তামিমকে লারার রেকর্ড ভাঙতে বলেছিলেন রকিবুল

  • ক্রীড়া প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-02-02 20:16:18 BdST

সিঙ্গেল নিয়ে পা রেখেছিলেন তিনশ রানের উচ্চতায়, দৌড়ে ১ রান নিয়েই তামিম ইকবাল গড়লেন রেকর্ড। যার রেকর্ড ছাড়িয়ে গেলেন, সেই রকিবুল হাসান ফিল্ডিং করছিলেন কাছেই। প্রাণখোলা হাসিতে ছুটে এসে সবার আগে তামিমকে অভিনন্দন জানালেন রকিবুল। কিছু একটা বলছিলেনও তখন। সেটি জানা গেল দিনের খেলা শেষে। রকিবুল বলছিলেন, “লারার রেকর্ড ভেঙে ফেল!”

প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে লারার রেকর্ড ৫০১ রানের। সেটি ছিল অনেক দূরের পথ। টেস্টে লারার রেকর্ড ৪০০ রানের। মধ্যাঞ্চলের বিপক্ষে যখন ইনিংস ঘোষণা করল পূর্বাঞ্চল, তামিমের নামের পাশে তখন অপরাজিত ৩৩৪।

লারার রানের ধারেকাছে যাওয়া হয়নি। তবে রকিবুল হাসানের ৩১৩ রানের রেকর্ড টপকে গেছেন অনায়াসেই। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংসের রেকর্ড এখন তামিমের।

এমন একটি রেকর্ড হারালে খুশি হওয়ার কারণ নেই। দিনের খেলা শেষে মাঠ ছাড়ার সময় রকিবুল তবু চওড়া হাসিতেই জানালেন, তামিম বলেই তিনি খুশি।

“অনেক অনেক অভিনন্দন তামিমকে। যেভাবে ব্যাট করেছে, এই রেকর্ড ওর প্রাপ্য। সেই বয়সভিত্তিক পর্যায় থেকে আমরা একসঙ্গে খেলছি, অনূর্ধ্ব-১৭ থেকে। তামিম আমার সবচেয়ে প্রিয় বন্ধুদের একজন। ও রেকর্ড করেছে, আমি তাতে সত্যিই গর্বিত।”

“সব ক্রিকেটারই চায়, তার রেকর্ড সবার ওপরে থাকুক। কিন্তু তামিম যেভাবে খেলেছে, অসাধারণ। ওর মানের একজন ব্যাটসম্যানের পাশে এই রেকর্ড খুব মানায়।”

দিনের খেলা শেষে বিসিবির পক্ষ থেকে কেক কেটে উদযাপন করা হয়েছে তামিমের রেকর্ড। রকিবুলকে পাশে নিয়েই তামিম কেক কেটেছেন। রকিবুল কেক তুলে দিয়েছেন তামিমের মুখে।

মাঠে যখন তিনশ ছুঁয়েছেন তামিম, পরে গড়েছেন রেকর্ড, দুইবারই গিয়ে অভিনন্দন জানিয়েছেন রকিবুল। ওই সময়টায় কি কথা হচ্ছিল দুজনের? রকিবুল শোনালেন সেই কথা।

“শুনলে মজা মনে হতে পারে, আমি তামিমকে বলছিলাম, ‘লারার রেকর্ড ভেঙে ফেল।’ পরে তো ওরা ইনিংস ঘোষণা করল।”

২০০৭ সালের মার্চে জাতীয় লিগের ম্যাচে রেকর্ডটি গড়েছিলেন রকিবুল। এরপর এই দীর্ঘ সময়ে আর ট্রিপল সেঞ্চুরিয়ান পায়নি বাংলাদেশের ক্রিকেট। ২০১৩ সালে মার্শাল আইয়ুব ২৮৯ রানে থেমে যান, ২০১৫ সালে মোসাদ্দেক হোসেন আউট হন ২৮২ রানে। ২০১৭ সালে আরও কাছে গিয়েছিলেন নাসির হোসেন। কিন্তু তিনিও ফেরেন ২৯৫ রানে।

রকিবুলের মতে, রেকর্ড গড়তে শুধু ভালো খেলাই নয়, প্রয়োজন ভাগ্যকেও পাশে পাওয়া।

“দেখুন, অনেক সময় ভাগ্যও থাকতে হয়। খুব ভালো খেলতে খেলতেও কোনো ব্যাটসম্যান খুব ভালো একটি বলে বা কোনোভাবে আউট হয়ে যেতে পারে।”

রকিবুলের দাবি, তামিম ডাবল সেঞ্চুরি করার পর থেকেই তার মনে হয়েছে, নতুন রেকর্ড হতে পারে।

“তামিম যেভাবে খেলেছে, অসাধারণ। বোলারদের কোনো সুযোগ দেয়নি। সবকিছুই একদম ওর নিয়ন্ত্রণে ছিল, মনে হয়নি আউট হতে পারে। কালকেই তো (শনিবার) আড়াইশর মতো করে ফেলেছে (২২২)। আজকেও খুব ভালো খেলেছে। সত্যি বলতে, ওর দুইশর পর থেকেই মনে হচ্ছিল, তিনশ কেন, আরও বেশি করতে পারে।”

লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটেও বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড ছিল রকিবুলের। ঢাকা লিগে মোহামেডানের হয়ে খেলেছিলেন ১৩৮ বলে ১৯০ রানের ইনিংস। গত বছর সেই রেকর্ড ছাড়িয়ে সৌম্য সরকার করেছেন ডাবল সেঞ্চুরি। এবার প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের রেকর্ডও হাতছাড়া হলো রকিবুলের।


ট্যাগ:  বাংলাদেশ  তামিম  রকিবুল  বিসিএল