পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল, সমাবেশ

  • চট্টগ্রাম ব্যুরো, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2018-02-08 20:51:28 BdST

জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলার রায় ঘোষণার পর নগরীতে আনন্দ মিছিল ও সমাবেশ করেছে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগসহ সরকার সমর্থক বিভিন্ন সংগঠন।

দুপুরে রায় ঘোষণার পরপরই দারুল ফজল মার্কেট চত্বরে তাৎক্ষণিক সমাবেশ করে নগর আওয়ামী লীগ।

সমাবেশে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন বলেন, “বাংলাদেশে এই বিচারিক রায় একটি ঐতিহাসিক মাইলফলক। এর ফলে দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর আদর্শিক ও নৈতিক অবস্থান বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বিশ্বে উজ্জ্বল করবে।

“আইনের শাসনের কোনো বিকল্প নেই। কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়। আজ চট্টগ্রামে গণমানুষের অংশগ্রহণে অরাজকতা ও নৈরাজ্যকে প্রতিহত করে বিচারিক রায়ের প্রতি গণআস্থা প্রমাণ করেছি।”

নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, এই ঐতিহাসিক রায়ে জনতার জয় হয়েছে। বিএনপি-জামায়াতের আমলে হাওয়া ভবন দুর্নীতির আখড়া ছিল- এটা প্রমাণ হল।

সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সহ-সভাপতি ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল ও সুনীল সরকার, যুগ্ম সম্পাদক এম এ রশিদ, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিক আদনান, সম্পদকমণ্ডলীর সদস্য শফিকুল ইসলাম ফারুক, ছৈয়দ হাসান মাহমুদ শমসের, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী ও দেবাশীষ গুহ বুলবুল।

রায়ের পর আনন্দ মিছিল ও সমাবেশ করে যুবলীগ ও ছাত্রলীগ। এতে নেতৃত্ব দেন যুবলীগের আহ্বয়াক মহিউদ্দিন বাচ্চু ও যুগ্ম আহ্বায়ক ফরিদ মাহমুদ।

এর আগে সকাল থেকে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে অবস্থান নেয় আওয়ামী লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও ১৪ দলের নেতাকর্মীরা।

সকালে নগরীর এ কে খান মোড়, ইপিজেড মোড়, নিমতলা বিমান চত্বর, দেওয়ান হাট, ওয়াসা, বহদ্দারহাট, অক্সিজেন এবং দারুল ফজল মার্কেটের দলীয় কার্যালয়ে অবস্থান নেন আওয়ামী লীগ নেতারা।

নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন এবং সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজনসহ সিনিয়র নেতারা ঘুরে ঘুরে একাধিক স্থানে অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নেন।

১৪ দলের নেতারা অবস্থান নেন দোস্ত বিল্ডিং ও নিউ মার্কেট এলাকায়। তাদের নেতৃত্বে ছিলেন কেন্দ্রীয় জাসদ নেতা ইন্দু নন্দন দত্ত এবং ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক শরীফ চৌহান।

সকালে নগরীর মুরাদপুর, কর্নেল হাট, এ কে খান এলাকায় সড়কের মোড়ে অবস্থান নেয় নগর ছাত্রলীগ। তাদের নেতৃত্বে ছিলেন নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু এবং সাধারণ সম্পাদক ‍নুরুল আজিম রনি।

দুপুর থেকে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় মিছিল ও মোটর সাইকেলের বহর নিয়ে হাতে লাঠিসহ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীকে ঘুরতে দেখা গেছে।

মহিলা আওয়ামী লীগ সভানেত্রী হাসিনা মহিউদ্দিনের নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা ছিলেন জিইসি মোড় এলাকায়। সেখানে তারা রায়ের পর সমাবেশও করেন।

এছাড়া নগরীর বিভিন্ন ওয়ার্ডে মিছিল-সমাবেশ করেছে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ।