৪৭ মিনিটেই শেষ বাংলাদেশের লড়াই

  • ক্রীড়া প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-11-24 13:08:34 BdST

bdnews24
ফাইল ছবি

ম্যাচের ভাগ্য নিয়ে কৌতূহলের বাকি ছিল না মোটেও। দেখার ছিল কেবল বাংলাদেশ ইনিংস পরাজয় এড়াতে পারে কিনা। পারেনি তারা। কলকাতা টেস্টের তৃতীয় দিনে সকালে ৪৭ মিনিটেই গুটিয়ে গেছে দলটি। হেরেছে ইনিংস ও ৪৬ রানে।

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ৩০.৩ ওভারে ১০৬

ভারত প্রথম ইনিংস: ৮৯.৪ ওভারে ৩৪৭/৯ (ইনিংস ঘোষণা)

বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস: ৪১.১ ওভারে ১৯৫

রেকর্ডের মালায় ভারতের জয়

অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে চলার পথে এই ভারতীয় দল গড়ল দারুণ সব রেকর্ড। এই নিয়ে টানা ৭ টেস্ট জিতল বিরাট কোহলির দল। নিজেদের সুদীর্ঘ টেস্ট ইতিহাসে প্রথমবার টানা ৭ ম্যাচে জিতল ভারত।

এই জয়ে টানা চার ম্যাচে ইনিংস ব্যবধানে জিতল ভারত। নিজেদের রেকর্ড তো বটেই, টেস্ট ইতিহাসেই প্রথমবার এই কীর্তি গড়ল কোনো দল। বাংলাদেশকে দুইবার ইনিংসে হারানোর আগে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সবশেষ সিরিজের শেষ দুটি টেস্টে ইনিংস ব্যবধানে জিতেছিল ভারত।

পেস দাপট

এই ম্যাচে ১৯ উইকেট নিয়েছেন ভারতের পেসাররা। দেশের মাটিতে এক ম্যাচে ভারতীয় পেসারদের সবচেয়ে বেশি উইকেট এটিই।  এর আগে ২০১৭ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ভারতীয় পেসারদের উইকেট ছিল ১৭টি।

৪৭ মিনিটে শেষ তৃতীয় দিন

দিনের শুরুতে যখন ব্যাটিংয়ে নামলেন না মাহমুদউল্লাহ, সম্ভাব্য পরিণতিও স্পষ্ট হয়ে যায় তখনই। মাঠের ক্রিকেটও হেঁটেছে অনুমিত পথ ধরে। মাত্র ৪৭ মিনিটেই শেষ হয়েছে তৃতীয় দিনের লড়াই। বাংলাদেশ টিকতে পেরেছে কেবল ৮.৪ ওভার। ভারত জিতেছে ইনিংস ও ৪৬ রানে।

ইনিংস পরাজয় এড়াতে বাংলাদেশের আশা হয়ে থাকা মুশফিক আউট হয়েছেন ৭৪ রানে। শেষ দিকে আল আমিন হোসেন করেছেন ২১।

‌চোট পাওয়া মাহমুদউল্লাহ নামেননি। বাংলাদেশের বাকি ৯ উইকেট ভাগাভাগি করেছেন উমেশ যাদব ও ইশান্ত শর্মা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ৩০.৩ ওভারে ১০৬

ভারত ১ম ইনিংস: ৮৯.৪ ওভারে ৩৪৭/৯

বাংলাদেশ ২য় ইনিংস: ৪১.১ ওভারে ১৯৫ (আগের দিন ১৫২/৬) (সাদমান ০, ইমরুল ৫, মুমিনুল ০, মিঠুন ৬, মুশফিক ৭৪, মাহমুদউল্লাহ ৩৯ (আহত অবসর), মিরাজ ১৫, তাইজুল ১১, ইবাদত ০, আল আমিন ২১, আবু জায়েদ ২*; ইশান্ত ১৩-২-৫৬-৪, উমেশ ১৪.১-১-৫৩-৫, শামি ৮-০-৪২-০, অশ্বিন ৫-০-১৯-০, জাদেজা ১-০-৮-০)।

ম্যাচের সমাপ্তি

মুশফিক আউট হওয়ার পর অপেক্ষা ছিল ম্যাচ শেষ হওয়ার। সময় বেশি লাগেনি। আল আমিনকে ফিরিয়ে বাংলাদেশের ইনিংস শেষ করে দিয়েছেন উমেশ যাদব। মাহমুদউল্লাহ নামেননি ব্যাটিংয়ে।

বাংলাদেশের ইনিংস শেষ ১৯৫ রানে। ভারত ম্যাচ জিতে নিল ইনিংস ও ৪৬ রানে।

শেষ উইকেটের জন্য অন্যরকম এক লড়াই ছিল ভারতের দুই পেসার ইশান্ত ও উমেশের। দুজনেরই ছিল ৪ উইকেট। শেষ পর্যন্ত ৫ উইকেট হয়েছে উমেশের। ইশান্ত থেমেছেন ইনিংসে ৪ ও ম্যাচে ৯ উইকেট নিয়ে।

শেষ হলো মুশফিকের লড়াই

অন্য প্রান্তে দাঁড়ানোর মতো কেউ নেই দেখে শুরু থেকেই আগ্রাসী খেলার চেষ্টা করছিলেন মুশফিকুর রহিম। সেই চেষ্টাতেই তার পথচলার সমাপ্তি। বিদায় নিলেন উমেশ যাদবের বল উড়য়ে মারতে গিয়ে।

