পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

মহামারীর বছরেও এসএমসির আয় বেড়েছে ১৬%

  • নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2022-05-20 00:43:30 BdST

bdnews24

করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে ২০২০-২১ অর্থবছরে আগের বছরের তুলনায় ১৬ শতাংশ আয় বাড়ার খবর দিয়েছে এসএমসি এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে কোম্পানির ২০২০-২১ অর্থবছরের বার্ষিক বিক্রয় সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।

২০২০ সালের মার্চে বাংলাদেশে প্রথম কোভিড রোগী শনাক্ত হয়। এরপর লকডাউনের ধাক্কায় অধিকাংশ ব্যবসা-বাণিজ্য ক্ষতির মুখে পড়ে। অনেক কোম্পানিকে প্রণোদনাও দিতে হয়েছে সরকারকে।

তবে ওষুধসহ গুটিকয় খাত মহামারীর মধ্যেও লাভের মুখ দেখেছে। আর এসএমসির আয় বাড়ার ক্ষেত্রে বিক্রয় কর্মীদের কৃতিত্ব দেখছেন কোম্পানির অতিরিক্ত মহাব্যবস্থাপক চন্দ্র নাথ মণ্ডল।

গত অর্থবছরের ব্যবসায়িক চিত্র তুলে ধরে সম্মেলনে তিনি বলেন, “করোনাভাইরাসের কারণে অনেক কোম্পানি লোকসানে পড়েছে, কিন্তু আমাদের আয় বেড়েছে ১৬ শতাংশ। এটা সম্ভব হয়েছে আমাদের যোগ্য সেলস বাহিনীর কারণে।”

এসএমসির ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর (অপারেশন্স) ফিরোজ উল আলম জানান, গত অর্থ বছরে তাদের ৫২ শতাংশ পণ্য নিজেদের কারখানায় উৎপাদিত হয়েছে। ৪২ শতাংশ পণ্য বাইরে থেকে এসেছে।

“করোনায় একদিনও আমাদের কারখানা বন্ধ থাকেনি। কর্মীরা লকডাউনের মধ্যেও কোম্পানির জন্য সর্বোচ্চ করে গেছেন।”

কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও আলী রেজা খান বলেন, “করোনায় অনেক কোম্পানি লস করেছে, অনেক কোম্পানি বন্ধ হয়ে গেছে। কিন্তু আমরা প্রফিট করেছি।

“অনেকে আমাকে জিজ্ঞেস করেন, আপনাদের হাতে কি ম্যাজিক আছে? আমি তাদের বলব- একতা, মনোবল, দৃঢ় প্রত্যয় আমাদের সাফল্যের চাবিকাঠি। আর অবশ্যই আমাদের সৈনিক হচ্ছে সেলস টিম। আমরা যে চ্যালেঞ্জ তাদের সামনে তুলে ধরি, তারা সেটা করতে সক্ষম হয়।”

এসএমসি এন্টারপ্রাইজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল হক চলতি অর্থবছরেও ২৫ শতাংশ বেশি মুনাফার আশা প্রকাশ করেন।

বিক্রয় লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে অবদান রাখায় এবারের সম্মেলনে এসএমসির ১২টি আঞ্চলিক অফিসের বিক্রয় কর্মীদের স্বীকৃতি দেওয়া হয়।

৪৮ বছর ধরে পরিবার পরিকল্পনা, মা ও শিশুর স্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করে আসছে এসএমসি। ওরস্যালাইনের পাশাপাশি বাজারে স্যানিটারি ন্যাপকিন, ডায়াপার, হ্যান্ডওয়াশ, মধু, কোমল পানীয়, পাউডার ও ইলেক্টোলাইট ড্রিংক বিক্রি করছে এ কোম্পানি।

এসএমসি কর্তৃপক্ষের দাবি, দেশে ব্যবহৃত জন্মনিয়ন্ত্রণ ওষুধ সামগ্রীর ৪৪ শতাংশ তাদের কোম্পানির সরবরাহ করা।

অন্যদের মধ্যে এসএমসির পরিচালক ওয়ালিউল ইসলাম, সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মাদ আলি ও সিদ্দিকুর রহমান এবং এসএমসি এন্টারপ্রাইজের মহাব্যবস্থাপক (মার্কেটিং) খন্দকার শামিম রহমান অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।