২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬

বদলাচ্ছে না কোরবানির পশুর চামড়ার দাম

  • জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-08-06 17:35:59 BdST

bdnews24
(ফাইল ছবি)

গতবছর কোরবানির পশুর কাঁচা চামড়ার যে দাম সরকার ঠিক করে দিয়েছিল, এবারও সেটাই রাখা হয়েছে।

অর্থাৎ, গত বছরের মত এবারও ঢাকায় প্রতি বর্গফুট গরুর কাঁচা চামড়া ৪৫ থেকে ৫০ টাকা এবং ঢাকার বাইরে ৩৫ থেকে ৪০ টাকায় কিনবেন ব্যবসায়ীরা।

আর খাসির কাঁচা চামড়া সারাদেশে ১৮-২০ এবং বকরির চামড়া ১৩-১৫ টাকা দরে কেনাবেচা হবে।

মঙ্গলবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে কোরবানির পশুর কাঁচা চামড়ার মূল্য নির্ধারণ, সংগ্রহ, প্রক্রিয়াজাতকরণ নিয়ে চামড়া ব্যবসায়ীদের সাথে সভা শেষে সাংবাদিকদের এ সিদ্ধান্ত জানান বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। 

আগামী ১২ অগাস্ট সারাদেশে ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ উদযাপিত হবে।

২০১৭ সালে কোরবানির ঈদে ট্যানারি ব্যবসায়ীরা ঢাকায় প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া ৫০ থেকে ৫৫ টাকা এবং ঢাকার বাইরে ৪০ থেকে ৪৫ টাকায় সংগ্রহ করেন। এছাড়া সারা দেশে খাসির চামড়া ২০-২২ টাকা এবং বকরির চামড়া ১৫-১৭ টাকায় সংগ্রহ করা হয়।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, “কোরবানির চামড়া বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দান করা হয়, মাদরাসা বা এতিমখানায় দেওয়া হয়। তাই এ বিষয়ে একটু বিবেচনা করতে হবে। বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে গতবার যে দরে চামড়া বিক্রি হয়েছে এবারও একই দরে বিক্রি হবে।”

বাণিজ্য সচিব মফিজুল ইসলাম বলেন, সবকিছু বিবেচনায় নিয়ে সংশ্লিষ্ট সকলের সঙ্গে আলোচনা করে গতবার যে দামে চামড়া বিক্রি হয়েছে, এবারও একই দামে চামড়া বিক্রি করা হবে।

“কাঁচা চামড়া রপ্তানি বাড়াতে আগামী কয়েক দিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট সকলকে নিয়ে বৈঠক করা হবে। এছাড়া বাণিজ্য মন্ত্রণালয় চামড়ার বাজার বাড়ানোর জন্য কাজ করে যাচ্ছে।”

বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিটিএ) সভাপতি শাহীন আহমেদ বলেন, “আন্তর্জাতিক বাজারে চামড়ার চাহিদা কমার সঙ্গে সঙ্গে এ শিল্পে ধস নেমেছে। আমাদের দেশেও এর প্রভাব পড়েছে। কারণ আমাদের দ্রুত কারখানা স্থানান্তর করে এখনও গুছিয়ে উঠতে পারিনি। চামড়া সঠিকভাবে সংরক্ষণ না করায় প্রতিবছর ৩০ শতাংশ চামড়া নষ্ট হয়। তবে এবছর আমাদের পর্যাপ্ত লবণ রয়েছে, ফলে চামড়া সংরক্ষণে সমস্যা হবে না।”

বাংলাদেশ হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন বলেন, ট্যানারি মালিকরা সাড়ে ৩০০ কোটি টাকার বেশি বকেয়া রেখেছেন। অন্যান্য ঈদের সময় ১০ থেকে ২০ শতাংশ নগদ টাকা দিলেও এবার সেখানেও টানাটানি চলছে। ফলে এ খাত দিন দিন নিন্মমুখী হচ্ছে।এজন্য একটি সুনির্দিষ্ট নীতিমালাসহ ট্যানারি মালিকদের জমি দ্রুত রেজিস্ট্রি করে দিতে হবে।”

লেদার গুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার এক্সপোর্টার অ্যাসোসিয়েশনের (বিএফএলএলএফইএ) সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ মাহিন এবার অস্বাভাবিক গরমে ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ চামড়া নষ্ট হওয়ার শঙ্কা প্রকাশ করেন।

গত বছর ২০ থেকে ২৫ শতাংশ চামড়া নষ্ট হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এ বিষয়ে জরুরি ভিত্তিতে পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন। এছাড়া গত বছরের ৬০ শতাংশ চামড়া এখনও অবিক্রিত রয়েছে। এ কারণে এবার দাম কমানোর বিকল্প নেই।

সভায় কাঁচা চামড়া রপ্তানির বিষয়ে আলোচনা উঠলে আগামী বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বৈঠক করা হবে বলে জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।