অফ স্টাম্পের  বাইরের লেংথ বলটি বেরিয়ে এসে উড়িয়ে মারতে চেয়েছিলেন মুশফিক। কিন্তু বল বলটি ছিল স্লোয়ার, মুশফিকের টাইমিং হয়নি ঠিকমতো। কাভারে ক্যাচ নেন রবীন্দ্র জাদেজা।

৯৬ বলে ৭৪ রান করে শেষ হলো মুশফিকের ইনিংস। বাংলাদেশ ৮ উইকেটে ১৮৪।

দ্রুতই ফিরলেন ইবাদত

অনুমিতভাবেই ইবাদত হোসেন টিকতে পারলেন না বেশিক্ষণ। উমেশ যাদবের শরীর তাক করে আসা বল পারলেন না সামলাতে। ব্যাটের ওপরের দিকে ছোবল দিয়ে বল গেল স্লিপে বিরাট কোহলির হাতে।

শূন্য রানে বিদায় ইবাদতের। আগের দিনের রানেই বাংলাদেশ হারাল আরেকটি উইকেট। ৭ উইকেটে রান ১৫২।

মুশফিকের সঙ্গে ইবাদত

হ্যামস্ট্রিংয়ে টান লেগে আগের দিন মাঠ ছেড়ে যাওয়া মাহমুদউল্লাহর দেখা মিলল না। মুশফিকের সঙ্গে দিনের শুরুতে ব্যাট করতে নামলেন ইবাদত হোসেন। বড় চোট লাগল বাংলাদেশের ইনিংস হার এড়ানোর আশায়।

‘অর্ডিনারি দল, অর্ডিনারি টেকনিক’

দিনের খেলা শুরুর আগে টিভির পিচ রিপোর্টে সুনীল গাভাস্কার পিচ নিয়ে কথা বললেন সামান্যই। ভারতীয় কিংবদন্তি কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন বাংলাদেশ দলকে, “পিচ যেমনই থাকু, তাতে যায়-আসে সামান্যই। এই বাংলাদেশ ‘অর্ডিনারি’ এক দল, ‘অর্ডিনারি’ তাদের নিবেদন, ‘অর্ডিনারি’ তাদের টেকনিক। পিচ যেমনই হোক, ম্যাচ শেষ হবে দ্রুতই।”

নামবেন মাহমুদউল্লাহ?

তৃতীয় দিনে বাংলাদেশের লড়াই অনেকটাই নির্ভর করছে মাহমুদউল্লাহর ফিটেনসের ওপর। আগের দিন দারুণ ব্যাটিং করতে থাকা ব্যাটসম্যান হ্যামস্ট্রিংয়ে টান লাগার পর মাঠ ছেড়েছিলেন খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে। দিনের খেলা শেষে বাংলাদেশ দল থেকে জানানো হয়েছিল, তৃতীয় দিনে মাহমুদউল্লাহ ব্যাটিংয়ে ফিরবেন বলে আশা করছে দল।

মাহমুদউল্লাহ ছাড়া ব্যাটিংয়ে বাকি আছেন কেবল বাংলাদেশের তিন পেসার। ব্যাটের হাত তিন জনেরই যাচ্ছেতাই।

ভরসা মুশফিক

শুরুর ব্যাটিং ধসের পর ম্যাচ এগোচ্ছিল দ্বিতীয় দিনেই শেষ হওয়ার পথে। সেখান থেকে বাংলাদেশ খেলা তৃতীয় দিনে নিতে পেরেছে মূলত মুশফিকুর রহিমের সৌজন্যে। শুরুতে মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে জুটি ও পরে লোয়ার-মিডল অর্ডারদের নিয়ে লড়াই করে মুশফিক দিন শেষ করেছেন অপরাজিত ৫৯ রানে।

ব্যাটিং দুঃস্বপ্নের সিরিজে বাংলাদেশের দুই ফিফটির দুটিই এসেছে মুশফিকের ব্যাট থেকে।

তৃতীয় দিনে ম্যাচ যতটা সম্ভব লম্বা করা, ইনিংস পরাজয় এড়ানোর লড়াইয়ে বাংলাদেশ তাকিয়ে মুশফিকের ব্যাটে।

ইনিংস পরাজয় এড়াতে বাংলাদেশের প্রয়োজন আরও ৯০ রান।

দ্বিতীয় দিন শেষে সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ ১ম ইনিংস : ৩০.৩ ওভারে ১০৬

ভারত ১ম ইনিংস: ৮৯.৪ ওভারে ৩৪৭/৯ (ডি.)  (মায়াঙ্ক ১৪, রোহিত ২১, পুজারা ৫৫, কোহলি ১৩৬, রাহানে ৫১, জদেজা ১২, ঋদ্ধিমান ১৭*, অশ্বিন ৯, উমেশ ০, ইশান্ত ০, শামি ১০*; আল আমিন ২২.৪-৩-৮৫-৩, আবু জায়েদ ২১-৬-৭৭-২, ইবাদত ২১-৩-৯১-৩, তাইজুল ২৫-২-৮০-১)।

বাংলাদেশ ২য় ইনিংস: ৩২.৩ ওভারে ১৫২/৬ (সাদমান ০, ইমরুল ৫, মুমিনুল ০, মিঠুন ৬, মুশফিক ৫৯*, মাহমুদউল্লাহ ৩৯ (আহত অবসর), মিরাজ ১৫, তাইজুল ১১; ইশান্ত ৯-১-৩৯-৪, উমেশ ১০.৩-০-৪০-২, শামি ৮-০-৪২-০, অশ্বিন ৫-০-১৯-০)।


ট্যাগ:  লাইভ  বাংলাদেশ  বাংলাদেশ-ভারত সিরিজ