পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

‘মিঠুনের মাথা খুবই ভালো’

  • ক্রীড়া প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-12-17 16:48:08 BdST

অধিনায়ক হিসেবে মোহাম্মদ মিঠুনের কার্যকারিতা নিয়ে সংশয়ের অবকাশ ছিল টুর্নামেন্ট শুরুর আগে। একটু চুপচাপ স্বভাবের তিনি, নেতাসুলভ মনোভাব ও কতৃত্ব আগে দেখা গেছে কমই। সেই মিঠুনই বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের ট্রফি ছোঁয়া থেকে কেবল এক ম্যাচ দূরে এখন। তাদের কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিনের মতে, যোগ্য হিসেবেই সাফল্যের দাবিদার মিঠুন।

গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম দলে দেশের পাঁচ সিনিয়র ক্রিকেটারের কেউ নেই। তবে অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন ঘরোয়া ক্রিকেটে আবাহনীর মতো দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন, বিসিবি একাদশে অধিনায়কত্ব করেছেন। সৌম্য সরকার নেতৃত্ব দিয়েছেন বাংলাদেশ ‘এ’ দলকে, বিসিবি একাদশকে।

লিটন দাস, শামসুর রহমানের মতো ঘরোয়া ক্রিকেটের অভিজ্ঞ ক্রিকেটাররা আছেন দলে। মিঠুনকে অধিনায়ক করার পর তাই বিস্মিত হয়েছিলেন অনেকে। কিন্তু তার নেতৃত্বে দারুণ ধারাবাহিক চট্টগ্রাম। প্রাথমিক পর্বে ৮ ম্যাচের ৭টি জিতে তারা পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে ছিল অন্যদের ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে। পরে প্রথম কোয়ালিফায়ারে হারলেও দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে ঘুরে দাঁড়ায় দাপুটে জয়ে। টুর্নামেন্ট জুড়ে মিঠুনের বোলিং পরিবর্তন, মাঠ সাজানো ছিল বেশ নজরকাড়া।

সালাউদ্দিনের ভরসা ছিল মিঠুনের ওপর।

সালাউদ্দিনের ভরসা ছিল মিঠুনের ওপর।

ফাইনালের আগের দিন বৃহস্পতিবার মিরপুর একাডেমি মাঠে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে দলের কোচ সালাউদ্দিন বললেন, নেতৃত্বে মিঠুনের সাফল্য তাদের কাছে প্রত্যাশিতই। আলাদা করে বললেন তিনি লিটনের কথাও।

“মিঠুন কিন্তু ঘরোয়া ক্রিকেটে অনেকগুলো ম্যাচে অধিনায়কত্ব করেছে। ভালো দলে করেছে, আবাহনীতেও করেছে। অনেকেরই এটা একটা ভুল ধারণা যে মিঠুন আগে কখনও অধিনায়কত্ব করেনি। আমার মনে হয়, মিঠুনের মাথা খুবই ভালো এবং খুব ভালো সিদ্ধান্ত নিতে পারে। আমার ক্রিকেটাররাও বুঝতে পেরেছে যে মিঠুনের মাথা খুবই ভালো।”

“সেদিক দিয়ে লিটনেরও প্রশংসা অনেক করতে হবে। তারা দুজন মাঠে ছিল বলে আমাদের ছেলেদের জন্য অনেক সুবিধা হয়েছে, অনেক সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুবিধা হয়েছে। সবদিক দিয়ে বলব, অধিনায়কত্ব করার মতো উপকরণ তার আছে। সে যদি ভালো ক্রিকেট খেলে, তাহলে তার অধিনায়ক হওয়ার মতো যোগ্যতা আছে।”