পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

কোভিড: এক দিনে শনাক্ত বেড়েছে, সঙ্গে মৃত্যু

  • জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-09-27 18:48:58 BdST

bdnews24
প্রায় ১৮ মাস পর খুলেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার। রোববার সকালে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গ্রন্থাগারে ঢুকতে পারেন শিক্ষার্থীরা, এই সময় তাদে শরীরের তাপমাত্রা মাপা হয়। ছবি: আসিফ মাহমুদ অভি

দুই দিনের ব্যবধানে আবার হাজারের বেশি কোভিড রোগী শনাক্ত হয়েছে দেশে, এক দিনে মৃত্যুর সংখ্যাও কিছুটা বেড়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, শুক্রবার সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ১ হাজার ২১২ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে, মৃত্যু হয়েছে ২৫ জনের।

মে মাসের পর শনিবার প্রথমবারের মত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা হাজারের নিচে নেমে এসেছিল। আর রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আগের ২৪ ঘণ্টায় ৯৮০ জন নতুন রোগী শনাক্তের খবর দিয়েছিল। এক দিনে মৃত্যু হয়েছিল ২১ জনের, যা ২৬ মের পর সবচেয়ে কম। সে হিসেবে গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিডে মৃত্যু ও নতুন রোগীর সংখ্যা- দুটোই বেড়েছে।

নতুন রোগীদের নিয়ে দেশে মোট শনাক্ত কোভিড রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৫২ হাজার ৫৬৩ জনে। আর তাদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৭ হাজার ৪৩৯ জনের।

গত এক দিনে শুধু ঢাকা বিভাগেই ৯২০ জনের মধ্যে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়েছে, যা দিনের মোট শনাক্তের অর্ধেকের বেশি। যে ২৫ জন গত এক দিনে মারা গেছেন, তাদের ৯ জনই ছিলেন ঢাকা বিভাগের।

সরকারি হিসাবে গত এক দিনে দেশে সেরে উঠেছেন ১ হাজার ২০২ জন। তাদের নিয়ে এ পর্যন্ত ১৫ লাখ ১২ হাজার ৬৮১ জন সুস্থ হয়ে উঠলেন।

গত এক দিনে সারা দেশে পৌনে ২৮ হাজার নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ৪ দশমিক ৩৬ শতাংশ, যা আগের দিন ৪ দশমিক ৪১ শতাংশ ছিল।

দেশে সাড়ে ছয় মাস পর দৈনিক নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্ত কোভিড রোগীর হার গত ২১ সেপ্টেম্বর ৫ শতাংশের নিচে নেমে আসে। এরপর তা পাঁচের নিচেই থাকছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর দেশের কোভিড পরিস্থিতির সাপ্তাহিক যে পরিসংখ্যান দিয়েছে, তাতে গত এক সপ্তাহে (২০ থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর) দেশে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা আগের সপ্তাহের তুলনায় (১৩ থেকে ১৯ সেপ্টেম্বর) ২৯ দশমিক ৪ শতাংশ কমেছে; মৃত্যু কমেছে ৩৫ দশমিক ৭ শতাংশ। 

গত সপ্তাহে মোট ৮ হাজার ৬৬৮ জনের মধ্যে ভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছিল, মৃত্যু হয়েছিল ১৮৯ জনের। তার আগের সপ্তাহে ১২ হাজার ২৭০ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছিল, মারা গিয়েছিলেন ২৯৪ জন।  

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, গত এক দিনে সারা দেশে মোট ২৭হাজার ৭৮৭টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এ পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে ৯৬ লাখ ৪৬ হাজার ৯৩৭টি নমুনা।

এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ১৬ দশমিক ০৯ শতাংশ; মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৭৭ শতাংশ।

 

গত একদিনে যারা মারা গেছেন তাদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ৯ জন বাদে চট্টগ্রাম বিভাগের ৮ জন, খুলনা বিভাগের ৩ জন, সিলেট বিভাগের ৩ জন এবং রংপুরে বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন ২ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে ১৪ জনের বয়স ছিল ৬০ বছরের বেশি। ৬ জনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে, ৩ জনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে, ১ জনের বয়স ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে এবং ১ জনের বয়স ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ছিল।

তাদের মধ্যে ১৩ জন ছিলেন পুরুষ, ১২ জন নারী। ২০ জন সরকারি হাসপাতালে এবং ৫ জন বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল গত বছরের ৮ মার্চ। গত ৩১ অগাস্ট তা ১৫ লাখ পেরিয়ে যায়। এর আগে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের ব্যাপক বিস্তারের মধ্যে ২৮ জুলাই দেশে রেকর্ড ১৬ হাজার ২৩০ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়।

প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর গত বছরের ১৮ মার্চ দেশে প্রথম মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। ২৯ অগাস্ট তা ২৬ হাজার ছাড়িয়ে যায়। তার আগে ৫ অগাস্ট ও ১০ অগাস্ট ২৬৪ জন করে মৃত্যুর খবর আসে, যা মহামারীর মধ্যে এক দিনের সর্বোচ্চ সংখ্যা।

বিশ্বে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ইতোমধ্যে ৪৭ লাখ ৪৮ হাজার ছাড়িয়েছে। আর শনাক্ত হয়েছে ২৩ কোটি ১৮ লাখের বেশি রোগী।

বাংলাদেশে কোভিড-১৯: স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য নিয়ে পুরনো সব খবর