পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

কত ডোজ নিলে ‘ভ্যাক্সিনেটেড’ বলা যাবে?

  • নিউজ ডেস্ক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2022-01-23 00:47:13 BdST

bdnews24
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল অনুসরণ করে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের বুস্টার ডোজ হিসেবে ফাইজারের টিকা দেওয়া হচ্ছে। ছবি: আসিফ মাহমুদ অভি

দুই না কি তিন- কত ডোজ টিকা নিলে কোভিড থেকে সুরক্ষিত বলে ধরা হবে, ওমিক্রন তা নিয়ে ধন্দ তৈরি করেছে।

মহামারীর শুরুর বছর গড়িয়ে টিকা এলে বলা হচ্ছিল, দুই ডোজ নিলেই করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষা মিলবে। জনসন অ্যান্ড জনসন আবার এক ডোজের টিকা তৈরি করে তাতেই সুরক্ষা মিলবে বলে দাবি করেছিল।

এই সময়ে ভ্রমণসহ নানা ক্ষেত্রে কোভিড সনদ নিয়ে চলতে হচ্ছে, তাতে দুই ডোজ টিকা নিলে সম্পূর্ণ টিকা নেওয়া হয়েছে বা ‘ভ্যাক্সিনেটেড’ বলে ধরা হচ্ছে।

কিন্তু করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন আসার পর তা গেছে ওলটপালট হয়ে। এখন বুস্টার ডোজ হিসেবে তৃতীয় ডোজ দেওয়া হচ্ছে। সুরক্ষার জন্য ইসরায়েলে চতুর্থ ডোজও দিচ্ছে।

ওমিক্রন থেকে বুস্টার ডোজ ‘সর্বোচ্চ সুরক্ষা’ দেবে বলে যুক্তরাষ্ট্রের ‘সেন্টার ফর ডিজিস কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন’-সিডিসি বলার পর উঠেছে নতুন প্রশ্ন।

যারা টিকার দুটি ডোজ নিয়েছেন তাদের এখন ‘সম্পূর্ণভাবে ভ্যাকসিন গ্রহণকারী’ বলা হবে কি না?

সিডিসির ভ্যাকসিন উপদেষ্টা উইলিয়াম শ্যাফনার সিএনএনকে বলেন, “আমি মনে করি, ‘সম্পূর্ণভাবে ভ্যাকসিন নেওয়ার’ বিষয়টিকে আমাদের পুনরায় সংজ্ঞায়িত করা উচিৎ।”

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

গত বছর ডেল্টা সংক্রমণের পর শেষ দিকে আসা ওমিক্রনে সারাবিশ্বেই এখন রোগী বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। গত ২৮ দিনেই আক্রান্ত হয়েছে পৌনে সাত কোটি মানুষ, আর মারা গেছে প্রায় দুই লাখ।

এই পরিস্থিতিতে সিডিসির তিনটি বিশাল গবেষণায় ‘বাস্তব জীবনভিত্তিক উপাত্ত’ বিশ্লেষণ করে ওমিক্রন প্রতিরোধে বুস্টার ডোজের প্রভাব ব্যাখ্যা করা হয়।

সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শুক্রবার প্রকাশিত গবেষণাগুলোর ফলাফলে দেখানো হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রে বর্তমানে কোভিডে আক্রান্তের ৯৯ শতাংশেরও বেশির জন্য দায়ী ওমিক্রন।

গবেষণার জন্য কয়েক মিলিয়ন সংক্রমণ, হাসপাতাল ও জরুরি বিভাগে যাওয়া কয়েক লাখ মানুষের তথ্য এবং প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ১০ হাজার জনের হাসপাতালে ভর্তির তথ্য বিশ্লেষণ করা হয়েছে।

১০টি রাজ্যের হাসপাতালে ভর্তি ৮৮ হাজার জনের তথ্য বিশ্লেষণ করে সিডিসির একটি সমীক্ষা বলছে, গত ডিসেম্বর ও চলতি জানুয়ারিতে বুস্টার ডোজ গ্রহণকারীদের ৯০ শতাংশকে হাসপাতালে যেতে হয়নি, তবে টিকার দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণকারীদের ক্ষেত্রে হাসপাতালে ভর্তির হার ৫৭ শতাংশ।

