২৫ মার্চ ২০১৯, ১১ চৈত্র ১৪২৫

নাটকীয় জয়ে পরাজয়ের বৃত্ত ভাঙল শ্রীলঙ্কা

  • স্পোর্টস ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2018-08-09 00:57:48 BdST

bdnews24

জয়ের জন্য শেষ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রয়োজন ছিল ৮ রান। উইকেট ছিল দুটি। ডেভিড মিলার ক্রিজে থাকায় একটু এগিয়ে ছিল অতিথিরাই। তবে দুর্দান্ত বোলিংয়ে শ্রীলঙ্কাকে নাটকীয় এক জয় এনে দিলেন সুরঙ্গা লাকমল।

চতুর্থ ওয়ানডেতে ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে ৩ রানে জিতেছে শ্রীলঙ্কা। দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে টানা ১১ ম্যাচ হারার পর জিতল দলটি।

ক্যান্ডিতে বুধবার বারবার বৃষ্টির বাধায় পড়ে ম্যাচ। কমে ম্যাচের দৈর্ঘ্য। দাসুন শানাকার টর্নেডো ইনিংস আর কুসল পেরেরা ও থিসারা পেরেরার ফিফটিতে শ্রীলঙ্কা ৩৯ ওভারে করে ৩০৬ রান।

দক্ষিণ আফ্রিকা ২১ ওভারে ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে পায় ১৯১ রানের লক্ষ্য। প্রথম তিন ম্যাচ জিতে আগেই সিরিজ নিশ্চিত করা অতিথিরা থমকে যায় ১৮৭ রানে।

পাল্লেকেলে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নিরোশান ডিকভেলা ও উপুল থারাঙ্গার ব্যাটে ভালো শুরু পায় শ্রীলঙ্কা। থিতু হলেও বড় ইনিংস খেলতে পারেননি দুই ওপেনার। দ্রুত ফিরেন কুসল মেন্ডিস।

কুসলের বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ে দ্রুত উইকেট হারানোর চাপ কাটিয়ে উঠে শ্রীলঙ্কা। বাঁহাতি ব্যাটসম্যান ৩২ বলে ৬ চার আর দুই ছক্কায় ফিরেন ৫১ রান করে। ম্যাথিউস থিতু হয়েও ইনিংস বড় করতে পারেননি।

১৯৫ রানে ৬ উইকেট হারানো শ্রীলঙ্কা রানের পাহাড় গড়ে থিসারা ও শানাকার ব্যাটে। দুই জনে ১১.১ ওভারে গড়েন ১০৯ রানের জুটি। ছন্দে থাকা থিসারা পেরেরা ৪৫ বলে খেলেন অপরাজিত ৫১ রানের দায়িত্বশীল ইনিংস।

দুই বছর পর দল ফেরা শানাকা তোলেন ঝড়। মাত্র ৩৪ বলে ৫ ছক্কা আর চারটি চারে করেন ৬৫ রান। বিধ্বংসী এই ইনিংস তাকে এনে দেয় ম্যাচ সেরার পুরস্কার।

অতিথিরা শুরু করেছিল ৩৯ ওভারে ৩০৮ রানের লক্ষ্য নিয়ে। তাদের ইনিংসের ২ ওভার শেষে বৃষ্টি নামলে নতুন লক্ষ্য পায় ২১ ওভারে ১৯১।

চোটের জন্য সিরিজ শেষ হয়ে যাওয়া ফাফ দু প্লেসির জায়গায় নেতৃত্ব পাওয়া কুইন্টন ডি ককের ব্যাটে উড়ন্ত সূচনা পায় দক্ষিণ আফ্রিকা। কিপার ব্যাটসম্যান ফিরেন ১৩ বলে ২৩ রান করে।

অন্য ওপেনার হাশিম আমলা ও মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান জেপি দুমিনিও তোলেন ঝড়। আমলা ২৩ বলে ফিরে ৪০ রান করে। রান আউট হওয়ার আগে দুমিনি ২৩ বলে করেন ৩৮।

উড়ন্ত শুরুর সুবিধা কাজে লাগাতে পারেনি দক্ষিণ আফ্রিকার পরের ব্যাটসম্যানরা। নিয়মিত উইকেট পতনের মধ্যে দলের আশা বাঁচিয়ে রেখেছিলেন মিলার। শেষ ওভারের দ্বিতীয় বলে দারুণ এক স্লোয়ারে তাকে বোল্ড করে দেন লাকমল। সেই ওভারে মাত্র ৪ রান দিয়ে রোমাঞ্চকর উত্তেজনার ম্যাচে দলকে দারুণ এক জয় এনে দেন এই পেসার।

৪৬ রানে ৩ উইকেট নেন লাকমল। থিসারা পেরেরা ২ উইকেট নেন ৩২ রানে।  

পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ৩-১ ব্যবধানে এগিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা। আগামী রোববার কলম্বোয় হবে পঞ্চম ও শেষ ওয়ানডে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা: ৩৯ ওভারে ৩০৬/৭ (ডিকভেলা ৩৪, থারাঙ্গা ৩৬, মেন্ডিস ১৪, কুসল পেরেরা ৫১, ম্যাথিউস ২২, ডি সিলভা ১০, থিসারা পেরেরা ৫১*, শানাকা ৬৫, দনাঞ্জয়া ১*; এনগিডি ২/৬৫, জুনিয়র ডালা ০/৬৪, ফেলুকওয়ায়ো ১/৪৫, দুমিনি ২/৩৫, মুল্ডার ১/৫১, মহারাজ ১/৩৭)

দক্ষিণ আফ্রিকা: (২১ ওভারে লক্ষ্য ১৯১) ২১ ওভারে ১৮৭/৯ (ডি কক ২৩, আমলা ৪০, হেনড্রিকস ২, দুমিনি ৩৮, ক্লাসেন ১৭, মিলার ২১, ফেলুকওয়ায়ো ৯, মুল্ডার ৪, মহারাজ ১৭, জুনিয়র ডালা ৩*, এনগিডি ১*; লাকমল ৩/৪৬, দনাঞ্জয়া ১/৩০, থিসারা পেরেরা ২/৩২, শানাকা ১/২০, কুমারা ০/২৮, ডি সিলভা ১/২৬)

ফল: ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে শ্রীলঙ্কা ৩ রানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: দাসুন শানাকা


ট্যাগ:  দক্ষিণ আফ্রিকা  ম্যাচ রিপোর্ট  ওয়ানডে  শ্রীলঙ্কা