পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

‘অ্যাশেজের চেয়েও উত্তাপের ছিল ভারত-পাকিস্তান সিরিজ’

  • স্পোর্টস ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-06-10 18:01:52 BdST

ক্রিকেটের সবচেয়ে পুরনো দ্বৈরথ অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডের অ্যাশেজ সিরিজ নিয়ে মানুষের আগ্রহের কমতি দেখা যায় না কখনোই। মাঠের লড়াই শুরুর আগেই চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে এর উত্তাপ। কিন্তু পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক ইনজামাম-উল-হকের মতে, ভারত-পাকিস্তান সিরিজ ছিল অ্যাশেজের চেয়েও বেশি রোমাঞ্চের।

এশিয়ার এই দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর লড়াই এখন আইসিসির টুর্নামেন্ট ছাড়া দেখা যায় কেবল এশিয়া কাপে। এবারের এশিয়া সেরার প্রতিযোগিতাও করোনাভাইরাসের ছোবলে স্থগিত হয়ে গেছে। সবশেষ দুই দল মুখোমুখি হয়েছিল ২০১৯ সালের ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে।

দ্বিপাক্ষিক সিরিজে ভারত-পাকিস্তান সবশেষ লড়েছিল ২০১৩ সালে। সেবার স্রেফ ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি খেলতে ভারতে গিয়েছিল পাকিস্তান। দুই দেশের সবশেষ টেস্ট সিরিজ হয়েছে ২০০৭ সালে, সেবারও ভারতে গিয়েছিল পাকিস্তান। ভারত সবশেষ পাকিস্তান সফর করেছে ২০০৮ এশিয়া কাপে। পাকিস্তানে তারা সবশেষ টেস্ট খেলেছে ২০০৬ সালে।

দুই দলের দ্বিপাক্ষিক সিরিজ আবারও মাঠে গড়ানো উচিত বলে মনে করেন ইনজামাম। স্পোর্টস্টারকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি তুলে ধরেন এই সিরিজের প্রয়োজনীয়তা।

পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক ইনজামাম-উল-হক। ছবি: পিসিবি।

পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক ইনজামাম-উল-হক। ছবি: পিসিবি।

“অ্যাশেজের চেয়েও ভারত-পাকিস্তান সিরিজ মানুষ অনেক বেশি অনুসরণ করত। প্রতিটা মুহূর্ত উপভোগ করত। ক্রিকেট এবং এর খেলোয়াড়দের উন্নতির জন্য, এশিয়া কাপ ও ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ হওয়া গুরুত্বপূর্ণ।”

ভারতের বিপক্ষে পাকিস্তানের হয়ে ওয়ানডেতে সবচেয়ে বেশি রান করা ইনজামামের চোখে, ক্রিকেটারদের উন্নতির জন্য ভারত-পাকিস্তান সিরিজ আবারও মাঠে ফেরানো জরুরি।

“প্রতিটি প্রতিযোগিতাই গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের সময়, এশিয়া কাপ এমন টুর্নামেন্ট ছিল যেখানে শীর্ষ দলগুলো প্রতিদ্বন্দ্বিতা করত। উচ্চমানের ক্রিকেট যত বেশি খেলা যায়, দক্ষতা তত বাড়ে।”

“উদাহরণস্বরূপ, ভারত যদি পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলে, ক্রিকেটাররা উৎসুক থাকে নিজেদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে। কারণ তারা জানে এই ম্যাচগুলোর গুরুত্ব ও প্রভাব। লড়াইটা একজন ক্রিকেটারকে কেবল উন্নতি করতেই নয় বরং ভক্তদের ভালোবাসা পেতেও সাহায্য করে। আমি মনে করি, এই টুর্নামেন্টগুলো হওয়া খুবই জরুরি।”