কোভিড-১৯ যখন অ্যান্ডারসনের আশীর্বাদ

  • স্পোর্টস ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-06-02 11:03:39 BdST

bdnews24

সাম্প্রতিক সময়ে চোট খুব ভোগাচ্ছিল জেমস অ্যান্ডারসনকে। বয়সও কম হয়নি। তবে এখনই ক্রিকেট ছাড়ার ইচ্ছে তার নেই। করোনাভাইরাসের কারণে পাওয়া লম্বা বিরতি তাই একরকম আশীর্বাদ হয়ে এসেছে টেস্ট ইতিহাসের সফলতম পেসারের জন্য। শারীরিক ও মানসিকভাবে চাঙা ইংলিশ পেস কিংবদন্তি বলছেন, এই বিশ্রাম তার ক্যারিয়ারকে দীর্ঘায়িত করবে আরও।

আগামী মাসেই ৩৮ পূর্ণ করবেন অ্যান্ডারসন। এই বয়সের বেশ আগেই অবসরে চলে যান বেশির ভাগ পেসার। কিন্তু অ্যান্ডারসন নিজের শেষ দেখছেন না সহসাই। ৫৮৪ টেস্ট উইকেট শিকারি পেসার আরও অনেক দিন চালিয়ে যেতে চান তার অভিযান।

লম্বা বিরতির পর অন্য সতীর্থদের সঙ্গে অ্যান্ডারসনও ফিরেছেন অনুশীলনে। তার বিশ্বাস, টেস্ট ক্যারিয়ারকে এখন লম্বা করতে পারবেন আরও।

“ আমার টেস্ট ক্যারিয়ারের শেষ দিকে বাড়তি আরও দু-এক বছর যোগ করবে এই বিরতি। অনুশীলনে ফিরতে পেরে খুবই ভালো লাগছে। যদিও নেটে খুব বেশি মানুষকে না পাওয়া একটু অদ্ভূত। তার পরও মাঠে ফিরতে পারা, ক্রিকেট খেলতে পারা দারুণ ব্যাপার।”

এই মৌসুমে দর্শকশূন্য মাঠে আন্তর্জাতিক সিরিজ আয়োজনের লক্ষ্য নিয়ে এগোচ্ছে ইংল্যান্ডের বোর্ড। অ্যান্ডারসনের সতীর্থ ফাস্ট বোলার জফ্রা আর্চার বলেছেন, মাঠে দর্শকের কৃত্রিম আওয়াজের ব্যবস্থা রাখতে। অন্যান্য খেলায় এটির ব্যবহার শুরু হয়েছে এর মধ্যেও। অ্যান্ডারসনও মনে করেন, কৃত্রিম আওয়াজ হতে পারে ভালো বিকল্প।

“ অস্ট্রেলিয়ার রাগবি লিগ দেখছিলাম আমি এবং সত্যি বলতে, শুরুতে ভেবেছিলাম, সত্যিই বুঝি দর্শক চিৎকার করছে! আমার মনে হয়েছে, এটি কার্যকর। গ্যালারিতে কেউ না থাকলেও দর্শকের একটি আবহ সৃষ্টি করা খারাপ নয়।”


ট্যাগ:  ইংল্যান্ড  অ্যান্ডারসন