধ্যে চারজন ব্যাংকার ও একজন আহছানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি বিভাগের টেকনিশিয়ান। তার নাম মোক্তারুজ্জামান রয়েল (২৬)।

“এই রয়েল প্রশ্ন ও উত্তরফাঁসের মূল হোতা,” বলেন এই গোয়েন্দা কর্মকর্তা।

গ্রেপ্তার অন্যরা হলেন- রূপালী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার জানে আলম মিলন (৩০), পূবালী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান মিলন (৩৮) ও রাইসুল ইসলাম স্বপন (৩৬) এবং জনতা ব্যাংকের গুলশান শাখার অফিসার শামসুল হক শ্যামল (৩৪)।

সংবাদ সম্মেলনে হাফিজ বলেছিলেন, এই চক্রটি ফাঁস হওয়া প্রশ্ন পরীক্ষার্থীদের কাছে ৫-১৫ লাখ টাকায় বিক্রি করেন। প্রশ্নপত্র ও উত্তরপত্র ফাঁসের মাধ্যমে তারা হাতিয়ে নেন ৬০ কোটি টাকা।