পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

কোভিড: দিনে শনাক্তের হার আরও বেড়েছে

  • নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2022-01-08 17:14:05 BdST

bdnews24
ঢাকার সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে কোভিড-১৯ পরীক্ষার জন্য সংগৃহীত নমুনা। ফাইল ছবি: আসিফ মাহমুদ অভি

দেশে ১৫ সপ্তাহ পর নমুনা বিবেচনায় কোভিড শনাক্তের হার ৫ শতাংশে উন্নীত হওয়ার পরদিনই তা পৌনে ৬ শতাংশ পেরিয়ে গেল।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর শনিবার সকাল পর্যন্ত আগের ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১৯ হাজার ২৭৫ বেশি নমুনা পরীক্ষা করে ১ হাজার ১১৬ জনের কোভিড রোগী শনাক্তের কথা জানায়। তাতে নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার দাঁড়াচ্ছে ৫ দশমিক ৭৯ শতাংশ।

শুক্রবার ২০ হাজারের বেশি নমুনা পরীক্ষা করে ১ হাজার ১৪৬ জনের কোভিড রোগী শনাক্ত হয়েছিল। তাতে শনাক্তের হার ছিল ৫ দশমিক ৬৭ শতাংশ।

শনিবার শনাক্ত ১ হাজার ১১৬ রোগীকে নিয়ে দেশে কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হল ১৫ লাখ ৯২ হাজার ২০৯ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে একজনের। তা নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২৮ হাজার ৯৯।

সরকারি হিসাবে গত এক দিনে দেশে সেরে উঠেছেন ১৫৪ জন। তাদের নিয়ে এ পর্যন্ত ১৫ লাখ ৫০ হাজার ৬৮৮ জন সুস্থ হয়ে উঠলেন।

 

দেশে করোনাভাইরাসের ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের দাপটের সময় গত বছর জুলাই-অগাস্ট সময়ে দৈনিক শনাক্তের হার ৩২ শতাংশেও উঠেছিল। এরপর তা নামতে নামতে জুলাই মাসে ২ শতাংশের নিচে চলে আসে।

ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত পরিস্থিতি অনেকটা নিয়ন্ত্রণেই ছিল।

কিন্তু এরমধ্যেই বিশ্বে শুরু হয় ওমিক্রনের ত্রাস। ৩ জানুয়ারি দৈনিক শনাক্তের হার ৩ শতাংশ এবং ৫ জানুয়ারি তা ৪ শতাংশ ছাড়ায়। দুই দিনের মাথায় শুক্রবার তা পাঁচ শতাংশের উপরে উঠে যায়।

গত এক দিনে শনাক্ত রোগীদের মধ্যে ৯৪৩ জনই ঢাকা বিভাগের বাসিন্দা, যা মোট আক্রান্তের ৮৪ শতাংশের বেশি।

দেশের ৩৯টি জেলায় একদিনে কারও করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়নি। আগের দিন এই সংখ্যা ছিল ২৬।

যে ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে, তার বয়স ছিল ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে, কুমিল্লার একটি সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, গত এক দিনে সারা দেশে মোট ১৯ হাজার ২৭৫টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এ পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে ১ কোটি ১৬ লাখ ৪৯ হাজার ৮১৫টি নমুনা।

এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা অনুযায়ী শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৬৭ শতাংশ। মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৭৬ শতাংশ।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল ২০২০ সালের ৮ মার্চ। গত বছর ৩১ অগাস্ট তা ১৫ লাখ পেরিয়ে যায়। এর আগে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের ব্যাপক বিস্তারের মধ্যে ২৮ জুলাই দেশে রেকর্ড ১৬ হাজার ২৩০ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়।

প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর ২০২০ সালের ১৮ মার্চ দেশে প্রথম মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। গত বছর ৫ ডিসেম্বর কোভিডে মোট মৃত্যু ২৮ হাজার ছাড়িয়ে যায়। তার আগে ৫ অগাস্ট ও ১০ অগাস্ট ২৬৪ জন করে মৃত্যুর খবর আসে, যা মহামারীর মধ্যে এক দিনের সর্বোচ্চ সংখ্যা।

বিশ্বে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ইতোমধ্যে ৫৪ লাখ ৭৮ হাজার ছাড়িয়েছে। আর শনাক্ত হয়েছে ৩০ কোটি ২৯ লাখের বেশি রোগী।

বাংলাদেশে কোভিড-১৯: স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য নিয়ে পুরনো সব খবর