পর্যটন খাত চাঙ্গা হওয়ার আশায় প্রতিমন্ত্রী

  • নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-07-16 22:13:38 BdST

bdnews24
ফাইল ছবি

কোভিড-১৯ মহামারী কেটে গেলে মানুষ পর্যটন আকর্ষণ ও বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে ভিড় জমাবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী।

বৃহস্পতিবার বগুড়া জেলার সঙ্গে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড আয়োজিত এক অনলাইন কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই কথা বলেন বলে মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।  

মাহবুব আলী বলেন, “কোভিড-১৯ এর কারণে সারা পৃথিবীর সাথে সাথে বাংলাদেশের পর্যটনেও বর্তমানে একটি অচলাবস্থা বিরাজ করছে। তবে কোভিড-১৯ পরবর্তী সময়ে সারা দেশের মানুষ পর্যটন আকর্ষণ সমূহে ও বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে ভিড় জমাবেন। পর্যটকদের সেই চাহিদা পূরণ করার জন্য আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে।

“ওই সময়ে আমাদের পর্যটনের অন্যতম প্রধান শক্তি হবে দেশের অভ্যন্তরীণ পর্যটকরা। দেশের ও বিদেশের পর্যটকদের কাছে দেশকে এবং দেশের পর্যটন পণ্যসম্ভারকে সঠিকভাবে তুলে ধরার জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, সরকারি কর্মচারী, সাংবাদিক ও সব পর্যটন অংশীদারকে আন্তরিকভাবে কাজ করতে হবে।”

প্রতিমন্ত্রী বলেন, “আমরা যদি পর্যটকদের উৎসাহিত ও অনুপ্রাণিত করতে পারি তবে পর্যটন খাতে আবারও প্রাণচাঞ্চল্য ফেরত আসবে।”

তিনি বলেন, “যেসব ঐতিহাসিক ও প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা রয়েছে তা কোনোভাবেই নষ্ট করা যাবে না। পর্যটন শিল্পে ঐতিহাসিক ও প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান সমূহের অন্তর্নিহিত গুরুত্ব অনেক তাৎপর্যপূর্ণ। আমাদেরকে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস, ঐতিহাসিক ও প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনাসমূহ, ঐতিহ্যগত জীবনাচরণ এবং লোকসংস্কৃতিকে ব্র্যান্ডিংয়ের মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ ও বিদেশি পর্যটকদের কাছে যথাযথভাবে তুলে ধরতে হবে।”

কোভিড-১৯ পরবর্তী সময়ে মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে পর্যটন বিরাট ভূমিকা রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন মাহবুব আলী।

বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের পরিচালক আবু তাহের মোহাম্মদ জাবেরের সঞ্চালনায় ও বগুড়ার জেলা প্রশাসক মো. জিয়াউল হকের সভাপতিত্বে কর্মশালায় ট্যুরিজম বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জাবেদ আহমেদসহ বিভিন্ন পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তা ও পর্যটনখাতের অংশীজনরা অংশ নেন।