২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬

প্রতিবন্ধী ক্রিকেট: শেষ ম্যাচে অল্পের জন্য হেরে গেল বাংলাদেশ

  • সুলাইমান নিলয়, ইংল্যান্ডের উস্টার থেকে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-08-13 00:56:01 BdST

প্রথম পর্বের চার ম্যাচের তিনটি হারের পরও অদ্ভূত সমীকরণে সেমি-ফাইনালের স্বপ্ন বেঁচেছিল নিভু নিভু করে। তবে ইংল্যান্ডের কাছে শেষ ম্যাচে হারের মধ্য দিয়ে পাঁচ জাতির এই টুর্নামেন্ট থেকে খালি হাতেই ফিরতে হচ্ছে বাংলাদেশেকে।

কিডারমিনস্টারের এই মাঠেই ২০১৮ সালে ইংল্যান্ডকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। এবারও এই মাঠে একটি ম্যাচ ছিল। সোমবারের এই খেলায় জয়ের আশা বেঁচে ছিল। তবে শেষ পর্যন্ত পরাজয় দিয়েই শেষ হয় এবারের ইংল্যান্ড মিশন।

দুপুরে টসে জিতে বাংলাদেশ ফিল্ডিং বেছে নেয়। ইংল্যান্ডের পক্ষে ব্যাট করতে নামেন অ্যাঙ্গাস ব্রাউন ও লিয়াম থমাস। এই জুটি ৪৮ রান করার পর পতন ঘটে থমাসের। 

এরপর নামেন জেমি গুডউইন। ব্যক্তিগত সংগ্রহ ৯-এর সময় ৮ ওভার দুই বলে ক্যাচ আউট হয়ে তিনি ফেরেন। এরপর নামেন ক্যালাম ফ্লিন। ইনি শেষ পর্যন্ত টিকে ছিলেন উইকেটে। ইনি ৩৮ বলে ৪৫ রান করেন। 

১২ ওভার দুই বলের সময় দ্রুপমের বলে ক্যাচ উঠিয়ে দেন ইংল্যান্ডের উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ব্রাউন। ক্যাচ ধরেন তানভিরুল ইসলাম। তবে আউট হওয়ার পূর্বে ব্রাউন ৩৮ বলে ৪৫ রান সংগ্রহ করেন। 

খেলা শেষ হওয়ার আগে ইংল্যান্ডের আরো তিন উইকেটের পতন হয়। সব মিলিয়ে ৫ উইকেট হারিয়ে ইংল্যান্ডের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৪৮ রান। এর মধ্যে অতিরিক্ত থেকে আসে ১৯ রান।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান মো. ইমরান প্রথম বলে বোল্ড হয়ে ফিরে আসেন। এরপর অপর উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান জাভেদ ভুঁইয়ার সাথে জুটি বাঁধতে নামেন মো. মনিরুজ্জামান।

তবে তৃতীয় ওভারের শেষ বলে বোল্ড হয়ে ফিরতে হয় তাকেও। ফেরার আগে ১০ বলে তিনি সংগ্রহ করেন ১৩ রান। এ সময় দলের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৭। 

এরপর নামেন দলের অধিনায়ক দ্রুপম পত্রনবিশ তীর্থ। জাভেদের সঙ্গে তার পার্টনারশিপ থিতু হওয়ার দিকে এগুনোর মাঝে ৮ ওভার দুই বলের সময় ক্যাচ তুলে দেন জাভেদ। ফিরে আসার পূর্বে তিনি ২০ বলে ১২ রান সংগ্রহ করেন।

১১তম ওভারের শেষ বলে ক্যাচ আউট হন তীর্থ। ফিরে আসার পূর্বে তিনি ২৮ বলে ২৯ রান করেন। এরপর নামেন তানভিরুল ইসলাম। ১২ ওভার ১ বলে তিনি ফেরেন বোল্ড হয়ে। এ সময় তার রানের খাতায় ছিল ৬ রান।

এরপর নামেন শরিফুল ইসলাম। ১৪ ওভার ১ বলের সময় বোল্ড হয়ে তিনি ফিরে আসেন। ফেরার পূর্বে তিনি ৯ বলে ৬ রান সংগ্রহ করেন।এরপর নেমে মো. রাসেল শিকদার তিন বল খেলে এক রান করে ফিরে আসেন। 

এরপর নামা মাহফুজ ১১ বলে ১৮ রান করেন ফিরে আসেন। মাহফুজ-মনির দলকে জয়ের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যান। শেষ ওভারে দলের জয়ের জন্য দরকার ছিল ১১ রান। মনির হোসেনের একটি চারে এগিয়ে যায় দল। এরপর সীমানার একেবারে প্রান্ত থেকে ধরা ক্যাচে আউট হয়ে যান মনির। বাংলাদেশ হেরে যায় ছয় রানে।

মনির হোসেনের ব্যক্তিগত সংগ্রহ ছিল ১৪ বলে ২২ রান। 

এর আগে সকালে টানটান উত্তেজনার আরেকটি ম্যাচে ভারত পাকিস্তানকে হারায়। এর মাধ্যমে প্রথম পর্বে চ্যাম্পিয়ন হয়ে ভারত পৌঁছে যায় ফাইনালে। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জয় নিয়ে সেমি ফাইনাল নিশ্চিত করে আফগানিস্তান।

 এই ফলাফলের কারণে সেমি ফাইনালের দল নির্বাচনে তাকিয়ে থাকতে হয় শেষ এই ম্যাচের দিকে। এই ম্যাচে জয়ের পর ইংল্যান্ড নিশ্চিত করে তাদের সেমি ফাইনাল।