পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

সেঞ্চুরির পর বল হাতেও উজ্জ্বল শহিদুল

  • ক্রীড়া প্রতিবেদক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-03-24 20:00:20 BdST

bdnews24
শহিদুল ইসলাম

মার্শাল আইয়ুবের সেঞ্চুরির পরও তিনশ রানের আশেপাশে গুটিয়ে যেতে বসেছিল ঢাকা মেট্রো। আটে নেমে দারুণ সেঞ্চুরিতে দলকে টানলেন শহিদুল ইসলাম। ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসে এনে দিলেন চারশ ছাড়ানো সংগ্রহ। পরে বোলিংয়েও ভালো করলেন। তার অলরাউন্ড নৈপুণ্যে জাতীয় ক্রিকেট লিগে বরিশালের বিপক্ষে জয় দেখছে মেট্রো।

দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচে তৃতীয় দিনের খেলা শেষে বরিশালের সংগ্রহ ৭ উইকেটে ১৭৭ রান। প্রথম ইনিংসে ২৪১ রান করা দলটি এগিয়ে আছে কেবল ৫ রানে। 

এর আগে আবু হায়দারের সঙ্গে শহিদুলের শত রানের জুটিতে প্রথম ইনিংসে ৪১৩ রান করে মেট্রো।

আগের দিনের অবিচ্ছিন্ন ৬০ রানের জুটির সঙ্গে সোমবার আরও ৮০ রান যোগ করেন শহিদুল ও আবু হায়দার। এই জুটি গড়ার পথে আগের সেরা ৮৩ ছাড়িয়ে ১০৬ রানের ইনিংস খেলেন শহিদুল। তার ১৫০ বলের ইনিংসে ১৪ চারের পাশে ছক্কা চারটি। আবু হায়দার করেন ৩৯। পরে দুই জনই নেন দুটি করে উইকেট। 

বরিশাল বিভাগীয় স্টেডিয়ামে ৭ উইকেটে ৩২৪ রানে দিন শুরু করে মেট্রো। শহিদুল ও আবু হায়দার এগিয়ে নিতে থাকেন দলকে। ১০৪ বলে পঞ্চাশ স্পর্শ করার পর আক্রমণাত্মক হয়ে উঠেন শহিদুল। পরের পঞ্চাশ করেন কেবল ৩৯ বলে।

দলের রান চারশ ছাড়ানোর পর তার বিদায়েই ভাঙে অষ্টম উইকেটে ১৪০ রানের জুটি। এরপর বেশিদূর এগোয়নি মেট্রোর ইনিংস। ৯৯ বলে ২ চারে ৩৯ করার পর ইনিংসের শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে সোহাগ গাজীর বলে বোল্ড হন আবু হায়দার।

১৭২ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুটা ভালো হয়নি বরিশালের। পঞ্চম ওভারে মোহাম্মদ আশরাফুলকে বোল্ড করে দেন শহিদুল। এরপর ব্যাটিংয়ে নামার কথা ছিল অধিনায়ক ফজলে মাহমুদ রাব্বির। ফুড পয়জনিংয়ের কারণে এদিন মাঠে নামতে পারেননি তিনি। দলের আশা চতুর্থ দিন ব্যাটিংয়ে নামতে পারবেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান।

মইনুল ইসলামের সঙ্গে জমে উঠছিল সৈকত আলির জুটি। সম্ভাবনাময় এই জুটি ভাঙে সৈকতের রান আউটে। সালমান হোসেনকে নিয়ে বরিশালকে এগিয়ে নিতে থাকেন মইনুল ইসলাম। জমে যাওয়া জুটি ভাঙেন আবু হায়দার। কট বিহাইন্ড করে ফেরান ৭ চার ও এক ছক্কায় ৪৪ রান করা সালমানকে।

৭৯ রানের জুটি ভাঙার পর এদিন আর কোনো জুটি গড়তে পারেনি বরিশাল। আবু সায়েমকে দ্রুত থামান শহিদুল। সোহাগ গাজীকে এবার ঝড় তুলতে দেননি আবু হায়দার।

এই দুই জনের মাঝখানে শামসুর রহমানের স্পিনে ক্যাচ দেন মইনুল। ১৫৫ বলে খেলা তার ৬৩ রানের ইনিসে চার সাতটি।

দিনের শেষ বলে নুরুজ্জামানকে বোল্ড করে দেন আরাফাত সানি। তার এই উইকেটের হাত ধরে জয়ের পথে আরেকটু এগিয়ে গেছে মেট্রো।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বরিশাল ১ম ইনিংস: ৭৬ ওভারে ২৪১

ঢাকা মেট্রো ১ম ইনিংস: ১২৯.২ ওভারে ৪১৩ (আগর দিন ১০২ ওভারে ৩২৪/৭) (শহিদুল ১০৬, আবু হায়দার ৩৯, আরাফাত ০, রকিবুল ৫*; কামরুল ২৪-৬-৪৯-২, সোহাগ ২০.২-০-৭৭-২, মনির ২৬-৩-৮০-২, তানভির ২৮-৪-৮৪-২, সালমান ১০-২-২৬-০, সৈকত ৯-২-৪৭-১, আশরাফুল ৫-১-১৬-০, মইনুল ৩-১-১২-০, নুরুজ্জামান ৪-০-১৪-০)

বরিশাল ২য় ইনিংস: ৫৮ ওভারে ১৭৭/৭ (মইনুল ৬৩, আশরাফুল ১, সৈকত ২৫, সালমান ৪৪, আবু সায়েম ৫, সোহাগ ১৪, নুরুজ্জামান ১৩,মনির ১২*; শহিদুল ১১-২-৩৪-২, আবু হায়দার ১৪-৫-৩৫-২, আরাফাত ১৫-৪-৪৪-১, রকিবুল ৩-০-২২-০, আল-আমিন ১০-৪-২২-০, আমিনুল ৩-০-১৮-০, শামসুর ২-১-২-১)