ENG
১৯ অক্টোবর ২০১৭, ৪ কার্তিক ১৪২৪

ঢাকায় থাই পণ্যের মেলা শুরু বুধবার

  • নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2017-03-20 19:39:23 BdST

bdnews24

বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ডের মধ্যে ব্যবসায়িক সম্পর্ক জোরদারের পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের জন্য সুযোগ সুবিধা বাড়ানোর লক্ষ্য নিয়ে বুধবার থেকে ঢাকায় শুরু হতে যাচ্ছে চার দিনব্যাপী থাই পণ্য ও সেবার প্রদর্শনী ‘থাইল্যান্ড উইক ২০১৭’।

রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে এ মেলার উদ্বোধন হবে; থাইল্যান্ডের ৫০টি কোম্পানির অংশগ্রহণে চলবে আগামী ২৫ মার্চ পর্যন্ত।

সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআাইপি লাউঞ্জে প্রদর্শনীর বিস্তারিত তুলে ধরেন ঢাকার থাই ট্রেড সেন্টারের মিনিস্টার কাউন্সিলর (কমার্শিয়াল) সুয়েবাসাক ডাঙবুনরুয়েং ও বাংলাদেশ থাই চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি সাজ্জাতুজ জুম্মা।

সুয়েবাসাক ডাঙবুনরুয়েং বলেন, “থাই পণ্য উৎপাদক ও রপ্তানিকারকদের অংশগ্রহণে এ মেলা বাংলাদেশের ব্যবসায়ী, উদ্যোক্তা ও জনগণকে ‘আসল’ থাই সেবা ও পণ্যের সাথে পরিচয় করিয়ে দেবে।”

এ মেলায় চিকিৎসা সেবা, কসমেটিকস, গার্মেন্টস ও ফ্যাশন সামগ্রী, ইলেক্ট্রনিকস পণ্য, স্পা, জুয়েলারি, কনফেকশনারি, খাবার ও পানীয়, গৃহস্থালিসহ বিভিন্ন পণ্য প্রদর্শিত হবে বলেও জানান তিনি।

বাংলাদেশ থাই চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের প্রেসিডেন্ট সাজ্জাতুজ জুম্মা বলেন, “বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ডের মধ্যে ‘ট্রেড গ্যাপ’ বেশ বড়; যেখানে প্রতিবছর থাইল্যান্ড এ দেশে সাতশ মিলিয়ন ডলারের বেশি রপ্তানি করে, সেখানে বাংলাদেশ করে ৭০ থেকে ৮০ মিলিয়ন ডলার।”

এ প্রদর্শনী দুই দেশের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্পর্ক জোরদার করে বিদ্যমান বাণিজ্য ঘাটতি দূর করতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

সাজ্জাতুজ জুম্মা বলেন, “শুল্ক ও কোটা-মুক্ত পণ্য রপ্তানি নিয়ে আমরা থাইল্যান্ড সরকারের সাথে আলাপ-আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি। এ মেলার সফল বাস্তবায়ন হলে, আমরা বেশ কিছু পণ্য শুল্কমুক্ত রপ্তানির সুবিধা পাব বলে আশা করছি।”

প্রদর্শনীতে বাণিজ্য ঘাটতি কমানোর উদ্দেশে নতুন উদ্যোক্তাদের সহযোগিতা ও দুইদেশের ব্যবসায়ীদের মধ্যে জয়েন্ট ভেঞ্চারের সুযোগ থাকবে বলে জানান সুয়েবাসাক ডাঙবুনরুয়েং।

দুইভাগে বিভক্ত এ প্রদর্শনী ২২ ও ২৩ মার্চ ব্যবসায়ীদের জন্য এবং ২৪ ও ২৫ মার্চ সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। মেলা চলবে প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত।

যৌথভাবে এ মেলা আয়োজন করছে রয়্যাল থাই সরকারের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ডিপার্টমেন্ট অব ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড প্রমোশন (ডিআইটিপি)ও রয়্যাল থাই দূতাবাস।