পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

রাজ্জাকের স্পিনে শেখ জামালের নাটকীয় জয়

  • ক্রীড়া প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2017-04-20 19:40:40 BdST

bdnews24

শেষ ৩ ওভারে দরকার ছিল ২৫ রান, প্রাইম দোলেশ্বরের আশা হয়ে টিকে ছিলেন মার্শাল আইয়ুব। তাকে ফিরিয়েই ম্যাচ নিজেদের দিকে ঘুরিয়ে দেন আব্দুর রাজ্জাক। পরে বাকিটুকুও দারুণভাবে সেরেছেন বাঁহাতি এই স্পিনার, তাতে জয়ে ফিরেছে শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব।

শেষ তিন ওভারে ১৯ রান তুলতে পারা দোলেশ্বর হেরেছে ৫ রানে, ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের চলতি আসতে এটাই দলটির প্রথম হার।

বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে বৃহস্পতিবার বৃষ্টির জন্য ম্যাচের দৈর্ঘ্য নেমে আসে ৩৮ ওভারে। টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৭ উইকেটে ২৩৫ রান করে শেখ জামাল। ৭ উইকেটে ২৩০ রানে থামে দোলেশ্বর।

শূন্য রানে ইমতিয়াজ হোসেনকে হারানো দোলেশ্বরকে কক্ষপথে রাখেন পুনিত বিশ্ট। টপ অর্ডারের দুই ব্যাটসম্যান আব্দুল মজিদ, শাহরিয়ার নাফীস ফিরেন থিতু হয়ে।

৬০ বলে ১১টি চারে গড়া পুনিতের ৮৩ রানের আক্রমণাত্মক ইনিংসে ৩ উইকেটে ১৭৪ রানের দৃঢ় ভিতের ওপর ছিল দোলেশ্বর। তার বিদায়ের পর এনামুল হক ও ফরহাদ রেজার দ্রুত বিদায়ে চাপে পড়ে দলটি।

মার্শাল ও শরীফ উল্লাহ দলকে পথেই রেখেছিলেন। শেষ ৩ ওভারে ২৫ রানের লক্ষ্য খুব কঠিনও মনে হচ্ছিল না। কিন্তু ৩৬তম ওভারে রাজ্জাক ৭ রান দিয়ে মার্শালের উইকেট নিয়ে ম্যাচ কঠিন করে তুলেন।

পরের ওভারে শাহাদাত হোসেন মাত্র ৫ রান দিলে ম্যাচ অনেকটাই শেখ জামালের দিকে ঘুরে যায়। রাজ্জাকের শেষ ওভার থেকে প্রয়োজনীয় ১৩ রান নিতে পারেনি শরীফ উল্লাহ-হাবিবুর রহমান। অভিজ্ঞ বাঁহাতি স্পিনারের সেই ওভার থেকে আসে মাত্র ৭ রান।

৮ ওভারে ৩৯ রান দিয়ে ৩ উইকেট নিয়ে রাজ্জাক জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার। জাতীয় দলের বাইরে থাকা এই স্পিনার লিগে তিন ম্যাচে এনিয়ে উইকেট পেলেন ৯টি।

এর আগে দ্বিতীয় উইকেটে ফজলে মাহমুদের সঙ্গে ইমরুল কায়েসের ১২৩ রানের জুটিতে দৃঢ় ভিত পায় শেখ জামাল। ৫৭ বলে ৫৫ রান করতে ৪টি চার ও একটি ছক্কা হাঁকান মাহমুদ। তিন নম্বরে নামা ইমরুলের ৭৪ বলে খেলা ৬৭ রানের ইনিংসটি গড়া ৭টি চার ও একটি ছক্কায়।

২২ ওভারে ১ উইকেটে ১২৭ রানের দৃঢ় ভিতের ওপর দাঁড়ানো শেখ জামাল ভালো শুরুর সুবিধা নিতে পারেনি। উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান নুরুল হাসানের ৪১ বলে খেলা অপরাজিত ৪৭ রানের ইনিংসে শেষ পর্যন্ত লড়াইয়ের পুঁজি গড়ে দলটি।

শাহাদাত-রাজ্জাকদের দারুণ বোলিংয়ে ওই রানই যথেষ্ট ছিল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব: ৩৮ ওভারে ২৩৫/৭ (মাহমুদ ৫৫, মাহবুবুল ২, ইমরুল ৬৭, প্রশান্ত ২০, নুরুল ৪৭*, জিয়া ১৩, সোহাগ ৮, রাজ্জাক ৩, তানবীর ১০; দেলোয়ার ১/২৯, হাবিবুর ২/৪৪, এনামুল ১/৩২, শরীফুল্লাহ ০/১৭, সানি ২/৫২, রেজা ১/৬০) 

প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাব: ৩৮ ওভারে ২৩০/৭ (ইমতিয়াজ ০, মজিদ ২৫, শাহরিয়ার ৩১, পুনিত ৮৩, মার্শাল ৪২, এনামুল ২, রেজা ৮, শরীফুল্লাহ ২৫*, হাবিবুর ৭*; শাহাদাত ২/৪০, জিয়া ০/৩২, সোহাগ ১/৩৯, রাজ্জাক ৩/৩৯, ইলিয়াস ১/৪০, মাহমুদ ০/১৯, তানবীর ০/১৬)

ফল: শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব ৫ রানে জয়ী

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: আব্দুর রাজ্জাক