সমীক্ষায় বলা হয়েছে, বুস্টার ডোজ গ্রহণকারীদের ৮২ শতাংশকে জরুরি বিভাগ বা জরুরি চিকিৎসা কেন্দ্রে যাওয়া থেকে বিরত রাখে।

জরুরি চিকিৎসা নেওয়া ১০টি রাজ্যের ২ লাখ মানুষের ওপর পর্যবেক্ষণে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

অন্যদিকে টিকার দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণকারীদের ক্ষেত্রে জরুরি চিকিৎসা না নেওয়ার ক্ষেত্রে এটি মাত্র ৩৮ শতাংশ কার্যকর।

গবেষণার সঙ্গে যুক্ত না থাকলেও উইলিয়াম শ্যাফনার বলেন, “এটি টিকার তৃতীয় ডোজ, যা আপনাকে প্রকৃত এবং সর্বোচ্চ সুরক্ষা দিচ্ছে।”

এই সমীক্ষাটি শুক্রবার সিডিসির ‘অসুস্থতা এবং মৃত্যুর সাপ্তাহিক প্রতিবেদনে’ প্রকাশ করা হয়েছে। দ্বিতীয় সমীক্ষাটিও শুক্রবারের এমএমডব্লিউআর-এ প্রকাশ করা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, যারা টিকার তিনটি ডোজ নিয়েছেন, ওমিক্রনে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা তাদের কম।

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

যুক্তরাষ্ট্রের ২৫টি রাজ্যের স্থানীয় স্বাস্থ্যবিভাগের তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করেছেন সিডিসির গবেষকরা।

তারা দেখেছেন, গড়ে এক সপ্তাহে ১ লাখ সংক্রমণের মধ্যে বুস্টার ডোজ গ্রহণকারী ১৪৯ জন সংক্রমিত হয়েছেন। দুই ডোজ টিকা গ্রহণকারীদের ক্ষেত্রে এই সংখ্যা ২৫৫।

মেডিকেল জার্নাল ‘জামা’-তে প্রকাশিত তৃতীয় গবেষণায় দেখা গেছে, ওমিক্রনে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ হওয়া থেকে বিরত রাখে বুস্টার ডোজ।

ওমিক্রনে আক্রান্ত ১৩ হাজার জনের ওপর জরিপে গবেষণাটিতে দেখা গেছে, দুটি ডোজ গ্রহণকারীদের তুলনায় বুস্টার ডোজ গ্রহণকারীদের সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা ৬৬ শতাংশ কম।

তিনটি গবেষণাতেই দেখা গেছে, যারা টিকা নেননি তারা কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার সর্বোচ্চ ঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন।

সিডিসি বলছে, যুক্তরাষ্ট্রে এমআরএনএ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ পাওয়ার দুই সপ্তাহ পরে বা জনসন অ্যান্ড জনসন ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেওয়ার দুই সপ্তাহ পরে একজন ব্যক্তি সম্পূর্ণরূপে টিকাপ্রাপ্ত বলে বিবেচিত হয়।

প্রাথমিক টিকা নেওয়ার পাঁচ মাস পর ১২ বছর বা তার বেশি বয়সীদের বুস্টার ডোজ সুপারিশ করা হয়।

সিডিসি তথ্য অনুসারে, বুস্টার টিকা নেওয়ার যোগ্যদের অর্ধেকেরও কম একটি টিকা পেয়েছেন এবং যুক্তরাষ্ট্রের মোট জনসংখ্যার মাত্র এক-চতুর্থাংশ সম্পূর্ণরূপে টিকা দেওয়া এবং বুস্টার ডোজ দেওয়া হয়েছে।

টিকা পাওয়ার যোগ্য পাঁচ বছর বা তার বেশি বয়সী ২০ শতাংশ মার্কিন নাগরিক টিকার কোনো ডোজই পাননি।